নোড কী?
নোড কী?

নোড কী?

প্রকাশিত হয়েছে Nov 29, 2018আপডেট হয়েছে Nov 16, 2022
5m

প্রসঙ্গ অনুযায়ী নোডের সংজ্ঞা পরিবর্তিত হতে পারে। কম্পিউটার বা টেলিকমিউনিকেশন নেটওয়ার্কের ক্ষেত্রে, নোড হয় একটি পুনঃবন্টন বিন্দু বা যোগাযোগের শেষপ্রান্ত হিসেবে কাজ করতে পারে। নোড সাধারণত একটি ফিজিক্যাল নেটওয়ার্ক ডিভাইস নিয়ে গঠিত হলেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে ভার্চুয়াল নোড ব্যবহার করা হয়।

কোনো নেটওয়ার্ক নোড হল একটি বিন্দু যেখানে কোনো বার্তা তৈরি, গ্রহণ বা প্রেরণ করা যায়। এখানে আমরা বিটকয়েন নোডের বিভিন্ন ধরণ নিয়ে আলোচনা করবো: ফুল নোড, সুপারনোড, মাইনার নোড এবং SPV ক্লায়েন্ট।


বিটকয়েন নোড

বিকেন্দ্রিভূত সিস্টেম হিসেবে ডিজাইন করা ব্লকচেইন - কম্পিউটার নোডের নেটওয়ার্কই বিটকয়েনকে বিকেন্দ্রীভূত পিয়ার-টু-পিয়ার (P2P) ডিজিটাল মুদ্রা হিসেবে ব্যবহার করা সম্ভব করে তোলে। সে কারণে, ডিজাইন অনুযায়ীই এটি সেন্সরশিপ-প্রতিরোধী এবং ব্যবহারকারী থেকে ব্যবহারকারীর (তারা পৃথিবীতে যতই দূরে থাকুক না কেন) মধ্যে লেনদেনের জন্য কোনো মধ্যস্ততাকারীর প্রয়োজন হয় না।

অতএব, ব্লকচেইন নোডগুলো একটি যোগাযোগ বিন্দু হিসেবে কাজ করার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত যা বিভিন্ন ফাংশন সম্পাদন করতে পারে। বিটকয়েন ইন্টারফেসের সাথে সংযোগকারী যেকোনো কম্পিউটার বা ডিভাইসকে নোড হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে এই অর্থে যে তারা একে অপরের সাথে কোনো না কোনোভাবে যোগাযোগ করে। এই নোডগুলো বিটকয়েন পিয়ার-টু-পিয়ার প্রোটোকল ব্যবহার করে কম্পিউটারের বিতরণ করা নেটওয়ার্কের মধ্যে লেনদেন ও ব্লক সম্পর্কিত তথ্য প্রেরণ করতে সক্ষম। তবে, প্রতিটি কম্পিউটার নোড তার নির্দিষ্ট ফাংশন অনুযায়ী সংজ্ঞায়িত হয়, তাই বিভিন্ন ধরনের বিটকয়েন নোড আছে।

 

ফুল নোড

ফুল নোড হল সেইগুলো যেগুলো প্রকৃতি অর্থেই বিটকয়েনকে সাপোর্ট দেয় ও নিরাপত্তা প্রদান করে এবং এগুলো নেটওয়ার্কের জন্য অপরিহার্য। এই নোডগুলোকে সম্পূর্ণরূপে বৈধতা দানকারী নোড হিসেবেও উল্লেখ করা যেতে পারে কারণ এগুলো সিস্টেমের কনসেনশাস নিয়মের বিপরীতে লেনদেন ও ব্লক যাচাই করার প্রক্রিয়াতে নিযুক্ত থাকে। এছাড়াও, সম্পূর্ণ নোডগুলো ব্লকচেইনে নতুন লেনদেন এবং ব্লক রিলে করতে সক্ষম। 

সাধারণত, কোনো ফুল নোড প্রতিটি ব্লক ও লেনদেনসহ বিটকয়েন ব্লকচেইনের একটি কপি ডাউনলোড করে, তবে এটি কোনো ফুল নোড হিসেবে বিবেচিত হওয়ার শর্ত নয় (এর পরিবর্তে ব্লকচেইনের একটি হ্রাসকৃত কপি ব্যবহার করা যেতে পারে)।

কোনো ফুল বিটকয়েন নোডকে বিভিন্ন সফ্টওয়্যার বাস্তবায়নের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠা করা যেতে পারে, তবে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত এবং জনপ্রিয় হলো বিটকয়েন কোর। বিটকয়েন কোর ফুল নোড চালানোর জন্য সর্বনিম্ন প্রয়োজনীয়তা নিম্নরূপ:

  • উইন্ডোজ, ম্যাক ওএস এক্স, বা লিনাক্সের সাম্প্রতিক সংস্করণ থাকা ডেস্কটপ বা ল্যাপটপ।

  • 200GB ফ্রি ডিস্ক স্পেস।

  • 2GB মেমরি (RAM)।

  • কমপক্ষে 50 kB/s আপলোড গতিসহ উচ্চ-গতির ইন্টারনেট সংযোগ।

  • একটি অনিয়ন্ত্রিত সংযোগ বা উচ্চ আপলোড সীমার সংযোগ। অনলাইন ফুল নোডগুলোর ব্যবহার 200 GB/মাসে আপলোড এবং 20 GB/মাস ডাউনলোডে পৌঁছাতে বা অতিক্রম করতে পারে । আপনার ফুল নোড ব্যবহার শুরু করার সময় আপনাকে ~200GB ডাউনলোডও করতে হবে।

  • আপনার ফুল নোডের দিনে কমপক্ষে 6 ঘন্টা চলতে হবে। নিরবচ্ছিন্নভাবে (24/7) চালালে আরো ভালো।

অনেক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা এবং ব্যবহারকারীরা বিটকয়েন ইকোসিস্টেমকে সাহায্য করার উপায় হিসেবে ফুল বিটকয়েন নোড চালাচ্ছে। 2018 সালের হিসেবে, বিটকয়েন নেটওয়ার্কে প্রায় 9,700টি পাবলিক নোড চলছে। মনে রাখবেন যে এই সংখ্যাটির মধ্যে শুধুমাত্র পাবলিক নোডগুলো রয়েছে যেগুলো লিসেনিং বিটকয়েন নোডগুলোকে নির্দেশ করে যা দৃশ্যমান ও অ্যাক্সেসযোগ্য (লিসেনিং নোড হিসেবেও পরিচিত)। 

পাবলিক নোডগুলো ছাড়াও, আরও অনেক লুকানো নোড রয়েছে যা দৃশ্যমান নয় (নন-লিসেনিং নোড)। এই নোডগুলো সাধারণত টরের মতো লুকানো প্রোটোকলের মাধ্যমে কোনো ফায়ারওয়ালের পিছনে কাজ করে, বা কেবল সংযোগের জন্য লিসেন না করার জন্য কনফিগার করা হয়েছিল।


লিসেনিং নোড (সুপারনোড)

মূলত, কোনো লিসেনিং নোড বা সুপার নোড হল একটি ফুল নোড যা সর্বজনীনভাবে দৃশ্যমান। এটির সাথে সংযোগ স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়া অন্য যেকোনো নোডের সাথে এটি যোগাযোগ করে এবং তথ্য প্রদান করে। এ কারণে, কোনো সুপার নোড হল মূলত একটি পুনঃবন্টন বিন্দু যা ডেটার উৎস এবং যোগাযোগের একটি সেতু উভয়ই হিসেবেই কাজ করতে পারে। 

একটি নির্ভরযোগ্য সুপার নোড সাধারণত 24/7 চলে এবং এর বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠিত সংযোগ থাকে, বিশ্বের একাধিক নোডে ব্লকচেইনের ইতিহাস ও লেনদেনের ডেটা প্রেরণ করে। সেই কারণে, লুকানো কোনো ফুল নোডের তুলনায় একটি সুপার নোডের জন্য অধিক কম্পিউটেশনাল শক্তি ও ভালো ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন হবে।


মাইনারের নোড

বর্তমান প্রতিযোগিতামূলক পরিস্থিতিতে বিটকয়েন মাইনিং করতে সক্ষম হওয়ার জন্য বিশেষ মাইনিং হার্ডওয়্যার ও প্রোগ্রামে বিনিয়োগ করতে হবে। এই মাইনিং প্রোগ্রামগুলো (সফ্টওয়্যার) সরাসরি বিটকয়েন কোরের সাথে সম্পর্কিত নয় এবং বিটকয়েন ব্লকগুলো মাইনিংয়ের চেষ্টা করার জন্য সমান্তরালভাবে এক্সিকিউট করা হয়। একজন মাইনার একা (একক মাইনার) বা দলে (পুল মাইনার) কাজ করতে বেছে নিতে পারে। 

একক মাইনারের ফুল নোড ব্লকচেইনের নিজস্ব কপি ব্যবহার করে, আর পুল মাইনাররা একসাথে কাজ করে, প্রত্যেকে তার নিজস্ব কম্পিউটেশনাল রিসোর্স (হ্যাশপাওয়ার) প্রদান করে। কোনো মাইনিং পুলে, শুধুমাত্র পুলের অ্যাডমিনিস্ট্রেটরের একটি ফুল নোড চালানোর জন্য প্রয়োজন হয় - যেটিকে পুল মাইনারের ফুল নোড হিসেবে উল্লেখ করা যেতে পারে।


লাইটওয়েট বা SPV ক্লায়েন্ট

সিমপ্লিফায়েড পেমেন্ট সিস্টেম (SPV) ক্লায়েন্ট হিসেবেও পরিচিত লাইটওয়েটের ক্লায়েন্টরা বিটকয়েন নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে কিন্তু প্রকৃতপক্ষে ফুল নোড হিসেবে কাজ করে না। তাই, SPV ক্লায়েন্টরা নেটওয়ার্কের নিরাপত্তায় অবদান রাখে না কারণ তারা ব্লকচেইনের কোনো কপি রাখে না এবং লেনদেন যাচাই ও ভ্যালিডেট করার প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে না। 

সংক্ষেপে, SPV হলো এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে কোনো ব্যবহারকারী সম্পূর্ণ ব্লক ডেটা ডাউনলোড না করেই ব্লকে কোনো লেনদেন অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল কিনা তা পরীক্ষা করতে পারে। তাই SPV ক্লায়েন্টরা অন্যান্য ফুল নোড (সুপারনোড) কর্তৃক প্রদত্ত তথ্যের উপর নির্ভর করে। লাইটওয়েট ক্লায়েন্ট যোগাযোগের শেষপ্রান্ত হিসেবে কাজ করে এবং বহু ক্রিপ্টোকারেন্সি ওয়ালেট এগুলো ব্যবহার করে।


ক্লায়েন্ট বনাম মাইনিং নোড

এটি লক্ষ্য করা গুরুত্বপূর্ণ যে কোনো ফুল নোড চালানো আর ফুল মাইনিং নোড চালানো এক কথা নয়। মাইনাররা ব্যয়বহুল মাইনিং হার্ডওয়্যার ও সফ্টওয়্যারে বিনিয়োগ করতে হলেও, যেকেউ একটি সম্পূর্ণ ভ্যালিডেটিং নোড চালাতে পারে। 

কোনো ব্লক মাইন করার চেষ্টার আগে, কোনো মাইনারকে পেন্ডিং লেনদেন সংগ্রহ করতে হবে যা পূর্বে ফুল নোড কর্তৃক বৈধ হিসেবে গৃহীত হয়েছিল। এরপরে, মাইনার একজন ক্যান্ডিডেট ব্লক তৈরি করে (লেনদেনের একটি গ্রুপের মাধ্যমে) এবং সেই ব্লকটি মাইন করার চেষ্টা করেন। কোনো মাইনার যদি তার ক্যান্ডিডেট ব্লকের জন্য কোনো বৈধ সমাধান খুঁজে বের করতে পারেন, তাহলে তিনি এটিকে নেটওয়ার্কে সম্প্রচার করেন যাতে অন্যান্য ফুল নোডগুলো ব্লকের বৈধতা যাচাই করতে পারে। অর্থাৎ, কনসেনশাসের নিয়মাবলী ভ্যালিডেট করা নোডগুলোর ডিস্ট্রিবিউটেড নেটওয়ার্ক কর্তৃক নির্ধারিত ও সুরক্ষিত হয় মাইনারদের দ্বারা নয়।


শেষ কথা

বিটকয়েন নোড বিটকয়েন P2P নেটওয়ার্ক প্রোটোকলের মাধ্যমে একে অপরের সাথে যোগাযোগ করে এবং এটি করার মাধ্যমে তারা সিস্টেমের অখণ্ডতার গ্যারান্টি দেয়। কোনো নোড যা অস্বাভাবিক আচরণ করে বা ভুল তথ্য প্রচার করার চেষ্টা করে তা সৎ নোডগুলো দ্বারা দ্রুত শনাক্ত হয় এবং নেটওয়ার্ক থেকে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়।

ফুল ভ্যালিডেটিং নোড চালানোর জন্য আর্থিক কোনো পুরস্কার প্রদান করা হবে না সত্ত্বেও, এটির পক্ষে সুপারিশ করা হয় কারণ এটি ব্যবহারকারীদের বিশ্বাস, নিরাপত্তা ও গোপনীয়তা প্রদান করে। ফুল নোড নিশ্চিত করে যে নিয়মগুলো অনুসরণ করা হচ্ছে। তারা ব্লকচেইনকে আক্রমণ এবং জালিয়াতি (যেমন দ্বিগুণ খরচ) থেকে রক্ষা করে। উপরন্তু, কোনো ফুল নোডের অন্যদেরকে বিশ্বাস করার প্রয়োজন হয় না, এবং এটি ব্যবহারকারীকে তার অর্থের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে থাকার সুযোগ প্রদান করে।