ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্সের (DeFi) একটি শিক্ষানবিস গাইড
সুচিপত্র
ভূমিকা
ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্স (DeFi) কী?
DeFi এর প্রধান সুবিধাগুলো কী কী?
DeFi এর সম্ভাব্য ব্যবহার ক্ষেত্র কী কী?
স্মার্ট কন্ট্রাক্টগুলো DeFi-তে কী ভূমিকা পালন করে?
DeFi এর চ্যালেঞ্জগুলো কী কী?
DeFi এর ঝুঁকিগুলো কী কী?
DeFi প্রজেক্ট আমি কোথায় পাবো?
DeFi প্রজেক্টগুলোতে অ্যাক্সেস করতে আমার কী কী প্রয়োজন?
DeFi বনাম প্রথাগত ফাইন্যান্স
DeFi বনাম কেন্দ্রীয় অর্থায়ন (CeFi)
DeFi ও ওপেন ব্যাংকিংয়ের মধ্যে পার্থক্য কী?
শেষ কথা
ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্সের (DeFi) একটি শিক্ষানবিস গাইড
হোম
নিবন্ধ
ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্সের (DeFi) একটি শিক্ষানবিস গাইড

ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্সের (DeFi) একটি শিক্ষানবিস গাইড

প্রকাশিত হয়েছে Dec 16, 2019আপডেট হয়েছে Nov 10, 2022
12m

TL;DR

DeFi ব্যবহারকারীদের শুধুমাত্র সামান্য কিছু ক্রিপ্টোসহ একটি ওয়ালেট দিয়ে ক্রিপ্টোর আর্থিক পরিষেবাগুলোতে অ্যাক্সেস করার সুযোগ প্রদান করে। বেশ কিছু DApps অনেক ব্লকচেইন জুড়ে ঋণ প্রদান, তারল্যের যোগান, সোয়াপ, স্ট্যাকিং ও আরো অনেক কিছুর সুবিধা দেয়।

ইথিরিয়াম DeFi এর আসল বিচরণস্থান হলেও, স্মার্ট কন্ট্রাক্টের সক্ষমতা থাকা অধিকাংশ ব্লকচেইন এখন DeFi DApps হোস্ট করে। স্মার্ট কন্ট্রাক্টগুলো পরিষেবা DeFi অফারগুলোর জন্য অত্যাবশ্যকীয়, যার মধ্যে স্ট্যাকিং, বিনিয়োগ, ধার দেওয়া, হারভেস্টিং ও আরো অনেক কিছু রয়েছে।

এখন পর্যন্ত, DeFi সবাইকে তাদের ইল্ড অপ্টিমাইজ করতে, ডিসেন্ট্রালাইজড মার্কেটে যোগদান করতে, ব্যাংকিং পরিষেবাগুলো অ্যাক্সেস করতে ও দ্রুত ধার নেওয়া ও ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে অংশগ্রহণ করার সুযোগ প্রদান করেছে। তবে, DeFi-ও ঝুঁকির বাইরে নয় এবং ঝুঁকি নেওয়ার আগে আপনার সবসময় সাবধানতার সাথে সকল প্রজেক্টের গবেষণা করা উচিত।


ভূমিকা

DeFi জগতে প্রবেশ করা অনেকের কাছে উত্তেজনাপূর্ণ হলেও কিছুটা বিভ্রান্তিকরও বটে। কিছু সময় HOD করার পরে, আপনি কিভাবে আপনার পোর্টফোলিও থেকে কিছু অতিরিক্ত লাভ নিতে পারেন তা ভাবাটাই স্বাভাবিক। তবে, DeFi এর ক্ষেত্রে জানার আছে অনেক কিছু।

দায়িত্বশীলতার সাথে ব্যবহার করা হলে, DeFi DApps ও প্রজেক্টগুলো শক্তিশালী ট্যুল হয়ে উঠতে পারে। কিন্তু খুব দ্রুত নেমে পড়লে সহজেই হতবিহ্বল হয়ে যাওয়া ও বিনিয়োগে অবিবেচক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়ে যেতে পারে। অংশগ্রহণ করা সর্বোত্তম উপায় হল ঝুঁকি সম্পর্কে জেনে আপনার জন্য উপযুক্ত কী তা খুঁজে বের করা। এটি বিবেচনায় রেখে, আপনার DeFi যাত্রা শুরু করার সময় আপনার প্রয়োজনীয় মৌলিক বিষয়গুলো চলুন দেখে নেই।


ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্স (DeFi) কী?

ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্স (বা সংক্ষেপে DeFi) এর মাধ্যমে ব্লকচেইন নেটওয়ার্কে নির্মিত আর্থিক অ্যাপ্লিকেশনগুলোর একটি ইকোসিস্টেমকে বোঝায়। 

আরো নির্দিষ্টভাবে বললে, DeFi শব্দটি এমন একটি আন্দোলনকে নির্দেশ করতে পারে যার লক্ষ্য একটি ওপেন সোর্স, অনুমতিবিহীন ও স্বচ্ছ আর্থিক পরিষেবা ইকোসিস্টেম তৈরি করা। যেটি সবার জন্য উপলভ্য ও কোনো কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষ ছাড়াই চলে। তাদের অ্যাসেটের উপর ব্যবহারকারীদের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ থাকবে এবং পিয়ার-টু-পিয়ার (P2P)ডিসেন্ট্রালাইজড অ্যাপ্লিকেশন (DApps) এর মাধ্যমে এই ইকোসিস্টেমের সাথে যোগাযোগ করবে।

DeFi এর মূল সুবিধা হল আর্থিক পরিষেবাগুলোতে সহজে অ্যাক্সেস সক্ষম করে, বিশেষ করে যারা প্রচলিত আর্থিক ব্যবস্থা থেকে বিচ্ছিন্ন। DeFi এর আরেকটি সুবিধা হলো পাবলিক ব্লকচেইনে আন্তঃকার্যক্ষম DeFi অ্যাপ্লিকেশন নিয়ে মডুলার ফ্রেমওয়ার্কে এটির এটি নির্মাণ। এগুলোর রয়েছে সম্পূর্ণ নতুন আর্থিক মার্কেট, পণ্য ও পরিষেবা তৈরি করার সম্ভাবনা।


DeFi এর প্রধান সুবিধাগুলো কী কী?

প্রথাগত আর্থিক ব্যবস্থা মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করার জন্য ব্যাংক ও আর্বিট্রেশনের জন্য আদালতের মতো প্রতিষ্ঠানের উপর নির্ভর করে।

DeFi অ্যাপ্লিকেশনগুলোর জন্য কোনো মধ্যস্থতাকারী বা আর্বিট্রেটরের প্রয়োজন নেই। কোড প্রতিটি সম্ভাব্য বিরোধের সমাধান নির্দিষ্ট করে ও ফান্ডের উপর নিয়ন্ত্রণ সর্বদা ব্যবহারকারীদের কাছে থাকে। এই অটোমেশন এই পণ্যগুলোর সরবরাহ ও ব্যবহারের সাথে সংশ্লিষ্ট খরচ কমিয়ে দেয় ও আরো বাধাহীন আর্থিক ব্যবস্থা সম্ভব করে।

এই নতুন আর্থিক পরিষেবাগুলো ব্লকচেইনের উপরে স্থাপিত হওয়ায়, ব্যর্থতার একক পয়েন্ট নির্মূল হয়েছে। ডেটা ব্লকচেইনে রেকর্ড করা হয় ও হাজার হাজার নোড জুড়ে ছড়িয়ে দেয়া হয় যা সেন্সরশিপ বা পরিষেবার সম্ভাব্য বন্ধ হয়ে যাওয়াকে অত্যন্ত জটিল করে দেয়। 

এই ধরনের একটি উন্মুক্ত ইকোসিস্টেমের আরেকটি উল্লেখযোগ্য সুবিধা হল এমন ব্যক্তিদের জন্য সহজলভ্যতা, যারা অন্যথায় কোনো আর্থিক পরিষেবার অ্যাক্সেস পেতেন না। প্রথাগত আর্থিক ব্যবস্থা মুনাফা অর্জনকারী মধ্যস্থতাকারীদের উপর নির্ভর করায়, তাদের পরিষেবাগুলো সাধারণত নিম্ন-আয়ের কমিউনিটিতে অনুপস্থিত থাকে। তবে, DeFi এর মাধ্যমে খরচ উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে এবং নিম্ন আয়ের ব্যক্তিরাও আর্থিক পরিষেবাগুলোর বিস্তৃত পরিসর থেকে উপকৃত হতে পারেন।


DeFi এর সম্ভাব্য ব্যবহার ক্ষেত্র কী কী?

ধার গ্রহণ ও ঋণ প্রদান

DeFi ইকোসিস্টেমে জনপ্রিয় অ্যাপ্লিকেশন ধরণের মধ্যে ওপেন লেন্ডিং প্রোটোকল হল সবচেয়ে অগ্রগণ্য। প্রথাগত ঋণ ব্যবস্থার তুলনায় ওপেন, ডিসেন্ট্রালাইজড ঋণ ও ঋণ প্রদানের অনেক সুবিধা রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে তাত্ক্ষণিক লেনদেন নিষ্পত্তি, কোনো ক্রেডিট চেক না থাকা ও ডিজিটাল অ্যাসেটের জামানত করার ক্ষমতা, কোনো ক্রেডিট চেক না থাকা।

এই ঋণ পরিষেবাগুলো পাবলিক ব্লকচেইনের উপর ভিত্তি করে তৈরি হওয়ায়, এগুলো আস্থার প্রয়োজনীয় পরিমাণ হ্রাস করে এবং ক্রিপ্টোগ্রাফিক যাচাইকরণ পদ্ধতির নিশ্চয়তা থাকে। ব্লকচেইনে ঋণ প্রদানের মার্কেটপ্লেসগুলো কাউন্টারপার্টির ঝুঁকি কমায় এবং ধার গ্রহণ ও ঋণ প্রদান সস্তা, দ্রুত ও আরো বেশি লোকের কাছে উপলভ্য করে।

আর্থিক ব্যাংকিং পরিষেবা

DeFi অ্যাপ্লিকেশনগুলো মূলত আর্থিক অ্যাপ্লিকেশন হওয়ায়, আর্থিক ব্যাংকিং পরিষেবাগুলো এগুলোর একটি প্রত্যক্ষ ব্যবহার ক্ষেত্র। এর মধ্যে  স্ট্যাবলকয়েন, বন্ধক ও বিমা ইস্যু করা অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

ব্লকচেইন শিল্পের বিকশিত হবার পরিক্রমায়, স্ট্যাবলকয়েন তৈরির উপর আরো বেশি দৃষ্টি নিবন্ধ হচ্ছে। এগুলো হল সাধারণত বাস্তব-বিশ্বের অ্যাসেটের সাথে যুক্ত ক্রিপ্টো অ্যাসেট যা সহজেই ডিজিটালভাবে ট্রান্সফারযোগ্য। ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্য সময়ে সময়ে দ্রুত ওঠানামা করার সম্ভাবনা থাকায়, ডিসেন্ট্রালাইজড স্ট্যাবলকয়েনগুলোকে দৈনন্দিন ব্যবহারের জন্য ডিজিটাল মুদ্রা হিসেবে গ্রহণ করা যেতে পারে যেগুলো কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষ দ্বারা ইস্যু ও নিরীক্ষণ করা হয় না। 

সংশ্লিষ্ট মধ্যস্থতাকারীর সংখ্যার কারণে, কোনো বন্ধক পাওয়া ব্যয়বহুল ও সময়সাপেক্ষ। স্মার্ট কন্ট্রাক্টের মাধ্যমে, আন্ডাররাইটিং ও আইনি ফি উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করা যেতে পারে।

মধ্যস্থতাকারীদের প্রয়োজনীয়তা ব্লকচেইনের বিমা দূর করতে পারে ও অনেক অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ঝুঁকি বিতরণের সুযোগ দিতে পারে। এর ফলে একই মানের পরিষেবায় কম প্রিমিয়ামের প্রয়োজন হতে পারে। 

আপনি যদি ব্লকচেইন ও ব্যাংকিং বিষয়ে আরো পড়তে চান তাহলে ব্লকচেইন প্রযুক্তি কিভাবে ব্যাংকিং শিল্পকে প্রভাবিত করবে তা দেখুন

ডিসেন্ট্রালাইজড মার্কেটপ্লেসসমূহ

উপলভ্য সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু DeFi অ্যাপ্লিকেশন হল ডিসেন্ট্রালাইজড এক্সচেঞ্জ (DEXs), যেমন Binance DEX। এই প্ল্যাটফর্মগুলো ব্যবহারকারীদেরকে তাদের ফান্ড ধরে রাখার জন্য বিশ্বস্ত মধ্যস্থতাকারীর (এক্সচেঞ্জ) প্রয়োজন ছাড়াই ডিজিটাল অ্যাসেটের ট্রেড করার সু্যোগ প্রদান করে। ট্রেড স্মার্ট কন্ট্রাক্টের সহায়তায় সরাসরি ব্যবহারকারীদের ওয়ালেটের মধ্যে সম্পাদিত হয়। 

অটোমেটেড মার্কেট মেকারস (AMM) নামে পরিচিত কিছু এক্সচেঞ্জ, আপনার ট্রেডের সাথে ম্যাচ করার জন্য সরাসরি কোনো প্রতিপক্ষের প্রয়োজন ছাড়াই লেনদেনের সুবিধার্থে তারল্য পুল ব্যবহার করে। Uniswap ও Pancake Swap হল দুটি সুপরিচিত উদাহরণ। এগুলোর রক্ষণাবেক্ষণের কাজ ও পরিচালনার প্রয়োজন কম হওয়ায়, ডিসেন্ট্রালাইজড এক্সচেঞ্জগুলোতে সাধারণত সেন্ট্রালাইজড এক্সচেঞ্জের তুলনায় কম ট্রেডিং ফি থাকে।

ব্লকচেইন প্রযুক্তি প্রচলিত আর্থিক উপকরণের বিস্তৃত পরিসরের মালিকানা ইস্যু করা ও অনুমতি দিতেও ব্যবহার করা যেতে পারে। এই অ্যাপ্লিকেশনগুলো একটি ডিসেন্ট্রালাইজড উপায়ে কাজ করবে যা কাস্টোডিয়ানদের বাদ দেয় ও ব্যর্থতার একক পয়েন্টগুলোকে অপসারণ করে।

উদাহরণস্বরূপ, সিকিউরিটি টোকেন ইস্যু করার প্ল্যাটফর্ম কাস্টমাইজযোগ্য প্যারামিটারসহ ব্লকচেইনে টোকেনাইজড সিকিউরিটিগুলো চালু করতে ইস্যুকারীদের জন্য সরঞ্জাম ও সংস্থান সরবরাহ করতে পারে।

অন্যান্য প্রজেক্টগুলো ডেরিভেটিভ, সিন্থেটিক অ্যাসেট, ডিসেন্ট্রালাইজড পূর্বাভাসের মার্কেট ও আরো অনেক কিছু তৈরির অনুমতি দিতে পারে।

ইল্ড অপ্টিমাইজেশান

DeFi DApps স্ট্যাকিং, রিওয়ার্ড পুল ও অন্যান্য সুদ বহনকারী পণ্য থেকে অর্জিত ইল্ডের চক্রবৃদ্ধি স্বয়ংক্রিয় ও অপ্টিমাইজ করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। আপনি কখনও কখনও ইল্ড অপ্টিমাইজেশনকে ইল্ড ফার্মিং হিসেবেও শুনতে পারেন। 

উদাহরণস্বরূপ, আপনি বিটকয়েন মাইন করেBNB ডেলিগেট করে বা তারল্য প্রদান থেকে নিয়মিত পুরস্কার পেতে পারেন। একটি স্মার্ট কন্ট্রাক্ট আপনার পুরস্কার নিতে পারে, আরো অন্তর্নিহিত অ্যাসেট ক্রয় করতে পারে ও সেটিকে পুনরায় বিনিয়োগ করতে পারে। এই প্রক্রিয়াটি আপনার সুদকে চক্রবৃদ্ধি হারে বাড়াবে, প্রায়শই উল্লেখযোগ্যভাবে যা আপনার আয় বৃদ্ধি করবে।

অবশ্যই, আপনি এটি ম্যানুয়ালি করতে পারেন। তবে কোনো স্মার্ট কন্ট্রাক্ট ব্যবহার করলে সময় সাশ্রয় হবে ও চক্রবৃদ্ধি হওয়া অপ্টিমাইজ করবে। আপনার ফান্ডগুলো সাধারণত অন্যান্য ব্যবহারকারীদের সাথে একত্রিত করা হয়, যার অর্থ হল যে গ্যাস এর ফিগুলো ইল্ড অপ্টিমাইজ করা স্মার্ট কন্ট্রাক্টের সকল সদস্যদের মধ্যে শেয়ার করা হয়। 


স্মার্ট কন্ট্রাক্টগুলো DeFi-তে কী ভূমিকা পালন করে?

ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্সের বিদ্যমান ও সম্ভাব্য প্রয়োগের মধ্যে অধিকাংশই স্মার্ট কন্ট্রাক্ট তৈরি ও কার্যকর করার সাথে জড়িত। প্রচলিত কন্ট্রাক্ট কন্ট্রাক্টে অংশগ্রহণকারী সত্তাগুলোর মধ্যে সম্পর্কের শর্তাবলী নির্দিষ্ট করতে আইনি পরিভাষা ব্যবহার করে আর একটি স্মার্ট কন্ট্রাক্ট কম্পিউটার কোড ব্যবহার করে।

শর্তাবলী কম্পিউটার কোডে লেখা থাকায়, সেই শর্তগুলোকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রয়োগ করার অনন্য ক্ষমতা স্মার্ট কন্ট্রাক্টের রয়েছে। এটি বর্তমানে ম্যানুয়াল তত্ত্বাবধানের প্রয়োজন হয় এমন অনেক ব্যবসায়িক প্রক্রিয়ার নির্ভরযোগ্য সম্পাদন ও স্বয়ংক্রিয়করণকে সক্ষম করে।

স্মার্ট কন্ট্রাক্ট ব্যবহার করা দ্রুততর, সহজতর ও উভয় পক্ষের জন্য ঝুঁকি হ্রাস করে। অন্যদিকে, স্মার্ট কন্ট্রাক্টগুলো নতুন ধরণের ঝুঁকিও নিয়ে আসে। যেহেতু কম্পিউটার কোড বাগ ও দুর্বলতা প্রবণ, তাই স্মার্ট কন্ট্রাক্টে লক করা মূল্য ও গোপনীয় তথ্য ঝুঁকির মধ্যে থাকে।


DeFi এর চ্যালেঞ্জগুলো কী কী?

  • দুর্বল পারফর্ম্যান্স: ব্লকচেইনগুলো তাদের সেন্ট্রালাইজড সমকক্ষদের তুলনায় সহজাত বৈশিষ্ট অনুযায়ী ধীর প্রকৃতির, যা এগুলোর উপর ভিত্তি করে নির্মিত অ্যাপ্লিকেশনগুলোকে প্রভাবিত করে। DeFi অ্যাপ্লিকেশনের ডেভলপারদের এই সীমাবদ্ধতাগুলো বিবেচনায় নিয়ে সেই অনুযায়ী তাদের পণ্যগুলোকে অপ্টিমাইজ করতে হবে।

  • ব্যবহারকারীদের ভুল করার উচ্চ ঝুঁকি: DeFi অ্যাপ্লিকেশনগুলো দায়িত্ব মধ্যস্থতাকারীদের কাছ থেকে নিয়ে ব্যবহারকারীর কাছে ট্রান্সফার করেছে। এটি অনেকের জন্য একটি নেতিবাচক দিক হতে পারে। ব্যবহারকারীর ভুল করার ঝুঁকি হ্রাস করে এমন পণ্য ডিজাইন করা একটি কঠিন চ্যালেঞ্জ যখন পণ্যগুলো অপরিবর্তনীয় ব্লকচেইনের উপরে স্থাপন করা হয়।

  • খারাপ ব্যবহারকারী অভিজ্ঞতা: বর্তমানে, DeFi অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করার জন্য ব্যবহারকারীদের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত প্রচেষ্টার প্রয়োজন হয়। DeFi অ্যাপ্লিকেশনগুলোকে বৈশ্বিক আর্থিক ব্যবস্থার একটি মূল উপাদান হওয়ার জন্য, তাদের অবশ্যই একটি বাস্তব সুবিধা প্রদান করতে হবে যা ব্যবহারকারীদের প্রথাগত সিস্টেম থেকে চলে আসতে উৎসাহিত করে।

  • বিশৃঙ্খল ইকোসিস্টেম: কোন নির্দিষ্ট ব্যবহার ক্ষেত্রটি সবচেয়ে উপযুক্ত অ্যাপ্লিকেশন তা খুঁজে পাওয়া একটি জটিল কাজ হতে পারে এবং সেরা পছন্দগুলো খুঁজে পাওয়ার সুযোগ ব্যবহারকারীদের অবশ্যই থাকতে হবে। শুধুমাত্র অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করা নয় বরং চ্যালেঞ্জটি হলো সেগুলো কিভাবে বৃহত্তর DeFi ইকোসিস্টেমে ফিট করে সে সম্পর্কেও চিন্তা করা।


DeFi এর ঝুঁকিগুলো কী কী?

DeFi বিশ্ব আকর্ষণীয় APY অফার করলেও এটি ঝুঁকিহীন নয়। এগুলো ডিসেন্ট্রালাইজড হলেও, আপনি মূলত আর্থিক পরিষেবাই গ্রহণ করছেন এবং ফলে কিছু পরিচিত ঝুঁকি রয়েছে:

1. কাউন্টারপার্টি ঝুঁকি: আপনি যদি ক্রিপ্টো লোন বা অন্য কোনো ধরনের ঋণ প্রদান কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন, তাহলে অপরপক্ষ তাদের ঋণ পরিশোধ করনে এমন ঝুঁকিতে থাকবেন।

2. নিয়ন্ত্রক ঝুঁকি: নির্দিষ্ট পরিষেবা ও প্রজেক্টের বৈধতা নিশ্চিত করা কঠিন হতে পারে। আপনি যদি কোনো স্মার্ট কন্ট্রাক্টে বিনিয়োগ করেন যা পরবর্তীতে নিয়ন্ত্রক সমস্যার কারণে বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে আপনার ফান্ড ঝুঁকিতে পড়তে পারে।

3. টোকেন ঝুঁকি: আপনার ধারণ করা অ্যাসেটগুলোর তারল্য, বিশ্বস্ততা, টোকেন স্মার্ট কন্ট্রাক্ট নিরাপত্তা ও সংশ্লিষ্ট প্রজেক্ট ও দল দ্বারা প্রভাবিত বিভিন্ন ঝুঁকির মাত্রা রয়েছে। DeFi গতিতে অনেক কম মার্কেট-ক্যাপ টোকেন থাকায় টোকেন ঝুঁকি বিশেষভাবে বেশি হতে পারে।

4. সফ্টওয়্যার সংশ্লিষ্ট ঝুঁকি: কোড সংশ্লিষ্ট দুর্বলতা আপনার বিনিয়োগ করা স্মার্ট কন্ট্রাক্টগুলোর নিরাপত্তাকে খর্ব করতে পারে। DeFi DApps এর সাথে সংযোগ স্থাপন ও সেগুলোকে নির্দিষ্ট অনুমতি দেওয়ার কারণে আপনার ওয়ালেটটিও বিপদগ্রস্ত হতে পারে।

5. অস্থায়ী ক্ষতি: আপনি যদি লিকুইডিটি পুলে স্ট্যাক করে থাকেন, তাহলে আপনি যে মূল্য অনুপাতে প্রবেশ করেছেন তার থেকে ডাইভারজেন্স হলে, উত্তোলন করলে আপনি পুলে জমা করা কিছু টোকেন হারাবেন।


DeFi প্রজেক্ট আমি কোথায় পাবো?

ইথিরিয়াম দীর্ঘদিন ধরেই DeFi এর ঐতিহাসিক বিচরণস্থল। তবে, উন্নত DeFi ইকোসিস্টেম থাকা অনেক ব্লকচেইন রয়েছে যেগুলো থেকে বাছাই করার সুযোগ আছে। স্মার্ট কন্ট্রাক্টের ক্ষমতা থালা প্রায় সকল নেটওয়ার্কই DeFi DApps হোস্ট করতে পারে। ফ্যান্টম, সোলানাপলকাডট, ও অ্যাভালাঞ্চ এর পাশাপাশি BNB স্মার্ট চেইন একটি বেশ জনপ্রিয় পছন্দ।

প্রজেক্ট ও DeFi প্রোটোকল খুঁজে পেতে কিছু গবেষণা প্রয়োজন হবে। অনলাইন ফোরাম, মেসেঞ্জার ও ওয়েবসাইটগুলো আপনাকে নতুন সুযোগ সম্পর্কে জানতে সাহায্য করতে পারে। তবে, খুঁজে পাওয়ায় যেকোনো তথ্য সম্পর্কে আপনাকে অত্যন্ত সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। আপনি যে প্রজেক্টটি সম্পর্কে পড়েছেন বা শুনেছেন সেটি সম্পর্কে সর্বদা সতর্ক থাকুন এবং নিরাপত্তা বার বার চেক করুন।


DeFi প্রজেক্টগুলোতে অ্যাক্সেস করতে আমার কী কী প্রয়োজন?

DeFi DApps এর সাথে যুক্ত হতে, নিম্নোক্ত জিনিসগুলো আপনার প্রয়োজন হবে: 

1. একটি কম্প্যাটিবল ওয়ালেট।একটি ব্রাউজার এক্সটেনশন ওয়ালেট যেমন মেটামাস্ক বা মোবাইলের জন্য একইরকম কোনোটি যেমন ট্রাস্ট ওয়ালেট-এ কাজ হবে। কোনো কাস্টোডিয়াল ওয়ালেটে (যেখানে প্রাইভেট কীগুলোর মালিক আপনি নন) আপনার DApps এর সাথে সংযোগ করার অনুমতি পাওয়ার সম্ভাবনা কম।

2. ক্রিপ্টো। এটি স্বাভাবিক বলে মনে হলেও, আপনার অ্যাসেটের একটি সংমিশ্রণের প্রয়োজন হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, BNB স্মার্ট চেইনের যেকোনো DApp ব্যবহার করার জন্য আপনার গ্যাস এর ফি BNB এর দিতে হবে। ইথিরিয়ামের জন্য ইথের (ETH) প্রয়োজন হবে। আপনি যদি লিকুইডিটি পুল ও ম্যানুয়ালভাবে স্ট্যাক শুরু করতে চান, তাহলে সমান আর্থিক মূল্যের এক জোড়া কয়েন আপনার প্রয়োজন হবে।

মূলত, শুধুমাত্র এগুলোই আপনার প্রয়োজন হবে। আপনি যদি নিজে এটি সেট আপ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ না করেন তবুও আপনি কোনো সেন্ট্রালাইজড প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কিছু DeFi পরিষেবা অ্যাক্সেস করতে পারেন। সেন্ট্রালাইজড অর্থ (CeFi) নিয়ে আলোচনা করার সময় আমরা পরের কোনো সেকশনে এটি নিয়ে আলোচনা করবো।


DeFi বনাম প্রথাগত ফাইন্যান্স

যুক্তি দিয়ে দেখানো সম্ভব যে DeFi ও প্রথাগত ফাইন্যান্সের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য পার্থক্য হল অ্যাক্সেসযোগ্যতা। কিছু ক্রিপ্টো থাকলে যেকেউ একটি ওয়ালেট তৈরি করে DeFi পরিষেবাগুলোর ব্যবহার শুরু করতে পারে। কোনো সাইন আপ বা পরিচয় যাচাইকরণ প্রয়োজন নেই। প্রথাগত আর্থিক পরিষেবাগুলো অ্যাক্সেস করতে অবশ্যই আপনার গ্রাহককে জানুন (KYC) চেক সম্পন্ন ও অন্যান্য শর্ত পূরণ করতে হবে। এই মৌলিক পার্থক্যটি DeFi-কে ব্যাংকবিহীনদের কাছে অ্যাক্সেসযোগ্য করে তোলে যা আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকে উন্নত করে।

DeFi এমন আর্থিক পরিষেবাও অফার করে যা প্রথাগত দুনিয়ায় উপলভ্য নয়। বিভিন্ন DeFi পরিষেবাগুলোকে স্তরীভূত করে (কখনও কখনও DeFi লেগোস নামেও পরিচিত), একাধিক প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করা নতুন পণ্য তৈরি করা সম্ভব। এই নমনীয়তা উদ্ভাবনী পণ্যের জন্য সুযোগ সৃষ্টি করে যেগুলোর জন্য যে কেউ কৌশল তৈরি করতে পারে।


DeFi বনাম কেন্দ্রীয় অর্থায়ন (CeFi)

এমনকি ক্রিপ্টো বিশ্বেও, প্রতিটি আর্থিক পরিষেবাই ডিসেন্ট্রালাইজড নয়। উদাহরণস্বরূপ, Binance এর মতো একটি সেন্ট্রালাইজড এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে স্ট্যাক করার জন্য প্রায়শই আপনাকে আপনার টোকেনগুলোর কাস্টোডি ছেড়ে দিতে হয়। এই ক্ষেত্রে, আপনার ফান্ড নিয়ে কাজ করা সেন্ট্রালাইজড প্রতিষ্ঠানকে আপনার অবশ্যই বিশ্বাস করতে হবে।

প্রদত্ত পরিষেবার সংখ্যাগরিষ্ঠ একই হবে। এগুলো একই DeFi প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে সম্পন্ন করার সম্ভাবনা বেশি যেটি একজন ব্যবহারকারী সরাসরি অ্যাক্সেস করতে পারেন। তবে, DeFi বিনিয়োগ পরিচালনার করা যেটি প্রায়শই একটি জটিল কাজ, তা থেকে CeFi আপনাকে মুক্তি দেয়। আপনার জমায় অতিরিক্ত নিশ্চয়তাও থাকতে পারে।

CeFi DeFi এর চেয়ে খারাপও নয় ভাল নয়। এটির উপযুক্ততা আপনার ইচ্ছা ও চাহিদার উপর নির্ভর করে। CeFi এর উপর কিছু নিয়ন্ত্রণ ত্যাগ করতে হলেও আপনি প্রায়শই জোড়ালো নিশ্চয়তা পাবেন এবং অ্যাসেট পরিচালনা ও লেনদেন সম্পাদনের জন্য কিছু দায়িত্ব কমাতে পারবেন।


DeFi ও ওপেন ব্যাংকিংয়ের মধ্যে পার্থক্য কী?

ওপেন ব্যাংকিং হল এমন একটি ব্যাংকিং ব্যবস্থা যেখানে তৃতীয় পক্ষের আর্থিক পরিষেবা প্রদানকারীদেরকে API এর মাধ্যমে আর্থিক ডেটাতে নিরাপদ অ্যাক্সেস দেওয়া হয়। এটি ব্যাংক ও নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অ্যাকাউন্ট ও ডেটা নেটওয়ার্কিংকে সক্ষম করে। মূলত, এটি প্রথাগত আর্থিক ব্যবস্থার মধ্যে নতুন পণ্য ও পরিষেবাগুলোর জন্য সুযোগ প্রদান করে। 

তবে, DeFi একটি সম্পূর্ণ নতুন আর্থিক ব্যবস্থার প্রস্তাব করে যা বর্তমান অবকাঠামো থেকে স্বাধীন। DeFi-কে কখনও কখনও উন্মুক্ত ফাইন্যান্স হিসেবেও উল্লেখ করা হয়।

উদাহরণস্বরূপ, উন্মুক্ত ব্যাংকিং বিভিন্ন ব্যাংক ও প্রতিষ্ঠান থেকে নিরাপদে ডেটা সংগ্রহ করে একটি অ্যাপ্লিকেশনে সকল প্রথাগত আর্থিক উপকরণ পরিচালনার সুযোগ দিতে পারে। 

অন্যদিকে, ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্স সম্পূর্ণ নতুন আর্থিক উপকরণ ও তাদের সাথে যোগাযোগের নতুন উপায় পরিচালনার সুযোগ দিতে পারে।


শেষ কথা

ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্স প্রথাগত আর্থিক ও রাজনৈতিক ব্যবস্থা থেকে পৃথক আর্থিক পরিষেবা নির্মাণের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। এটি আরো উন্মুক্ত আর্থিক ব্যবস্থার জন্য সুযোগ সৃষ্টি করবে এবং বিশ্বব্যাপী সেন্সরশিপ, আর্থিক নজরদারি ও বৈষম্যের ঘটনাগুলোকে প্রতিরোধ করার সম্ভাবনা তৈরি করতে পারে।

ধারণাটি লোভনীয় হলেও, সবকিছুই ডিসেন্ট্রালাইজেশন থেকে উপকৃত হয় না। উন্মুক্ত আর্থিক পণ্যগুলোর একটি মূল্যবান স্ট্যাক তৈরি করার জন্য ব্লকচেইনের বৈশিষ্ট্যগুলোর সবচেয়ে উপযুক্ত ব্যবহার ক্ষেত্র খুঁজে বের করে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সফল হলে, DeFi বৃহৎ সেন্ট্রালাইজড সংস্থাগুলো থেকে ক্ষমতা কেড়ে নিয়ে এটিকে ওপেন সোর্স কমিউনিটি ও ব্যক্তির নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে। এটি আরো দক্ষ কোনো আর্থিক ব্যবস্থা তৈরি করবে কিনা তা মূলধারা কর্তৃক DeFi গৃহিত হওয়ার জন্য প্রস্তুত হলেই নিশ্চিত হবে।