Web2 বনাম Web3: কোনটি ভালো?
সুচিপত্র
ভূমিকা
ওয়েবের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস
Web3 কী?
Web3-এর সম্ভাব্য সুবিধাদি
শেষ কথা
Web2 বনাম Web3: কোনটি ভালো?
হোম
নিবন্ধ
Web2 বনাম Web3: কোনটি ভালো?

Web2 বনাম Web3: কোনটি ভালো?

প্রকাশিত হয়েছে Sep 20, 2022আপডেট হয়েছে Dec 23, 2022
6m

TL;DR

যদিও লক্ষ লক্ষ লোক ইন্টারনেটের বর্তমান সংস্করণ, Web2 ব্যবহার করে থাকেন, তারপরও এটি ত্রুটিমুক্ত নয়। ডেটার মালিকানা, সেন্সরশিপ এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত সমস্যাগুলো ইন্টারনেটকে জর্জরিত করে চলেছে, ফলে Web3 নামে নতুন ও উন্নত একটি সংস্করণের ধারণা বিকশিত হচ্ছে। ভবিষ্যতের এই ইন্টারনেটের ঝোঁক হলো ব্লকচেইন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (AI), এবং অগমেন্টেড রিয়েলিটি (AR) এর মতো প্রযুক্তিগুলোকে অন্তর্ভুক্ত করা। এটি প্রধানত, একটি আদর্শ Web3 ডেটার মালিকানা এবং গোপনীয়তার মতো সুবিধাগুলো দিতে পারবে। Web3-কে শুধুই Web2-এর একটি উন্নত সংস্করণ বলে মনে করা হলেও এটি আসলে কী, এবং এটি কি আরো ভালো?

ভূমিকা

ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব, যা সাধারণত ইন্টারনেট বা ওয়েব নামেও পরিচিত, সেটি বিশ্বে প্রথমবারের মতো Web1 হিসাবে চালু হওয়ার পর থেকে ব্যাপকভাবে পরিবর্তিত হয়েছে। প্রযুক্তির উন্নতি এবং ব্যবহারকারীর চাহিদা বিকশিত হওয়ার সাথে সাথে ওয়েবও সেই অনুযায়ী পরিবর্তিত হবে- এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। 

Web1 কন্টেন্ট ব্যবহার এবং সরল ধরনের পারস্পারিক ক্রিয়াকলাপের সুবিধা দিত। Web2 বিকশিত হয়েছে আংশিকভাবে স্মার্টফোন এবং মোবাইল ইন্টারনেট অ্যাক্সেসের ক্ষেত্রে বিপুল চাহিদা তৈরি হওয়ার কারণে, যা ব্যবহারকারীদেরকে তাদের নিজস্ব কন্টেন্ট ব্যবহার করা এবং তৈরি করায় সক্ষম করেছে। এখন, Web3 নামে পরিচিত ভবিষ্যতের এই ওয়েব একটি নতুন ধারণা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। ইন্টারনেটের এই সর্বশেষ পুনরাবির্ভাব ব্যবহারকারীদেরকে শুধু কন্টেন্ট এবং ডেটা ব্যবহার আর তৈরি করার সুযোগই দেবে বরং তারাই এর মালিক হবেন বলে মনে করা হচ্ছে। 

ওয়েবের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

বছরের পর বছর ধরে ওয়েবে অসংখ্য পরিবর্তন ঘটে চললেও, এর দুটি প্রধান পর্যায়কে Web1 এবং Web2 হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা যেতে পারে।

Web 1

Web 1, Web 1.0 নামেও পরিচিত, এটিই হলো প্রকৃত ইন্টারনেট। এটি তৈরি করা হয়েছিল স্ট্যাটিক HTML-এর পৃষ্ঠাগুলোর সমন্বয়ে – আর এটি ছিল তখনকার ওয়েবের ফর্ম্যাটিং ভাষা – যা অনলাইনে তথ্য প্রদর্শন করে। Web1 একটি সম্পূর্ণ বিকেন্দ্রীভূত অবকাঠামোতে চলত – যে কেউ সার্ভার হোস্ট করতে, অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করতে এবং পর্যবেক্ষণকারীর সেন্সর ছাড়াই ইন্টারনেটে তথ্য প্রকাশ করতে পারতেন। Web1-এর ব্যবহারকারীরা ওয়েব ব্রাউজারের মাধ্যমে নেটে তথ্য অনুসন্ধান করতে পারতেন। 

Web1-এর অসুবিধাসমূহ

দুর্ভাগ্যবশত, লোকজনের পক্ষে তথ্য পরিবর্তন করার কোনো উপায় ছিল না এবং অন্যদের সাথে পারস্পারিক ক্রিয়ার সুযোগ খুব কম ছিল। ব্যবহারকারীরা শুধুমাত্র সহজ চ্যাট মেসেঞ্জার এবং ফোরামের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারতেন। যেমন, Web1-এর সাথে ব্যবহারকারীরা মূলত পর্যবেক্ষক হিসাবে পারস্পারিক ক্রিয়া করেছেন, অংশগ্রহণকারী হিসেবে নয়।

Web2

Web1-এর বিপরীতে, ইন্টারনেটের বর্তমান পুনরাবির্ভাব কেন্দ্রীভূত, কন্টেন্ট তৈরির উপর জোর দেয় এবং মূলত বড় বড়, সফল সব প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর দ্বারা একচেটিয়াভাবে নিয়ন্ত্রিত।

1990-এর দশকের শেষের দিকে, ডেটাবেস, সার্ভার-সাইড প্রসেসিং, ফর্ম এবং সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো সম্মিলিতভাবে একটি আরো ইন্টারেক্টিভ ইন্টারনেট তৈরি করেছিল যা Web2 বা Web2.0 নামে পরিচিত। এটি ইন্টারনেটের বর্তমান সংস্করণ, যা কন্টেন্ট তৈরির জন্য একটি উন্মুক্ত স্থান। আপনি একজন উচ্চাকাঙ্ক্ষী লেখক, ফটোগ্রাফার বা প্রভাবশালী হয়ে থাকলে, আপনি সহজেই Web2 বিশ্বে আপনার কাজ প্রস্তুত ও প্রদর্শন করতে পারবেন। 

ওয়ার্ডপ্রেস এবং টাম্বলারের মতো পরিষেবা প্রদানকারীরা মানুষকে কন্টেন্ট তৈরি করার জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম অফার করে, যখন ফেসবুক এবং টুইটারের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কোম্পানিগুলো মানুষকে বিশ্বের যেকোনো জায়গায় যেকোনো ব্যক্তির সাথে যুক্ত হওয়ার এবং যোগাযোগ করার সুযোগ দেয়। এছাড়াও, মোবাইল ইন্টারনেট অ্যাক্সেস এবং স্মার্টফোনের জনপ্রিয়তা যে কাউকে খুব সহজে কন্টেন্ট ব্যবহার করতে সক্ষম করে।

Web 2-কেন্দ্রিক কোম্পানিগুলো এই ইন্টারনেট বিপ্লবের সুফল অর্জন করেছে। মুনাফা করা ছাড়াও, কোম্পানিগুলো ব্যবহারকারীদের একটি বড় ডেটাবেস তৈরি করে ফেলেছে। গুগল এবং ফেসবুকের মতো বড় কোম্পানিগুলো ছোট ছোট কোম্পানিগুলোকে কিনে নিয়েছে, ব্যবহারকারীদের এবং তাদের ডেটার একটি বৈশ্বিকভাবে কেন্দ্রীভূত নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছে।

Web2 এর অসুবিধাসমূহ

Web2-এর আবির্ভাবের পর থেকে, বড় বড় ইন্টারনেট কোম্পানিগুলো বুঝতে পেরেছে যে তারা ব্যবহারকারীর ডেটা তাদের নিজ নিজ ইকোসিস্টেমে রেখে ব্যবহার করতে পারে। ভোক্তাদের উদ্দেশ্যে সুনির্দিষ্টভাবে বিজ্ঞাপন তৈরি করার ফলে কিংবা বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের মধ্যে স্বাভাবিক যোগাযোগে বাধা সৃষ্টি করার ফলে, ব্যবহারকারীরা প্রায়ই সেই কোম্পানিগুলোর পরিষেবা ব্যবহার করা চালিয়ে যেতে আগ্রহী হন। 

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে, সেন্সরশিপ, ডেটা ট্র্যাকিং এবং ডেটা মালিকানার মতো নৈতিক বিষয়গুলো অনেক ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে, ব্যবহারকারীর ডেটা যেন মনে হয় ব্যবহারকারীদের নিজেদের নয় বরং Web2-এর কোম্পানিগুলোই যেন সেগুলোর মালিক। আমরা অন্যায্য ডেটা নিয়ন্ত্রণের ঘটনা দেখেছি, যেখানে ব্যবহারকারীরা নিজেদের অজান্তে প্ল্যাটফর্ম-অভ্যন্তরীণ কমিউনিটি নির্দেশিকা লঙ্ঘন করার কারণে তাদের অ্যাকাউন্টগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। 2010-এর দশকে, ফেসবুক তার ব্যবহারকারীদের ডেটা সুরক্ষিত রাখতে ব্যর্থ হওয়ার সংবাদটি ব্যবহারকারীদের সম্মতি ছাড়াই সংগৃহীত ব্যক্তিগত ডেটার বিষয়ে বিশ্বব্যাপী ক্ষোভের সৃষ্টি করে। 

এই সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য, কেউ কেউ Web1 এবং Web2-এর সুবিধাগুলোকে একত্রিত করে একটি সমাধান প্রস্তাব করেছেন: বিকেন্দ্রীকরণ এবং ব্যবহারকারীর অংশগ্রহণ। সুনির্দিষ্টভাবে না হলেও, Web3 নামে পরিচিত ইন্টারনেটের এই সংস্করণের মূল ধারণাগুলো অনেকটাই সংজ্ঞায়িত করা গেছে।

Web3 কী?

আমরা যদি Web2-এর বর্তমান সমস্যার দিকে তাকাই, Web3 হলো ব্যবহারকারীদের জন্য ইন্টারনেটের উন্নতি সাধনের পরবর্তী যৌক্তিক পদক্ষেপ। ব্লকচেইন, ভার্চুয়াল রিয়েলিটি (VR), ইন্টারনেট অফ থিংস (IoT) এবং ওপেন-সোর্স সফ্টওয়্যারের মতো পিয়ার-টু-পিয়ার (P2P) প্রযুক্তিগুলিকে কাজে লাগানোর মাধ্যমে গড়ে তোলা Web3-এর লক্ষ্য হলো বড় বড় Web2 কোম্পানির কুক্ষিগত হয়ে থাকা ক্ষমতা কমানো। বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে, ব্যবহারকারীরা কন্টেন্টের নিয়ন্ত্রণ এবং তাদের ডেটার মালিকানা ফেরত পাবেন বলে আশা করা যায়। 

Web3-এর মূল বৈশিষ্ট্য

বিকেন্দ্রীভূত: যেহেতু এটির উদ্দেশ্য হলো Web2-এর সমস্যা, কেন্দ্রীভূতকরণকে মূলগতভাবে সমাধান করা, তাই বিকেন্দ্রীকরণ স্বাভাবিকভাবেই Web3-এর সাফল্যের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ব্যবহারকারীদেরকে ডেটার নিয়ন্ত্রণ ফিরিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি, কোম্পানিগুলোকে তাদের ডেটা অ্যাক্সেস করার জন্য অর্থ প্রদান করতে হবে। বিকেন্দ্রীকরণ ক্রিপ্টো পেমেন্টে প্রবেশযোগ্যতা যে কারো জন্য স্বাভাবিক করে তুলবে এবং প্রথাগত Web2 পেমেন্ট অবকাঠামোতে থাকা ব্যয়বহুল মধ্যস্থতাকারীদের উপস্থিতি দূর করবে।

অনুমতিহীন: আন্তঃপ্ল্যাটফর্ম যোগাযোগের ক্ষেত্রে অংশগ্রহণ নিয়ন্ত্রণ কিংবা বাধা প্রদানের ক্ষমতাসম্পন্ন হাতে গোণা কিছু বড় বড় সংস্থার পরিবর্তে, তখন যে কেউ Web3-তে অন্যদের সাথে অবাধে যোগাযোগ করতে পারবে।

আস্থারহিত: Web3 যে নেটওয়ার্কের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে সেটিতে ব্যবহারকারীদের পক্ষে নেটওয়ার্ক ছাড়া অন্য কারো উপর আস্থা স্থাপন করা ছাড়াই অংশগ্রহণের সুযোগ থাকে। 

এই মানদণ্ডগুলো মূলত ব্লকচেইন এবং ক্রিপ্টো দ্বারা ব্যপকভাবে সমর্থিত হবে। 

Web3-এর সম্ভাব্য সুবিধাদি

ডেটা নিরাপত্তা বৃদ্ধি

কেন্দ্রীভূত ডেটাবেসে টেক জায়ান্টদের ধারণ করা ডেটা ঝুঁকিপূর্ণ, কারণ সেক্ষেত্রে হ্যাকাররা শুধুমাত্র একটি সিস্টেম অ্যাক্সেস করেই ব্যবহারকারীদের ডেটা চুরি করতে পারবে। ডেটা সঞ্চয় ও পরিচালনার জন্য বিকেন্দ্রীভূত সমাধানের ক্ষেত্রে, ব্যক্তিগত তথ্য আরো নিরাপদে রাখা যেতে পারে।

ডেটার প্রকৃত মালিকানা

Web3 যেসব বিষয়ের উপর গুরুত্ব দেয় তার মধ্যে ডেটার মালিকানা অন্যতম, এতে ব্যবহারকারীরা তাদের ডেটার নিয়ন্ত্রণ পুনরুদ্ধার করতে পারবেন এবং এমনকি তারা চাইলে সেটির বিনিময়ে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

সত্যের উপর নিয়ন্ত্রণ

ক্ষমতা কেন্দ্রীভূত না থাকলে, তখন ব্যবহারকারীরা আর অন্যায় সেন্সরশিপের শিকার হবেন না। সেন্সরশিপের ক্ষমতা বা নির্দিষ্ট কন্টেন্ট মুছে ফেলার ক্ষমতা না থাকলে, বড় বড় কোম্পানির পক্ষে যেকোনো বয়ান তৈরি বা নিয়ন্ত্রণ করা অনেকটাই কঠিন হবে।

এর বাইরে সম্ভাব্য আরো সুবিধা রয়েছে যা Web3-কে এর পূর্ববর্তীগুলোর থেকে উন্নতমানের করে তুলেছে।

আর্থিক স্বাধীনতা

Web3 ব্যবহারকারীদেরকে তাদের কন্টেন্ট এবং ডেটা ব্যবহার, তৈরি এবং মালিকানা প্রাপ্তির সুযোগ করে দিয়ে তাদেরকে ক্ষমতায়িত করবে। এবং যেহেতু Web3 ব্লকচেইন প্রযুক্তির উপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠে, তাই ব্যবহারকারীরা আর্থিক স্বাধীনতা অর্জনের জন্য সহজেই ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্স (DeFi) এবং অন্যান্য ট্যুলের সুবিধা প্রদানকারী ইকোসিস্টেমগুলোতে অ্যাক্সেস করতে সক্ষম হবে। 

উন্নত সামাজিক আন্তঃক্রিয়া

এর পূর্বসূরীদের মতো, Web3 ব্লকচেইন প্রযুক্তির পরে উদ্ভূত প্রযুক্তিগুলোকে আত্তীকরণ করতে থাকবে। উদাহরণস্বরূপ, ভার্চুয়াল রিয়েলিটি (VR), অগমেন্টেড রিয়েলিটি (AR), এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (AI) অনলাইন সামাজিক আন্তঃক্রিয়াকে উন্নত করতে Web3 অ্যাপ্লিকেশনগুলোতে ডিজিটাল উপাদান যোগ করতে পারে।

ইতোমধ্যে, আমরা মেটাভার্স নামের একটি ভার্চুয়াল 3D জগতের আকারে এমন একটি উদাহরণ দেখেছি, যেখানে ব্যবহারকারীরা অ্যাভাটার ব্যবহার করে এক্সপ্লোর করতে পারেন। মেটাভার্স এর মতো বিকাশমান স্পেসগুলোর মাধ্যমে, ব্যবহারকারীরা অনলাইনে সামাজিকীকরণ করতে, ভার্চুয়াল জমি কিনতে, গেম খেলতে এবং এমনকি দূর থেকে কাজও করতে পারেন।

শেষ কথা

Web2 বনাম Web3-কে কেন্দ্রীভূত বনাম বিকেন্দ্রীভূত এর সেই পুরোনো বিতর্কের একটি নতুন রূপ হিসেবে ভাবা যেতে পারে। যেহেতু Web3 এখনও বাস্তবায়িত হয়নি, তাই Web2-এর তুলনায় এটির কথিত শ্রেষ্ঠত্ব শুধু বিতর্কের বিষয় হিসেবেই রয়ে গেছে। তবে, Web3 এর বিকেন্দ্রীভূত পরিকাঠামোর সাহায্যে, সম্ভাব্যরূপে ডেটা-সম্পর্কিত সেই কেলেঙ্কারিগুলোকে মোকাবেলা করতে পারে যা আমরা Web2 এর বেলায় দেখেছি, এবং এভাবে ব্যবহারকারীদের কাছে নিয়ন্ত্রণ ফিরিয়ে দিতে পারে।