BTC কর্তৃত্ব কী?
সুচিপত্র
ভূমিকা 
BTC কর্তৃত্ব ও মার্কেট মূলধন
BTC কর্তৃত্বকে প্রভাবিত করার নিয়ামকগুলো
ট্রেডিং-এ BTC কর্তৃত্বের ব্যবহার
শেষ কথা
BTC কর্তৃত্ব কী?
হোম
নিবন্ধ
BTC কর্তৃত্ব কী?

BTC কর্তৃত্ব কী?

প্রকাশিত হয়েছে Jun 23, 2022আপডেট হয়েছে Sep 29, 2022
6m

TL;DR  

বিটকয়েনের মার্কেট মূলধনের সাথে বাকি ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেটের অনুপাত হিসেবে বিটকয়েনের কর্তৃত্ব বা BTC কর্তৃত্ব পরিমাপ করা হয়। কোনো কোনো ক্রিপ্টো বিনিয়োগকারী ও ট্রেডার তাদের ট্রেডিং কৌশল ও পোর্টফোলিও কাঠামো সমন্বয় করার গাইড হিসেবে বিটকয়েনের কর্তৃত্ব ব্যবহার করে। 


ভূমিকা 

এখন হাজার হাজার অল্টকয়েন থাকলেও, মার্কেট মূলধনের হিসেবে সর্বপ্রথম ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন সবচেয়ে বড় ডিজিটাল অ্যাসেট হিসেবে রয়ে গেছে। সামগ্রিক ক্রিপ্টো মার্কেটের মূল্যে বিটকয়েনের শেয়ারের গতিশীলতা পর্যবেক্ষণ করে, ট্রেডাররা মার্কেটের অবস্থার কিছু পুনরাবৃত্ত নিদর্শন খুঁজে পেয়েছেন। কেউ কেউ তাদের ট্রেডিং চর্চার গাইড হিসেবে BTC কর্তৃত্ব ব্যবহার করলেন। বিশেষত, BTC কর্তৃত্ব বর্তমান সাধারণ মার্কেট প্রবণতা বিষয়ে অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করে বলে মনে করা হয়। 


BTC কর্তৃত্ব ও মার্কেট মূলধন

সহজ ভাষায়, মার্কেট মূলধন বলতে সার্কুলেশনে থাকা কোনো নির্দিষ্ট অ্যাসেটের মোট মূল্যকে বোঝায়। বিটকয়েনের ক্ষেত্রে, বর্তমান মূল্য ও এ পর্যন্ত মাইন করা BTC-এর সংখ্যাকে গুণ করে মার্কেট ক্যাপ গণনা করা হয়।

নীচের সূত্রটি দিয়ে আপনি বিটকয়েনের কর্তৃত্ব গণনা করতে পারেন:

বিটকয়েনের কর্তৃত্ব = বিটকয়েনের মার্কেট ক্যাপ/ ক্রিপ্টোকারেন্সির মোট মার্কেট ক্যাপ


BTC কর্তৃত্বকে প্রভাবিত করার নিয়ামকগুলো

পরিবর্তনশীল প্রবণতা

অল্টকয়েন আকস্মিক বহিঃপ্রকাশের পূর্বে, বিটকয়েনের কর্তৃত্ব 90% এর উপরে থাকা মোটেই অপ্রচলিত ছিল না। সম্মিলিতভাবে অল্টকয়েন অধিক ব্যবহারকারী ও বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ অর্জন করায় বিটকয়েনের উপরে থাকা প্রায় অখন্ড আকর্ষণ মূল্যের ব্যাপক পরিবর্তন ও নতুন এক্সাইটিং ব্যবহার ক্ষেত্রের প্রজেক্ট থাকা অন্যান্য অ্যাসেটের কাছে কিছুটা হারায়।

মূল্যের ট্রান্সফার কিভাবে কাজ করে তা পরিবর্তন করার জন্য বিটকয়েন তৈরি হলেও, আরো অনেক সম্ভাবনা নিয়ে ক্রিপ্টো প্রজেক্টগুলো এখন বিবর্তিত হয়েছে। বিটকয়েনের বিপরীতে, অনেক অল্টকয়েন অর্থ ট্রান্সফার ছাড়াও গেমিং, শিল্প ও ডিসেন্ট্রালাইজড আর্থিক পরিষেবাসহ বিভিন্ন খাতে জড়িত। বর্তমান প্রবণতার উপর নির্ভর করে, কোনো নির্দিষ্ট ধরণের ক্রিপ্টো প্রজেক্ট নিয়ে আরো আগ্রহ ও ট্রেড হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, NFT-এর আকস্মিক বহিঃপ্রকাশের ফলে BTC-এর কর্তৃত্ব NFT-সংশ্লিষ্ট টোকেনগুলোর কাছে কমে গিয়ে থাকতে পারে। 

সময়ের সাথে সাথে, বিটকয়েন নিজেকে অধিক "স্থিতিশীল" ক্রিপ্টো অ্যাসেট হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে। কিছু নতুন অল্টকয়েনের অফার করা নাটকীয় মূল্যের পরিবর্তন ও সংশ্লিষ্ট লাভের সুযোগের প্রতি ট্রেডারদের আগ্রহ বিটকয়েনের কর্তৃত্বকেও প্রভাবিত করতে পারে, যা ফান্ডকে ঝুঁকিপূর্ণ অ্যাসেটের দিকে প্রবাহিত করছে। এই ক্ষেত্রে, এই অল্টকয়েন যে সেক্টরগুলোকে প্রতিনিধিত্ব করে তা সম্ভাব্য লাভের কাছে গুরুত্বপূর্ণ নাও হতে পারে।

ঊর্ধ্বমুখী বা নিম্নমুখী বাজার

বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে, স্ট্যাবলকয়েনের জনপ্রিয়তায় একটি ব্যাপক উত্থান ঘটেছে, এটি এমন একটি প্রবণতা যা BTC কর্তৃত্বের উপর অব্যাহত চাপ সৃষ্টি করেছে। আরো নির্দিষ্টভাবে বললে, কোনো নিম্নমুখী মার্কেটে বা অস্থিরতার সময়ে, স্ট্যাবলকয়েনগুলো প্রায়শই ক্রিপ্টো বিনিয়োগকারীদের ফান্ডকে পতনশীল মূল্যের প্রবণতার মধ্যে রক্ষা করতে ব্যবহৃত হয়। কোনো স্ট্যাবলকয়েন হল একটি অল্টকয়েন যা অধিক স্থিতিশীল মূল্য থাকা কোনো অ্যাসেটের যেমন কোনো ফিয়াট মুদ্রা বা পণ্যের সমান মূল্য বজায় রাখার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। ক্রিপ্টো বিনিয়োগকারী ও ট্রেডাররা প্রায়ই তাদের ক্রিপ্টোকে ফিয়াটে রূপান্তর না করে মুনাফা লক করার জন্য স্ট্যাবলকয়েন ব্যবহার করেন। যখন ফান্ড BTC বাজার থেকে বেরিয়ে গিয়ে স্ট্যাবলকয়েনে যায়, তখন BTC কর্তৃত্ব হ্রাস পেতে পারে।

ঊর্ধ্বমুখী বাজারে বিপরীত ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা থাকে। মার্কেট ঊর্ধ্বমুখী হলে ট্রেডারদেরকে স্ট্যাবলকয়েন থেকে ভ্যালু আরো অস্থিতিশীল অ্যাসেটে (যেমন বিটকয়েন) স্থানান্তর করতে উৎসাহিত করা যেতে পারে যা আরো অধিক ব্যবসার সুযোগ প্রদান করে। তবে, সাহসী ট্রেডাররা আরো ঝুঁকিপূর্ণ বিকল্পগুলো বেছে নিতে পারে ও BTC-এর থেকেও বেশি অস্থির অল্টকয়েনে তারল্য দিতে পারে, তাই বিটকয়েনের কর্তৃত্বের উপর অনুকূল মার্কেট পরিস্থিতির সামগ্রিক প্রভাবগুলো অত্যন্ত পরিস্থিতি-নির্ভর।

স্ট্যাবলকয়েন দিয়ে অন-র‍্যাম্প করা

ফিয়াট ব্যবহারের তুলনায় স্ট্যাবলকয়েন বিভিন্ন ধরনের ক্রিপ্টোকারেন্সি অ্যাক্সেস করার সুবিধাজনক উপায় প্রদান করে। এর কারণ হল গেটওয়ে এক্সচেঞ্জ নামে পরিচিত ফিয়াট-টু-ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ থাকলেও, এগুলো সীমাবদ্ধ হতে পারে ও শুধুমাত্র বেশি জনপ্রিয় ক্রিপ্টোকারেন্সি ও স্ট্যাবলকয়েন অফার করতে পারে। তবে ক্রিপ্টো-টু-ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ, প্রায়শই ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোর একটি আরো ব্যাপক সমাহার প্রদান করে যা নির্বাচিত স্ট্যাবলকয়েনগুলোর সাথে ট্রেডযোগ্য। তাই, যারা নির্দিষ্ট ক্রিপ্টোকারেন্সি ট্রেড করতে চায় তারা স্ট্যাবলকয়েনের মাধ্যমে মার্কেটে প্রবেশ করতে পারেন। স্বাভাবিকভাবেই, বিটকয়েনের পরিবর্তে স্ট্যাবলকয়েনের মাধ্যমে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ নতুন ফান্ড যদি মার্কেটে প্রবেশ করে, তাহলে ক্রিপ্টো মার্কেটের মোট মূল্য বৃদ্ধি পায়, যার ফলে BTC কর্তৃত্ব হ্রাস পায়।

নতুন মুদ্রার আবির্ভাব

কখনও কখনও, মার্কেটে প্রবেশ করা নতুন কয়েনগুলো দ্রুত জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পারে, যার ফলে BTC প্রাধান্য হ্রাস পায়। মনে রাখবেন যে বিটকয়েন মার্কেটের অন্যান্য সকল ক্রিপ্টোকারেন্সির সাথে "লড়াই করছে", তাই একবারে বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় অল্টকয়েনের আবির্ভাব এটিকে প্রভাবিত করতে পারে। তবে, হঠাৎ করে আসা এই উত্তেজনা চলে যাওয়ার পরে এই অল্টকয়েনগুলো জনপ্রিয়তা হারাতে পারে এমন সম্ভাবনা থাকে। যদি তা হয় ও ফান্ডগুলো এই অল্টকয়েনগুলো থেকে BTC-তে বা সম্পূর্ণরূপে ক্রিপ্টো মার্কেটের বাইরে সরানো হয়, তবে BTC-এর কর্তৃত্ব আবার বাড়তে পারে।


ট্রেডিং-এ BTC কর্তৃত্বের ব্যবহার

ওয়াইকঅফ (Wyckoff) পদ্ধতি

1930-এর দশকের গোড়ার দিকে তৈরি করা ওয়াইকঅফ পদ্ধতি হল প্রথাগত আর্থিক মার্কেটে ট্রেডার ও বিনিয়োগকারীদের জন্য ডিজাইন করা নীতিমালার একটি সেট। এই নীতিগুলোর মধ্যে কোনো কোনোটি, যেমন কার্য-কারণ আইন, BTC কর্তৃত্ব ব্যবহার করে লাভের সুযোগ গ্রহণের সময় প্রয়োগ করা যেতে পারে। 

অনেক ট্রেডার ও বিনিয়োগকারী মার্কেটের প্রবণতা শনাক্ত করতে, ট্রেন্ড রিভার্সালের সম্ভাবনা অনুমান করতে ও টাইম ট্রেড করতে ওয়াইকঅফ পদ্ধতি ব্যবহার করেন। ওয়াইকঅফ অনুযায়ী, ট্রেডিং আচরণ চারটি পর্যায়ে সংগঠিত হয়: সঞ্চয়, মার্কআপ, বিতরণ ও মার্কডাউন। ফান্ড কোথায় ও কখন প্রবাহিত হয় তা চিহ্নিত করা কোনো কোনো ট্রেডারদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে যারা সচেতন ট্রেডিং সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে মার্কেটের সময় নির্ধারণের উপর নির্ভর করে। 

বৈচিত্র্যময় ট্রেডার ও বিনিয়োগকারীরা প্রায়শই শক্তিশালী প্রবণতা বাছাই করার জন্য এই পদ্ধতি ব্যবহার করে। নীচে বেশ কয়েকটি পরিস্থিতি রয়েছে যেখানে ওয়াইকঅফ পদ্ধতিটি কার্যকর। 

BTC কর্তৃত্ব ব্যবহার করে অল্টকয়েন সিজন নির্ণয় করা

মার্কেটে অল্টকয়েনের ক্রমবর্ধমান সংখ্যার পরিস্থিতিতে এটি আশ্চর্যজনক নয় যে বিটকয়েনের কর্তৃত্ব হ্রাস পাচ্ছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে, কিছু অল্টকয়েন অধিক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে, যার ফলে সকল অল্টকয়েনের মোট মার্কেট ক্যাপ সংক্ষেপে বিটকয়েনকে ছাড়িয়ে গেছে। অল্টকয়েন যখন স্থিতিশীলভাবে বিটকয়েনকে ছাড়িয়ে যায় সেই সময়কে "অল্টকয়েন সিজন" বা " অল্ট সিজন" বলে। ওয়াইকঅফ পদ্ধতির নীতিমালা অনুযায়ী, বিটকয়েন থেকে অ্যাল্টকয়েনে ফান্ডের এই ধরনের চলাচল চক্রাকারে হয়।

অল্টকয়েন যেহেতু একটি অল্টকয়েন সিজনে ভাল পারফরম্যান্স করে, তাই মার্কেট চক্রের এই পর্যায়ে বিটকয়েনের কর্তৃত্ব দুর্বল হতে পারে। অতএব, যারা বিটকয়েন ও অল্টকয়েন দুটোই ট্রেড করেন তারা তাদের পোর্টফোলিও সেই অনুযায়ী সামঞ্জস্য করতে বিটকয়েনের কর্তৃত্ব নিরীক্ষণ করতে পারেন।

বর্তমান বিটকয়েন মূল্যের সাথে BTC কর্তৃত্বের ব্যবহার

কেউ কেউ বিটকয়েনের মূল্যের সাথে সাথে বিটকয়েনের কর্তৃত্বকেও তাদের ট্রেডিং সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করার জন্য পর্যবেক্ষণ করে। যদিও এগুলো নির্দিষ্ট কোনো আইন নয়, তবে এখানে কিছু সম্ভাব্য ফলাফল রয়েছে যেগুলো BTC মূল্য ও কর্তৃত্বের বিভিন্ন সংমিশ্রণের নির্দেশক হতে পারে।

BTC-এর মূল্য ও কর্তৃত্ব বাড়তে থাকলে সেটি বিটকয়েনের ঊর্ধ্বমুখী বাজারের ইঙ্গিত হতে পারে। 

BTC-এর মূল্য বাড়ছে কিন্তু BTC কর্তৃত্ব কমছে, তখন এটি একটি সম্ভাব্য অল্টকয়েন ঊর্ধ্বমুখী বাজারের ইঙ্গিত হতে পারে। 

BTC-এর মূল্য কমছে কিন্তু BTC কর্তৃত্ব বাড়ছে, তখন এটি একটি সম্ভাব্য অল্টকয়েন নিম্নমুখী বাজারের ইঙ্গিত হতে পারে।

BTC-এর মূল্য ও কর্তৃত্ব হ্রাস পাচ্ছে, তখন এটি সমগ্র ক্রিপ্টো মার্কেটের জন্য একটি সম্ভাব্য নিম্নমুখী প্রবণতার ইঙ্গিত হতে পারে।

যদিও এই দুটি নিয়ামক নিশ্চিতভাবে কোনো ঊর্ধ্বমুখী বা নিম্নমুখী বাজারকে বোঝায় না, তবে ঐতিহাসিক পর্যবেক্ষণ এগুলোর মধ্যে একটি পারস্পরিক সম্পর্ক রয়েছে বলে নির্দেশ করে। 


শেষ কথা

BTC কর্তৃত্ব হল মার্কেটের চক্রগুলো কিভাবে পরিবর্তিত হচ্ছে তার উপর আলোকপাত করতে সাহায্য করার একটি হাতিয়ার। কোনো কোনো ট্রেডার তাদের ট্রেডিং কৌশল সামঞ্জস্য করতে এটি ব্যবহার করে, অন্যরা তাদের বৈচিত্রপূর্ণ পোর্টফোলিও ম্যানেজ করতে এটি ব্যবহার করে। মনে রাখবেন যে BTC কর্তৃত্ব বিটকয়েন বা অন্য কোনো ক্রিপ্টোর কার্যকারিতার নিশ্চয়তা দেয় না তবে ট্রেডারদেরকে তাদের ট্রেডিং পদ্ধতির পরিকল্পনা করতে সহায়তা করার জন্য একটি গাইড হিসেবে কাজ করে।