প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ কী?
প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ কী?
হোম
নিবন্ধ
প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ কী?

প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ কী?

প্রকাশিত হয়েছে Mar 14, 2019আপডেট হয়েছে Dec 28, 2022
7m

প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ (TA), যাকে প্রায়ই চার্টিং বলা হয়, এটি হল এক ধরনের বিশ্লেষণ যার লক্ষ্য পূর্ববর্তী প্রাইস অ্যাকশন ও ভলিউম ডেটার উপর ভিত্তি করে ভবিষ্যত মার্কেটের আচরণের পূর্বাভাস দেওয়া। TA পদ্ধতি ব্যাপকভাবে প্রথাগত আর্থিক মার্কেটে স্টক ও অন্যান্য অ্যাসেটে প্রয়োগ করা হয়, তবে এটি ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেটে ডিজিটাল মুদ্রার ট্রেডের একটি অবিচ্ছেদ্য উপাদান।

কোনো অ্যাসেটের মূল্যের একাধিক কারণ বিবেচনা করা মৌলিক বিশ্লেষণ (FA) এর বিপরীতে TA মূলত অতীত প্রাইস অ্যাকশনের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। অতএব, এটি কোনো অ্যাসেটের মূল্যের ওঠানামা এবং ভলিউম ডেটা পরীক্ষা করার জন্য একটি হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হয় এবং অনেক ট্রেডার প্রবণতা ও অনুকূল ট্রেডিং সুযোগগুলো শনাক্ত করার প্রয়াসে এটি ব্যবহার করে।

17 শতকের আমস্টারডাম এবং 18 শতকের জাপানে প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণের আদিম রূপ আবির্ভূত হলেও, আধুনিক TA প্রায়ই চার্লস ডাউ এর কাজ থেকে পাওয়া যায়। একজন ফাইনান্সিয়াল সাংবাদিক ও দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রতিষ্ঠাতা ডাউ প্রথম দিকের ব্যক্তিদের মধ্যে একজন ছিলেন যিনি পর্যবেক্ষণ করেন যে স্বতন্ত্র অ্যাসেট ও মার্কেটগুলো প্রায়শই এমন প্রবণতায় চলে যায় যেগুলোকে ভাগ করে পরীক্ষা করা যেতে পারে। তার কাজ পরবর্তীতে ডাউ তত্ত্বের জন্ম দেয় যা প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণের আরো উন্নয়নকে এগিয়ে নেয়।

প্রাথমিক পর্যায়ে, প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণের প্রাথমিক পদ্ধতি ছিল হাতে তৈরি শিট ও ম্যানুয়াল গণনার উপর ভিত্তি করে মূল্যায়ন করা, কিন্তু প্রযুক্তি ও আধুনিক কম্পিউটিং এর অগ্রগতির সাথে সাথে TA বিস্তৃত হয়ে উঠেছে এবং এখন অনেক বিনিয়োগকারী ও ট্রেডারদের জন্য হয়ে উঠেছে একটি গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার।


প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ কিভাবে কাজ করে?

যেমনটি উল্লেখ করা হয়েছে, TA মূলত কোনো অ্যাসেটের বর্তমান ও পূর্ববর্তী মূল্যের অধ্যয়ন। প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণের প্রধান অন্তর্নিহিত অনুমান হল যে কোনো অ্যাসেটের মূল্যের ওঠানামা দ্বৈব চয়ন ভিত্তিক নয় এবং সাধারণত সময়ের সাথে সাথে শনাক্তযোগ্য প্রবণতায় বিকশিত হয়।

মূলত TA হল সরবরাহ ও চাহিদার মার্কেট ফোর্সের বিশ্লেষণ, যা সামগ্রিক মার্কেটের পরিস্থিতির প্রতিনিধিত্ব করে। অন্যভাবে বললে, কোনো অ্যাসেটের মূল্য বিপরীত বিক্রয় ও ক্রয় শক্তির প্রতিফলন এবং এই শক্তিগুলো ট্রেডার ও বিনিয়োগকারীদের (মূলত ভয় এবং লোভ) আবেগের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত। 

লক্ষণীয় যে, উচ্চ আয়তন এবং তারল্য থাকা স্বাভাবিক অবস্থায় কাজ করে এমন মার্কেটগুলোতে TA-কে আরো নির্ভরযোগ্য এবং কার্যকর বলে মনে করা হয়। উচ্চ-আয়তনের মার্কেটগুলোতে মূল্যের হেরফের ও অস্বাভাবিক বাহ্যিক প্রভাবগুলো কম কার্যকর হতে পারে যা ভুল সংকেত তৈরি করে TA-কে অকেজো করে দিতে পারে।

মূল্য পরীক্ষা এবং শেষ পর্যন্ত অনুকূল সুযোগ খুঁজে বের করার জন্য ট্রেডাররা সূচক হিসেবে পরিচিত বিভিন্ন চার্টিং টুল ব্যবহার করে। প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণের সূচকগুলো ট্রেডারদের বিদ্যমান প্রবণতা শনাক্ত করতে এবং ভবিষ্যতে উদ্ভূত হতে পারে এমন প্রবণতাগুলো সম্পর্কে অন্তর্দৃষ্টিপূর্ণ তথ্য প্রদান করতে সহায়তা করতে পারে। TA সূচকগুলো যেহেতু ভুলও হতে পারে তাই কোনো কোনো ট্রেডার ঝুঁকি কমানোর উপায় হিসেবে একাধিক সূচক ব্যবহার করে।


প্রচলিত TA সূচকসমূহ

সাধারণত, TA ব্যবহারকারী ট্রেডাররা চার্ট ও অতীত প্রাইস অ্যাকশনের উপর ভিত্তি করে মার্কেটের প্রবণতা নির্ণয় করার জন্য বিভিন্ন সূচক ও মেট্রিক্স ব্যবহার করে। অসংখ্য প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ সূচকের মধ্যে, সিম্পল মুভিং অ্যাভারেজ (SMA) সবচেয়ে ব্যবহৃত ও সুপরিচিত উদাহরণগুলোর মধ্যে একটি। নাম অনুসারে, SMA কোনো নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কোনো অ্যাসেটের ক্লোজিং মূল্যের উপর ভিত্তি করে গণনা করা হয়। এক্সপোনেনশিয়াল মুভিং এভারেজ (EMA) হল SMA-এর একটি সংশোধিত সংস্করণ যা সাম্প্রতিক ক্লোজিং মূল্যগুলোকে পুরানোগুলোর তুলনায় বেশি গুরুত্ব প্রদান করে।

প্রচলিতভাবে ব্যবহৃত আরেকটি সূচক হল রিলেটিভ স্ট্রেংথ ইনডেক্স (RSI), যা অসিলেটর নামে পরিচিত একটি সূচকের শ্রেণীর অংশ। সময়ের সাথে সাথে মূল্যের পরিবর্তনগুলোকে সহজভাবে ট্র্যাক করা মুভিং এভারেজের বিপরীতে, অসিলেটর প্রাইসিং ডেটাতে গাণিতিক সূত্র প্রয়োগ করে এবং তারপর রিডিং তৈরি করে যা পূর্বনির্ধারিত সীমার মধ্যে পড়ে। RSI-এর ক্ষেত্রে, এই পরিসীমা 0 থেকে 100 পর্যন্ত যায়।

বলিঞ্জার ব্যান্ডস (BB) সূচক হল আরেকটি অসিলেটর-টাইপ যা ট্রেডারদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়। BB নির্দেশক দুটি ল্যাটারাল ব্যান্ড নিয়ে গঠিত যা কোনো মুভিং অ্যাভারেজ রেখার চারপাশে প্রবাহিত হয়। মার্কেটের অস্থিরতা পরিমাপ করার পাশাপাশি এটি সম্ভাব্য ওভারবট ও ওভারসোল্ড মার্কেট পরিস্থিতি চিহ্নিত করতেও ব্যবহৃত হয়।

মৌলিক ও প্রচলিত TA উপকরণ ছাড়াও, কিছু কিছু সূচক রয়েছে যা ডেটা তৈরি করতে অন্যান্য সূচকের উপর নির্ভর করে। উদাহরণস্বরূপ, নিয়মিত RSI-তে একটি গাণিতিক সূত্র প্রয়োগ করে স্টোকাস্টিক RSI গণনা করা হয়। আরেকটি জনপ্রিয় উদাহরণ হল মুভিং অ্যাভারেজ কনভার্জেন্স ডাইভারজেন্স (MACD) সূচক। মূল লাইন (MACD লাইন) তৈরি করতে দুটি EMA বিয়োগ করে MACD তৈরি করা হয়। প্রথম লাইনটি তারপর অন্য একটি EMA তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়, যার ফলে একটি দ্বিতীয় লাইন তৈরি হয় (যা সিগন্যাল লাইন নামে পরিচিত)। এছাড়াও রয়েছে MACD হিস্টোগ্রাম যা সেই দুটি লাইনের মধ্যে পার্থক্যের উপর ভিত্তি করে গণনা করা হয়।


ট্রেডিং সংকেত

সূচকগুলো সাধারণ প্রবণতা শনাক্ত করার জন্য উপযোগী হলেও, এগুলো সম্ভাব্য প্রবেশ ও প্রস্থান পয়েন্টগুলোর অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করতেও ব্যবহার করা যেতে পারে (ক্রয় বা বিক্রয়ের সংকেত)। কোনো সূচক চার্টে নির্দিষ্ট ঘটনা ঘটলে এই সংকেতগুলো তৈরি হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, RSI 70 বা তার বেশি রিডিং তৈরি করলে এটি এই ইঙ্গিত দিতে পারে যে মার্কেট ওভারবট পরিস্থিতিতে আছে। RSI 30 বা তার কমে নেমে আসলে একই যুক্তি প্রযোজ্য হয়, যা সাধারণত মার্কেটের ওভারসোল্ড অবস্থার একটি সংকেত হিসেবে বিবেচিত হয়।

যেমনটি পূর্বে আলোচনা করা হয়েছে, প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ দ্বারা প্রদত্ত ট্রেডিং সংকেতগুলো সর্বদা সঠিক নয় এবং TA সূচকগুলোর দ্বারা উত্পাদিত নয়েজ (ভুল সংকেত) রয়েছে। এটি বিশেষত ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেটের সাথে সংশ্লিষ্ট যে মার্কেট প্রথাগত মার্কেটের তুলনায় অনেক ছোট এবং সে কারণে আরো বেশি অস্থির।


সমালোচনা

সব ধরণের মার্কেটে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হলেও অনেক বিশেষজ্ঞদের TA-কে একটি বিতর্কিত ও অবিশ্বস্ত পদ্ধতি হিসেবে মনে হয় এবং প্রায়শই এটিকে "আত্ম-সম্পাদনমূলক ভবিষ্যদ্বাণী" হিসেবে উল্লেখ করা হয়। এই ধরনের শব্দ এমন ঘটনাগুলোকে বর্ণনা করার জন্য ব্যবহৃত হয় যা শুধুমাত্র কোনো বৃহৎ সংখ্যক মানুষ অনুমান করে যে তারা ঘটবে বলে ঘটে।

সমালোচকরা যুক্তি দেন যে, আর্থিক মার্কেটের প্রেক্ষাপটে, বিপুল সংখ্যক ট্রেডার ও বিনিয়োগকারী যদি একই ধরনের সূচকগুলোর উপর নির্ভর করে, যেমন সাপোর্ট বা রেজিস্ট্যান্স লাইন, এই সূচকগুলোর কাজ করার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। 

অন্যদিকে, অনেক TA সমর্থক যুক্তি দেন যে প্রতিটি চার্টের চার্ট বিশ্লেষণ করার ও উপলভ্য অনেক সূচক ব্যবহার করার নির্দিষ্ট উপায় রয়েছে। এতে বোঝা যায় যে বিপুল সংখ্যক ট্রেডারের পক্ষে একটি নির্দিষ্ট কৌশল ব্যবহার করা কার্যত অসম্ভব।


মৌলিক বিশ্লেষণ বনাম প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ

প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণের একটি কেন্দ্রীয় ভিত্তি হল এই যে মার্কেট মূল্য ইতোমধ্যেই কোনো নির্দিষ্ট অ্যাসেটের সাথে সম্পর্কিত সকল মৌলিক কারণগুলোকে প্রতিফলিত করে। কিন্তু মূলত অতীত মূল্য ডেটা এবং ভলিউম (মার্কেট চার্ট) এর উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করা TA পদ্ধতির বিপরীতে, মৌলিক বিশ্লেষণ (FA) একটি বিস্তৃত তদন্ত কৌশল গ্রহণ করে যা গুণগত কারণগুলোর উপর বেশি জোর দেয়।

মৌলিক বিশ্লেষণ বিবেচনা করে যেকোনো অ্যাসেটের ভবিষ্যৎ পারফর্ম্যান্স শুধুমাত্র অতীত তথ্যের উপরেই নির্ভরশীল নয়। মূলত, FA হল এমন একটি পদ্ধতি যা কোনো কোম্পানি, ব্যবসা বা অ্যাসেটের বিস্তৃত ম্যাক্রো ও মাইক্রো অর্থনৈতিক অবস্থার উপর ভিত্তি করে অনুমান করার জন্য ব্যবহৃত হয়, যেমন কোম্পানির ব্যবস্থাপনা ও খ্যাতি, মার্কেট প্রতিযোগিতা, বৃদ্ধির হার ও শিল্পের পরিস্থিতি।

অতএব, আমরা বিবেচনা করতে পারি যে প্রধানত প্রাইস অ্যাকশন ও মার্কেটের আচরণের জন্য ভবিষ্যদ্বাণী হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হওয়া TA-এর বিপরীতে, FA হল একটি অ্যাসেটের প্রেক্ষাপট এবং সম্ভাব্যতা অনুসারে ওভারভ্যালু করা হয়েছে কিনা তা নির্ধারণ করার একটি পদ্ধতি। প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ অধিকাংশ ক্ষেত্রে স্বল্পমেয়াদী ট্রেডারদের ব্যবহৃত হলেও, মৌলিক বিশ্লেষণ ফান্ড ম্যানেজার ও দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগকারীরা পছন্দ করে।

প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণের একটি উল্লেখযোগ্য সুবিধা হল এটি পরিমাণগত তথ্যের উপর নির্ভর করে। সে কারণে, এটি মূল্যের ইতিহাসের একটি নৈর্ব্যক্তিক তদন্তের জন্য একটি কাঠামো প্রদান করে, যা মৌলিক বিশ্লেষণের গুণগত পদ্ধতির মাধ্যমে আসা অনুমানমুলক সিদ্ধান্তকে বাদ দেয়।

তবে, অভিজ্ঞতামূলক ডেটা নিয়ে কাজ করা সত্ত্বেও, TA তবুও ব্যক্তিগত পক্ষপাতিত্ব ও ব্যক্তি নির্ভরতা দ্বারা প্রভাবিত। উদাহরণস্বরূপ, কোনো ট্রেডার যিনি কোনো অ্যাসেট সম্পর্কে কোনো নির্দিষ্ট সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর জন্য দৃঢ়ভাবে অটল থাকেন তাহলে তিনি সম্ভবত তার TA টুলগুলোকে দিয়ে তার পক্ষপাতকে সমর্থন করাতে ও তার পূর্বকল্পিত ধারণাগুলোকে প্রতিফলিত করাতে সক্ষম হবেন এবং অনেক ক্ষেত্রে, এটি তাদের সচেতনতা ছাড়াই ঘটে। অধিকন্তু, মার্কেট কোনো স্পষ্ট প্যাটার্ন বা প্রবণতা উপস্থাপন না করলে প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ সেই সময়কালেও ব্যর্থ হতে পারে।


শেষ কথা

সমালোচনা ও কোন পদ্ধতিটি ভালো তা নিয়ে দীর্ঘস্থায়ী বিতর্কের বাইরে, TA ও FA উভয় পদ্ধতির সংমিশ্রণকে অনেকেই অধিক যুক্তিযুক্ত পছন্দ হিসেবে বিবেচনা করেন। FA সাধারণত দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ কৌশলগুলোর সাথে সংশ্লিষ্ট হলেও, TA স্বল্পমেয়াদী মার্কেটের পরিস্থিতির অন্তর্দৃষ্টিপূর্ণ তথ্য প্রদান করতে পারে, যা ট্রেডার ও বিনিয়োগকারী উভয়ের জন্যই উপযোগী হতে পারে (উদাহরণস্বরূপ, অনুকূল প্রবেশ ও প্রস্থান পয়েন্ট নির্ধারণের চেষ্টা করার সময়)।