কিভাবে ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইন করবেন?
সুচিপত্র
ভূমিকা
ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং কী?
ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এর ধরনসমূহ
কিভাবে ক্রিপ্টো মাইন করবেন?
ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং কতটা মূল্যবান?
শেষ কথা
কিভাবে ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইন করবেন?
হোম
নিবন্ধ
কিভাবে ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইন করবেন?

কিভাবে ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইন করবেন?

প্রকাশিত হয়েছে Oct 13, 2022আপডেট হয়েছে Dec 23, 2022
11m


TL;DR

বিটকয়েন এবং অন্যান্য অনেক ব্লকচেইন নেটওয়ার্ক ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিংয়ের জন্য প্রুফ অব ওয়ার্ক (PoW) কনসেনসাস অ্যালগরিদম ব্যবহার করে। ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইন করার অনেক সম্ভাব্য উপায় আছে; এটি একাকী অথবা অন্যদের সাথে মিলে একত্রে করা যেতে পারে। আপনি বিশেষ মাইনিং কম্পিউটার বা এমনকি আপনার ব্যক্তিগত কম্পিউটারের মতো ডিভাইস যা ইতোমধ্যেই বাড়িতে আছে সেগুলো ব্যবহার করতে পারেন। যদিও যেকেউ মাইনার হতে পারে, তবুও সবাই এটি থেকে লাভবান নাও হতে পারে। শুরু করার আগে, মাইনিং নিয়ে পড়াশুনা করা, সঠিক ডিভাইস এবং প্রোগ্রাম নির্বাচন করা এবং টুকিটাকি ব্যবহারিক কাজ সম্পন্ন করা প্রয়োজন।

ভূমিকা

ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং শুরু করার আগে, সামান্য গবেষণা দিয়েই তা শুরু করা উচিত। এর কারণ হলো, বিভিন্ন প্রোটোকলের জন্য অনন্য হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যারের প্রয়োজন হতে পারে। যদিও মাইনিংয়ের সম্ভাব্য উচ্চ পুরস্কারের কারণে ক্রিপ্টোকারেন্সি ইকোসিস্টেমে বিভিন্ন লোককে আকৃষ্ট করে, তবুও এটি তাদের ডিসেন্ট্রালাইজড ব্লকচেইনগুলোকে সম্ভব করার ক্ষেত্রে সম্মিলিত ভূমিকায় অংশ নিতে সক্ষম করে।

ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং একটি অত্যন্ত প্রযুক্তিঘনিষ্ঠ বিষয় এবং এটি করার একাধিক উপায় রয়েছে। এই নিবন্ধটি ধোঁয়াশা দূর করবে এবং এটি সম্পর্কে আরো বাস্তব ধারণা দেবে।

ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং কী?

ব্লকচেইন নেটওয়ার্ক লেনদেনের নতুন ব্লক তৈরি ও যাচাই করতে এবং নেটওয়ার্ক সুরক্ষিত করতে মাইনিং ব্যবহার করে। এই প্রক্রিয়ায়, তথাকথিত মাইনাররা ক্রিপ্টোকারেন্সির নতুন ইউনিট তৈরি করতে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কম্পিউটেশনাল রিসোর্স ব্যবহার করার মাধ্যমে তাদের বিদ্যমান সঞ্চালিত সরবরাহ বৃদ্ধি করে।

বিটকয়েন, লাইটকয়েন (LTC) এবং অন্যান্য অনেক ব্লকচেইন নেটওয়ার্ক ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিংয়ের জন্য প্রুফ অব ওয়ার্ক (PoW) কনসেনসাস অ্যালগরিদম ব্যবহার করে। PoW নির্ধারণ করে কিভাবে কোনো ব্লকচেইন নেটওয়ার্ক তৃতীয় পক্ষের মধ্যস্থতাকারী ছাড়াই সকল বিতরণকৃত অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে কনসেনশাসে পৌঁছায়। এছাড়াও, এটি ডবল-স্পেন্ড সমস্যার সমাধান করে, যাতে নেটওয়ার্কে অংশগ্রহণকারীদেরকে একই ফান্ড একাধিকবার ব্যবহার করা থেকে বিরত রাখা যায়।

PoW-কে ডিজাইন করা হয়েছে নেটওয়ার্কে স্বচ্ছতার সাথে অংশগ্রহণকে ত্বরান্বিত করার জন্য। মাইনাররা পরবর্তী ব্লক মাইন করার অধিকার পেতে মাইনিং হার্ডওয়্যার দিয়ে জটিল ক্রিপ্টোগ্রাফিক ধাঁধাগুলো সমাধান করে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে থাকে। প্রথম মাইনারকে যথাযথ সমাধান খুঁজে বের করতে হবে এবং তাদের লেনদেনের ব্লকটি যাতে পুরস্কার পায় তা নিশ্চিত করতে হবে। অতএব, প্রক্রিয়াটির জন্য প্রচেষ্টা প্রয়োজন এবং এটি ব্যয়বহুল, তবে এটিতে কাজের জন্য আনুতোষিক পাওয়া যায়।

PoW মাইনিং একটি ব্লকচেইন নেটওয়ার্ককে আরো বিকেন্দ্রীভূত করে তোলে। একটি ব্লকচেইন একটি বিকেন্দ্রীভূত লেজার হিসেবে কাজ করতে পারে কারণ বিশ্বব্যাপী বিতরণকৃত অসংখ্য কম্পিউটার (নোড) এটিকে ধরে রাখে। তাই একটি একক ডেটাবেসের পরিবর্তে, এই আন্তঃসংযুক্ত কম্পিউটারগুলো ব্লকচেইন ডেটার একটি অনুলিপি ধরে রাখে এবং ক্রমাগত ব্লকচেইনের সঠিক অবস্থা নিশ্চিত করতে পরস্পরের সাথে যোগাযোগ করে।

তবে, একটি তথাকথিত 51% আক্রমণের মাধ্যমে ব্লকচেইনকে ব্যাহত করাও সম্ভব। যদিও সম্ভাবনা খুব কম, তবুও বিশেষ করে বৃহত্তর ব্লকচেইন নেটওয়ার্কগুলোর জন্য, কোনো একক প্রতিষ্ঠান বা সংস্থা, তাত্ত্বিকভাবে, নেটওয়ার্কের কম্পিউটিং শক্তির 50% এর বেশি পরিমাণের উপর দখল নিতে পারে। এই পরিমাণ মাইনিং শক্তি আক্রমণকারীকে উদ্দেশ্যপূর্ণভাবে লেনদেনের ক্রম থেকে কোনোকিছু বাদ দেওয়ার বা সেটিতে পরিবর্তন ঘটানোর সুযোগ করে দেয়, এছাড়াও তাদের নিজস্ব লেনদেনগুলোকে বিপরীতমুখী করতে সক্ষম করে।

ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এর স্থায়িত্ব এবং ব্যয়ের সাথে সম্পর্কিত আরেকটি সম্ভাব্য সমস্যা রয়েছে। ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিংয়ের জন্য শুধুমাত্র হার্ডওয়্যারে নয়, শক্তির জন্যও উল্লেখযোগ্য বিনিয়োগ প্রয়োজন হয়। ফলস্বরূপ, অনেক মাইনার, বিশেষ করে যারা বিটকয়েন (BTC) মাইনিং করেন, তাদেরকে প্রচুর পরিমাণে বিদ্যুৎ খরচ করতে হয়। এছাড়াও, যদি কোনো মাইনারের বেশ কয়েকটি মাইনিংয়ের রিগ এবং সুলভ মূল্যে বিদ্যুৎ প্রাপ্তির সুবিধা না থাকে, তাহলে তার জন্য মাইনিং কখনোই লাভজনক হবে না।

ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এর ধরনসমূহ

মাইনাররা সফলভাবে একটি ব্লক যাচাই করলে একটি ব্লকের পুরস্কার পায়। মাইনাররা নেটওয়ার্কে যত বেশি কম্পিউটিং শক্তি ব্যয় করবে, পরবর্তী ব্লকটি যাচাইয়ে সফল হওয়ার ক্ষেত্রে তাদের সম্ভাবনা তত বাড়বে। এরপরও, যত বেশি মাইনার গেমটিতে যোগ দেবে, ব্লক যাচাইকরণের জন্য তত বেশি কম্পিউটিং শক্তির প্রয়োজন দেখা দেবে। তাই, মাইনিং জিনিসটি স্বতন্ত্র মাইনারদের জন্য খুবই ব্যয়বহুল হয়ে উঠতে পারে।

ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং করার উপায় যে শুধু একটি তা নয়। সুতরাং, আসুন মূল বিষয়গুলো আলাদা আলাদাভাবে দেখে নেওয়া যাক যাতে আপনি স্বতন্ত্র ব্যক্তি হিসেবে নাকি সমষ্টির অংশ হিসেবে কাজ করার পরিকল্পনা করছেন তা নির্বিশেষে সঠিকটি বেছে নিতে পারেন।

ASIC মাইনিং

অ্যাপ্লিকেশন-স্পেসিফিক ইন্টিগ্রেটেড সার্কিট (ASIC) হলো সেইসব কম্পিউটার যা একটি সুনির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে নির্মিত হয়েছে। কিছু কিছু ASIC মাইনিংয়ের রিগ সম্পূর্ণরূপে ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এর জন্য নিবেদিত।

মনে রাখবেন যে, নতুন ASIC মডেলগুলো দ্রুতই পুরানো ডিজাইনগুলোকে অলাভজনক করে তুলতে পারে। এছাড়াও, ASIC মাইনার ব্যবহার করে তথাকথিত ASIC-প্রতিরোধী ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলো মাইন করা যাবে না।

GPU মাইনিং

গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট (GPUs) একাধিক উদ্দেশ্য পূরণ করতে পারে যা ASIC করতে পারে না। প্রথাগতভাবে, একটি কম্পিউটারে সেগুলোর কাজ হলো গ্রাফিক্স প্রক্রিয়াকরণ করা এবং একটি স্ক্রিনে সেটির আউটপুট দেওয়া। GPU মাইনিং ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিংয়ে প্রবেশের সুযোগ কম দেয় কারণ ব্যবহারকারীরা সাশ্রয়ী মূল্যের এবং স্ট্যান্ডার্ড ল্যাপটপের মতো আরো বেশি উপলভ্য হার্ডওয়্যার দিয়ে এটি করতে পারেন। যদিও আপনি তা সত্ত্বেও GPU দিয়ে কিছু অল্টকয়েন মাইন করতে পারেন,তবুও সেগুলোর কার্যকারিতা মাইনিংয়ের জটিলতার স্তর এবং অ্যালগরিদমের উপর নির্ভর করে।

CPU মাইনিং

সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট (CPU) হলো সেই প্রাথমিক উপাদান যা কম্পিউটারকে পরিচালনা করে। CPU মাইনিং আপনাকে আপনার কম্পিউটার থেকে ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইন করার জন্য নিষ্ক্রিয় শক্তি ব্যবহার করতে দেয়। এমনকি বিটকয়েনও শুরুতে একটি CPU ব্যবহার করে মাইন করা হয়েছিল, কিন্তু বর্তমানে, CPU-গুলো সেগুলোর ক্ষমতার সীমাবদ্ধতার কারণে ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিংয়ের জন্য সেরা দক্ষ নয়।

মাইনিং পুল

মাইনিং পুল বলতে মাইনারদের এমন একটি দলকে বোঝায় যারা তাদের কম্পিউটিং শক্তিকে (হ্যাশিং পাওয়ার বা হ্যাশ রেট নামেও পরিচিত) একত্রিত করার জন্য কর্মীদলে যোগ দেয়। নতুন ব্লক খুঁজে পাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাওয়ায়, তারা সম্মিলিতভাবে আরো বেশি উপার্জন করতে পারে এবং পুরস্কারসমূহ ভাগাভাগি করে নিতে পারে। অনেক মাইনার অধিকতর স্থিতিশীল ও অনুমানযোগ্য ফলাফল পেতে মাইনিং পুলে যোগ দেয়।

সোলো মাইনিং

সোলো মাইনিং হলো মাইনিং পুলের বিপরীত কারণ এতে অন্য অংশগ্রহণকারীদের প্রয়োজন হয় না। সোলো মাইনিংয়ের ক্ষেত্রে, একজন মাইনার একাই মাইনিং প্রক্রিয়া সম্পাদন করে। তবে, বিশেষ করে প্রধান ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোর ক্ষেত্রে, মাইনিং পুলের বিপুল সম্মিলিত প্রক্রিয়াকরণ শক্তি থেকে ক্রমবর্ধমান প্রতিযোগিতার উদ্ভব হওয়ায় মাইনারদের পক্ষে সফলতা লাভ কঠিন হয়ে ওঠে।

ক্লাউড মাইনিং

ক্লাউড মাইনিংয়ের বেলায়, আপনি ক্লাউড-মাইনিং ফার্ম থেকে কম্পিউটেশনাল কাজগুলো আউটসোর্স করতে পারেন। সাধারণভাবে এটিতে আপনি আপনার পক্ষ হয়ে মাইনিং করার জন্য অন্য কাউকে অর্থ প্রদান করে থাকেন। অতএব, এটি মাইনিং প্রক্রিয়া শুরু করা সহজ করে তুলতে পারে কারণ ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইন করার জন্য বিশেষ কোনো হার্ডওয়্যারের প্রয়োজন হয় না। এছাড়াও, মাইনাররা বিশ্বের যেকোনো স্থানে অবস্থিত কোনো কোম্পানির কাছ থেকে কম্পিউটিং শক্তি ভাড়ায় নিতে পারে, যার অর্থ এখানে কোনো বিদ্যুৎ বিল বা স্টোরেজ সমস্যা নেই। তবে, এই অপশনটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ কারণ আপনি আপনার বিনিয়োগ থেকে পুরস্কারসমূহ পাবেন এমন কোনো নিশ্চয়তা নেই। এই পরিষেবার অনেকগুলো নিয়ে এমনকি কেলেঙ্কারীও হয়েছে।

কিভাবে ক্রিপ্টো মাইন করবেন?

মাইনিং একটি পরোক্ষ আয়ের উৎস হয়ে ওঠার সম্ভাবনা রয়েছে। আপনি নিজে থেকে মাইনিং শুরু করতে এই ধাপভিত্তিক ওভারভিউ গাইডটি অনুসরণ করতে পারেন। তবে, মনে রাখবেন মাইনিংয়ের জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি এবং কৌশল রয়েছে। অতএব, এই ধাপগুলো কিছু কিছু মাইনিং পদ্ধতির জন্য কার্যকর নাও হতে পারে এবং অন্যগুলোর ক্ষেত্রে অতিরিক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রয়োজন হতে পারে।

এছাড়াও, মনে রাখবেন, মাইনিং যে সবসময় সহজ কিংবা লাভজনক প্রচেষ্টা হবে তা নয়, কারণ এটি ক্রিপ্টোর দামের অননুমেয় ওঠানামা এবং বিদ্যুতের দামের পরিবর্তনের উপর নির্ভরশীল হতে পারে। এটির জন্য আপনাকে মাইনিং ডিভাইসগুলো সঠিকভাবে কনফিগার করতে হবে এবং প্রাথমিক বিনিয়োগের সাথে সাথে সবকিছু ঠিকঠাক চলার জন্য কিছু ব্যয়ও করতে হবে। 

1. আপনার ক্রিপ্টো বেছে নিন

মাইনিংয়ের জটিলতার ভিত্তিতে ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলো ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে। জটিলতা বলতে একটি ব্লক মাইনিংয়ের জন্য নেটওয়ার্কের পক্ষে করার মতো প্রয়োজনীয় প্রচেষ্টাকে বোঝায়। যত বেশি মাইনার নেটওয়ার্কে যোগ দেবে, প্রতিযোগিতা তত বাড়বে, ফলে হ্যাশিং জটিলতাও বাড়বে। অন্যদিকে, মাইনাররা নেটওয়ার্ক ছেড়ে গেলে, হ্যাশিং জটিলতা কমে যাবে এবং নতুন ব্লক মাইনিং করা কম কঠিন হবে।

প্রধানতম ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোতে এমনসব শর্ত দেওয়া থাকে যেগুলো পূরণ করা অবিশ্বাস্যভাবে চ্যালেঞ্জিং, আর তাই, স্বতন্ত্র মাইনারদের জন্য লাভ অর্জন করা কঠিন। এই কারণে, বিটকয়েন মাইনাররা পুরস্কৃত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়াতে শক্তিশালী ASIC এবং মাইনিং পুল ব্যবহার করে থাকে।

বিটকয়েন ব্যতীত অন্যান্য প্রুফ অব ওয়ার্ক (PoW) ক্রিপ্টোকারেন্সি যেমন ডোজকয়েন এবং ইথেরিয়াম ক্ল্যাসিক মাইনিং করা সাধারণ ব্যাপার। অল্টকয়েন নেটওয়ার্কগুলো এতটা প্রতিযোগিতাপূর্ণ নাও হতে পারে এবং সেগুলো ক্ষুদ্র মাইনারদের জন্য আরো ভাল সুযোগ এনে দিতে পারে। অব্যবহৃত সম্ভাবনা থেকে যাওয়ার কারণে অল্টকয়েন বিকাশের উচ্চতর সম্ভাবনাও এনে দিতে পারে। এছাড়াও, মাইনাররা শক্তি-সাশ্রয়ী মাইনিং অপশনগুলো ব্যবহার করতে পারে কারণ তাদের এতটা কম্পিউটেশনাল শক্তির প্রয়োজন হয় না।

তবে, মনে রাখবেন যে, অল্টকয়েন মাইনিং অনেক বেশি অস্থির হতে পারে। অথবা, সবচেয়ে খারাপ ঘটনার ক্ষেত্রে, প্রোটোকল হ্যাক বা পরিত্যক্ত হতে পারে এবং টোকেনগুলো মূল্যহীন হয়ে যেতে পারে। এছাড়াও, নির্দিষ্ট ক্রিপ্টোকারেন্সির ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তার কারণে আপনাকে মাইনিংয়ের রিগগুলো নবায়ন করতে হতে পারে এবং আপনার প্রাথমিক পরিকল্পনার চেয়ে বেশি অর্থ ব্যয় করতে হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, শুরুতে, মাইনাররা বিটকয়েন মাইন করতে তাদের ল্যাপটপ ব্যবহার করতে পারত, যা এখন আর করা যায় না।

2. আপনার মাইনিং সরঞ্জাম বেছে নিন

ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এক ধরনের প্রতিযোগিতা। মাইনিং প্রতিযোগিতায়, মাইনাররা শক্তিশালী মাইনিং হার্ডওয়্যার থেকে উপকৃত হয় কারণ তাদের পক্ষে পরবর্তী ব্লকে মাইনি করার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। যেমনটি বলা হয়েছে, ASIC মাইনার্স ডিজাইন করা হয়েছে একটি সুনির্দিষ্ট উদ্দেশ্য পূরণ করার জন্য, যা সেগুলোকে বলতে গেলে ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিংয়ের জন্য সেরা অপশন করে তুলেছে। তা সত্ত্বেও, কিছু কিছু নেটওয়ার্কে GPU-গুলো এখনও কার্যকর, কিন্তু তাদের কার্যকারিতা ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এর জটিলতা এবং অ্যালগরিদমের উপর নির্ভরশীল।

এছাড়াও কিছু ক্রিপ্টোকারেন্সি আছে যেগুলোর জন্য বিশেষভাবে ডিজাইন করা মাইনিংয়ের রিগ প্রয়োজন হয়। উদাহরণস্বরূপ, হিলিয়ামের ক্রিপ্টো মাইনার রেডিও প্রযুক্তি ব্যবহার করে – যেখানে ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক কভারেজ প্রদানের জন্য ডিভাইসটিকে একটি উন্মুক্ত স্থানে দৃশ্যমানভাবে ইনস্টল করতে হয়। অতএব, আপনি যে ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইন করতে চান সেটির জন্য কী ধরনের হার্ডওয়্যার প্রয়োজনীয় তা সর্বদা নিশ্চিত করুন।

3. ক্রিপ্টো ওয়ালেট সেট আপ করুন।

মাইনিং প্রচেষ্টা থেকে আপনি যে ক্রিপ্টোকারেন্সি উপার্জন করেন তার কী-গুলো সংরক্ষণ করতে আপনার একটি ক্রিপ্টো ওয়ালেটেরও প্রয়োজন হবে। মাইনিং প্রক্রিয়া থেকে আপনার কিছু উপার্জন হলে, মাইনিং সফটওয়্যারটি পুরস্কারসমূহ আপনার নির্দিষ্ট করা ক্রিপ্টো ওয়ালেট অ্যাড্রেসে পাঠিয়ে দেবে। উদাহরণস্বরূপ, আপনি আপনার ক্রিপ্টো নিরাপদে সংরক্ষণ করতে এবং ব্লকচেইন জুড়ে হাজার হাজার প্রকল্পের সাথে সংযোগ করতে ট্রাস্ট ওয়ালেট ব্যবহার করতে পারেন। 

4. আপনার মাইনিং ডিভাইস কনফিগার করুন

ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এর জন্য আপনাকে বিশেষ মাইনিং সফটওয়্যার ডাউনলোড করতে হবে। সফটওয়্যারটি অ্যাক্সেস করার সর্বোত্তম উপায় হলো আপনি যে ক্রিপ্টোকারেন্সিটি মাইন করতে চান সেটির ওয়েবসাইট থেকে অ্যাক্সেস করা। এভাবে, আপনি কোনো নির্দিষ্ট ক্রিপ্টোকারেন্সির জন্য আপনার কাছে সঠিক সফটওয়্যারটি থাকা এবং ভুয়া প্রোগ্রামগুলো এড়ানো নিশ্চিত করতে পারবেন।

বেশিরভাগ মাইনিং সফটওয়্যার বিনামূল্যে ডাউনলোড এবং ব্যবহার করা যায়। এছাড়াও, কিছু ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বেছে নেওয়ার জন্য একাধিক সফটওয়্যার রয়েছে এবং সেগুলো প্রায়ই বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেমের জন্য উপলভ্য। মাইনিং সফটওয়্যারগুলোর পার্থক্য বোঝার জন্য বেছে নেওয়ার আগে আপনার পক্ষে নিজে নিজে খোঁজখবর করা (DYOR) সবসময়ই ভালো।

মাইনিং ডিভাইস স্থাপনের আরেকটি সহায়ক অংশ হল বিদ্যুৎ খরচের হিসাব রাখার জন্য একটি কৌশল তৈরি করা। আপনি পূর্ববর্তী বিদ্যুৎ বিল যাচাই করা এবং মাইনিং খরচ কত হতে পারে তা মূল্যায়ন করার মাধ্যমে শুরু করতে পারেন। দুর্ভাগ্যজনক সত্য হলো, কোনো একটি মাইনিংয়ের রিগের জন্য খরচ করা শক্তির কারণে আপনার মাইনিং থেকে অর্জিত মূল্যের চেয়ে বিদ্যুতের জন্য বেশি অর্থ ব্যয় করতে হতে পারে।

এছাড়াও, মনে রাখবেন যে, মাইনিংয়ের রিগগুলো থেকে শব্দ হয় এবং গরম হয়ে ওঠে। অতএব, সেগুলোকে এমন একটি নিরাপদ স্থানে রাখার কথা বিবেচনা করুন যেখানে তারা পর্যাপ্তভাবে ঠান্ডা হতে পারে এবং সম্ভাব্য অতিরিক্ত শব্দ সম্পর্কে আপনার প্রতিবেশীদেরকে অবহিত করুন।

5. মাইনিং পুল-এ যোগদানের কথা ভাবুন

একজন স্বতন্ত্র মাইনার হিসেবে মাইনিং পুল আপনাকে হার্ডওয়্যার এবং বিদ্যুতের খরচের ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে। প্রথম সফল মাইনারকে ব্লক পুরস্কারটি দেওয়া হলে, আপনার পক্ষে সঠিক হ্যাশটি অনুমান করার সম্ভাবনা থাকবে খুবই কম। উদাহরণস্বরূপ, এমনকি আপনি যদি বেশ কয়েকটি উচ্চ-ক্ষমতাসম্পন্ন ASIC চালান, তবুও আপনি হবেন মোট বিটকয়েন হ্যাশিং ক্ষমতার একটি অতি ক্ষুদ্র ভগ্নাংশমাত্র।

মাইনিং পুলগুলোতে মাইনিং শক্তির একটি বড় পুল গড়ে ওঠে, তাই পরবর্তী ব্লক আবিষ্কারের সুযোগ বেড়ে যায়। অন্যকথায়, আপনি যদি আপনার হ্যাশিং ক্ষমতাকে একটি মাইনিং পুলের সাথে একত্রিত করেন, তাহলে আপনি সম্ভবত একাকী মাইনিং করার চেয়ে বেশি উপার্জন করতে পারবেন।

মাইনিং পুলগুলোতে সাধারণত একজন সমন্বয়কারী থাকে যিনি মাইনারদেরকে সংগঠিত করেন যাতে তাদের ভুল করার সম্ভাবনা কমে যায়। উদাহরণস্বরূপ, সমন্বয়কারীদের নিশ্চিত করতে হয় যে, হ্যাশ শক্তির অপচয় এড়াতে মাইনাররা বিভিন্ন নন্স মান ব্যবহার করছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, মাইনিংয়ের পুরস্কারসমূহ পুলের প্রত্যেক সদস্যের মাঝে ভাগ করে দেওয়ার দায়িত্বও সমন্বয়কারীর উপর বর্তায়।

ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং কতটা মূল্যবান?

পরোক্ষ আয়ের উৎস তৈরির চেষ্টা করার সময় বিবেচনা করার মতো একটি সম্ভাবনা হলো মাইনিং। মাইনার একবার সঠিকভাবে ফাংশন সেটআপ করে নিতে পারলে এবং নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত হয়ে গেলে অল্প প্রচেষ্টাতেই কাজ হতে পারে।

তবে, অবশ্যই, এটি পুরোপুরি পরোক্ষ হবে না কারণ এখানে হার্ডওয়্যার রক্ষণাবেক্ষণ, সফটওয়্যার আপডেট, বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ ইত্যাদির মতো কাজগুলোর প্রয়োজন হবে।

তবে, মাইনিং যদিও পরোক্ষ হতে পারে, তবে আবশ্যিকভাবে লাভজনক নাও হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, ক্রিপ্টোকারেন্সির অন্তর্নিহিত অস্থিরতার ফলে মাইনারদের বিদ্যুৎ খরচের তুলনায় সামগ্রিক পুরস্কারসমূহ কমও হতে পারে।

একটি মাইনিং অপারেশনের লাভজনকতা সেটির আকার এবং অবস্থানের উপর নির্ভর করে। উদাহরণস্বরূপ, বৃহত্তম ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং ফার্মগুলো কৌশলগতভাবে এমন দেশগুলোতে অবস্থিত যেখানে বিদ্যুৎ খরচ সর্বনিম্ন হয়। এছাড়াও, কিছু কিছু জায়গায় বিদ্যুতের দাম অস্থিতিশীল যা মাইনিংয়ের কাজে বিঘ্ন ঘটাতে পারে।

মাইনিং হার্ডওয়্যারে প্রাথমিক বিনিয়োগের কারণে এটি থেকে লাভ অর্জন শুরু করার আগে আপনাকে সম্ভবত কিছুটা সময় অপেক্ষা করতে হতে পারে। সুতরাং, প্রথম মাইনিংয়ের সময়কালটি ব্যয় পরিশোধেই লেগে যেতে পারে। এছাড়াও, আমরা আগে শিখেছি, হার্ডওয়্যার পুরানো এবং অকার্যকর হতে পারে, যার অর্থ অতিরিক্ত খরচ লাগতে পারে। অতএব, ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এর ক্ষেত্রে প্রাথমিক বিনিয়োগের পরে হার্ডওয়্যারে আরো বিনিয়োগের প্রয়োজন হতে পারে।

কিছু লোক একনিষ্ঠভাবে ব্লকচেইনের বিকেন্দ্রীকরণ এবং নিরাপত্তাকে সাপোর্ট করার জন্য ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইন করা বেছে নেয়। মাঝে মাঝে কোনো মুনাফা অর্জনের লক্ষ্য ছাড়াই।

শেষ কথা

ব্লকচেইনের জন্য মাইনিং অপরিহার্য কারণ এটি লেনদেনের নতুন ব্লক তৈরি এবং যাচাই করার সময় নেটওয়ার্ককে সুরক্ষিত করতে সাহায্য করে। যদিও যেকেউ ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং শুরু করতে পারে, তবুও খরচ এবং ঝুঁকির বিষয়টি বিবেচনা করা অপরিহার্য। 

মাইনিংয়ের জন্য একটি নির্দিষ্ট মাত্রার প্রযুক্তিগত জ্ঞানেরও প্রয়োজন, বিশেষ করে আপনার মাইনিং সরঞ্জামগুলো অর্জন এবং সেট আপ করার সময়। আপনার পক্ষে নিজে খোঁজখবর নেওয়া এবং আপনি যে ক্রিপ্টোকারেন্সিটি মাইন করতে চান সেটির সুনির্দিষ্ট বিষয়গুলো বোঝা গুরুত্বপূর্ণ। সম্ভাব্য মাইনিংয়ের পুরস্কারসমূহ পেতে আপনাকে একটি ক্রিপ্টো ওয়ালেট সেট আপ করতে হবে।

কিন্তু, মনে রাখবেন, ক্রিপ্টো ইকোসিস্টেম দ্রুত পরিবর্তিত হয়, তাই প্রজেক্টের উন্নয়ন এবং আপডেটগুলোতে নজর রাখতে হবে কারণ সেগুলোতে ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এর পদ্ধতি পরিবর্তিত হয়ে থাকতে পারে।