ক্রিপ্টো দিয়ে পরোক্ষ আয় করার একটি শিক্ষানবিস গাইড
সুচিপত্র
পরোক্ষ আয় কী?
আপনি কিভাবে ক্রিপ্টো থেকে পরোক্ষ আয় করতে পারেন?
ক্রিপ্টো দিয়ে পরোক্ষ আয় করার ঝুঁকি কী কী?
শেষ কথা
ক্রিপ্টো দিয়ে পরোক্ষ আয় করার একটি শিক্ষানবিস গাইড
হোম
নিবন্ধ
ক্রিপ্টো দিয়ে পরোক্ষ আয় করার একটি শিক্ষানবিস গাইড

ক্রিপ্টো দিয়ে পরোক্ষ আয় করার একটি শিক্ষানবিস গাইড

প্রকাশিত হয়েছে Jan 1, 2020আপডেট হয়েছে Nov 11, 2022
8m

পরোক্ষ আয় কী?

ব্লকচেইন শিল্পে অর্থোপার্জনের একটি উপায় হল ট্রেডিং বা প্রজেক্টে বিনিয়োগ। তবে, এটির জন্য সাধারণত বিশদ গবেষণা এবং সময়ের যথেষ্ট বিনিয়োগের প্রয়োজন – তারপরও এটি তেমন কোনো নির্ভরযোগ্য আয়ের উৎস হয়ে ওঠার নিশ্চয়তা নেই। 

এমনকি সেরা বিনিয়োগকারীরাও দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারেন এবং সেক্ষেত্রে বিকল্প আয়ের উৎস তাদের জীবন ধারণের অন্যতম উপায় হয়ে উঠতে পারে।

ট্রেডিং বা বিনিয়োগ ছাড়াও অন্যান্য পদ্ধতি রয়েছে যা আপনাকে আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি হোল্ডিং বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। এগুলো থেকে মুনাফা উপার্জনের মতো চলমান আয়ের ব্যবস্থা হতে পারে, অথচ সেট আপ করার জন্য কিছু প্রচেষ্টা এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য সামান্য প্রচেষ্টা অথবা কোনো প্রচেষ্টারও প্রয়োজন হয় না।

এভাবে, আপনার আয়ের বিভিন্ন স্ট্রিম থাকতে পারে যাতে সবমিলিয়ে একটি উল্লেখযোগ্য পরিমাণ পর্যন্ত আয় যোগ হতে পারে।

এই নিবন্ধটিতে এমন কিছু উপায় বর্ণনা করা হবে যাতে আপনি ক্রিপ্টো থেকে পরোক্ষ আয় করতে পারেন।


আপনি কিভাবে ক্রিপ্টো থেকে পরোক্ষ আয় করতে পারেন?

মাইনিং

মাইনিং-এ মূলত একটি নেটওয়ার্ককে সুরক্ষিত করার জন্য কম্পিউটিং শক্তি ব্যবহার করার কারণে পুরষ্কার দেওয়া হয়। যদিও এটির জন্য আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি হোল্ডিং থাকার প্রয়োজন নেই, তবুও এটি ক্রিপ্টোকারেন্সি স্পেসে পরোক্ষ আয় করার সবচেয়ে পুরনো পদ্ধতি।

বিটকয়েন যুগের প্রথম দিকে, একটি সাধারণ সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিটে (CPU) মাইনিং করা ছিল একটি কার্যকর সমাধান। নেটওয়ার্ক হ্যাশ রেট বৃদ্ধির সাথে সাথে, বেশিরভাগ মাইনার আরো শক্তিশালী গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট (GPUs) ব্যবহারের দিকে ঝুঁকেছেন। প্রতিযোগিতা আরো বেড়ে যাওয়ায়, এটি প্রায় একচেটিয়াভাবে অ্যাপ্লিকেশন-স্পেসিফিক ইন্টিগ্রেটেড সার্কিটস (ASICs) - এই নির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে তৈরি মাইনিং চিপ ব্যবহার করে এমন ইলেক্ট্রনিক্সের বিচরণক্ষেত্র হয়ে উঠেছে।

ASIC ইন্ডাস্ট্রি অত্যন্ত প্রতিযোগিতাপূর্ণ এবং এখানে গবেষণা ও উন্নয়নে বিনিয়োগ করার মতো উল্লেখযোগ্য সংস্থান রয়েছে এমন কর্পোরেশনগুলোই আধিপত্য রাখে। এই চিপগুলো খুচরা বাজারে আসার প্রায় সাথে সাথেই তা পুরানো হয়ে যায় এবং ব্রেক-ইভেনের জন্য মাইনিং করতে অনেক বেশি সময় লাগে।

যেমন, বিটকয়েন মাইনিং একজন সাধারণ ব্যক্তির জন্য পরোক্ষ আয়ের একটি কার্যকর উৎসের পরিবর্তে কর্পোরেট ব্যবসায় পরিণত হয়েছে।

অন্যদিকে, মাইনিং লোয়ার হ্যাশ রেট প্রুফ অফ ওয়ার্ক কয়েন এখনও কারো কারো জন্য লাভজনক উদ্যোগ হতে পারে। এই নেটওয়ার্কগুলোতে এখনও কার্যকরভাবে GPU ব্যবহার করা যেতে পারে। স্বল্প পরিচিত কয়েন মাইনিং পুরষ্কারের উচ্চ সম্ভাবনা বয়ে আনে, কিন্তু আবার এতে উচ্চ মাত্রার ঝুঁকিও আছে। মাইন করা কয়েন রাতারাতি মূল্যহীন হয়ে যেতে পারে, তারল্য কমে যেতে পারে, ত্রুটি দেখা দিতে পারে অথবা অন্য অনেক কারণে বাধাগ্রস্ত হতে পারে।

লক্ষণীয় যে, মাইনিং সরঞ্জাম স্থাপন এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রাথমিক বিনিয়োগ এবং কিছু প্রযুক্তিগত দক্ষতা প্রয়োজন। 


স্ট্যাকিং

স্ট্যাকিং মূলত মাইনিংয়ের জন্য একটি স্বল্প সম্পদ-ঘনিষ্ঠ বিকল্প। এটিতে সাধারণত একটি উপযুক্ত ওয়ালেটে ফান্ড থাকতে হয় এবং স্ট্যাকিং পুরষ্কার পাওয়ার জন্য বিভিন্ন নেটওয়ার্ক ফাংশন (যেমন লেনদেন যাচাইকরণ) সম্পাদন করতে হয়। স্ট্যাক (অর্থাৎ টোকেন হোল্ডিং) মালিকানা প্রদানের মাধ্যমে নেটওয়ার্কের নিরাপত্তা রক্ষণাবেক্ষণকে উৎসাহিত করে।

স্ট্যাকিং নেটওয়ার্কগুলো তাদের কনসেনশাস অ্যালগরিদম হিসাবে প্রুফ অফ স্ট্যাক ব্যবহার করে। এর অন্যান্য সংস্করণও রয়েছে, যেমন ডেলিগেটেড প্রুফ অফ স্ট্যাক কিংবা লিজড প্রুফ অফ স্ট্যাক

সাধারণত, স্ট্যাকিংয়ে বেলায় শুধুই একটি স্ট্যাকিং ওয়ালেট সেট আপ করলে এবং কয়েন জমা রাখলেই চলে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে, প্রক্রিয়াটি একটি  স্ট্যাকিং পুলে ফান্ড যোগ করা বা অর্পণ করার সাথে সম্পর্কিত। আপনার পক্ষ হয়ে কিছু কিছু এক্সচেঞ্জ কাজটি করে দিতে পারে। আপনাকে যা করতে হবে তা হল আপনার টোকেনগুলোকে এক্সচেঞ্জে রাখতে হবে, আর প্রযুক্তিগত সকল আবশ্যকতার বিষয়গুলো তারাই দেখাশুনা করবে।

অল্প প্রচেষ্টায় আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি হোল্ডিং বাড়ানোর জন্য স্ট্যাকিং একটি চমৎকার উপায় হতে পারে। তবে, কিছু কিছু স্ট্যাকিং প্রজেক্ট কৌশলে কৃত্রিমভাবে প্রজেক্টেড স্ট্যাকিং রিটার্নের হারকে স্ফীত করে। টোকেন ইকোনমিক্স মডেলগুলো খতিয়ে দেখা অপরিহার্য কারণ তারা প্রতিশ্রুত পুরস্কারের প্রাক্কলনকে কার্যকরভাবে প্রশমিত করতে পারে। 

Binance স্ট্যাকিং বিভিন্ন ধরনের কয়েনকে সাপোর্ট করে যা আপনাকে স্ট্যাকিং পুরস্কার এনে দেবে। শুধু Binance-এ কয়েন জমা করুন এবং শুরু করতে গাইড অনুসরণ করুন।


ঋণদান

ঋণদান হল আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি হোল্ডিংয়ে মুনাফা অর্জনের একটি সম্পূর্ণ পরোক্ষ উপায়। অনেক পিয়ার-টু-পিয়ার (P2P) ঋণ দেওয়ার প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যা আপনাকে পরবর্তীতে মুনাফার পেমেন্ট সংগ্রহ করার জন্য নির্দিষ্ট সময়ের জন্য আপনার তহবিল লক আপ করার সুবিধা দেয়। মুনাফার হার স্থির করা যেতে পারে (প্ল্যাটফর্ম দ্বারা নির্ধারিত) অথবা বর্তমান বাজার হারের উপর ভিত্তি করে আপনি নিজেই তা সেট করতে পারেন।

মার্জিন ট্রেডিং পদ্ধতির কিছু এক্সচেঞ্জ এই বৈশিষ্ট্যটি তাদের প্ল্যাটফর্মে স্থানীয়ভাবে প্রয়োগ করে থাকে।

এই পদ্ধতিটি দীর্ঘমেয়াদী হোল্ডারদের জন্য আদর্শ যারা স্বল্প আবশ্যকীয় প্রচেষ্টায় তাদের হোল্ডিং বাড়াতে চান। লক্ষণীয় যে, একটি স্মার্ট কন্ট্রাক্ট-এ ফান্ড লক করে রাখলে তা সবসময় ত্রুটির ঝুঁকি বহন করে।

Binance আর্ন বিভিন্ন অপশন অফার করে যা আপনাকে আপনার হোল্ডিংয়ে মুনাফা অর্জনের সুবিধা দেয়।

 

লাইটনিং নোড চালানো

 লাইটনিং নেটওয়ার্ক হল একটি দ্বিতীয় স্তরের প্রোটোকল যা বিটকয়েনের মতো ব্লকচেইনের উপর দিয়ে চলে। এটি একটি অফ-চেইন মাইক্রোপেমেন্ট নেটওয়ার্ক, যার অর্থ হল এটি দ্রুত লেনদেনের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে যা অবিলম্বে অন্তর্নিহিত ব্লকচেইনে স্থানান্তরিত হয় না।

বিটকয়েন নেটওয়ার্কে সাধারণ লেনদেনগুলো একমুখী, যার অর্থ হল যদি অ্যালিস ববকে একটি বিটকয়েন পাঠায়, বব সেই কয়েনটি অ্যালিসকে ফেরত পাঠাতে একই পেমেন্ট চ্যানেল ব্যবহার করতে পারবে না। তবে লাইটনিং নেটওয়ার্ক, দ্বিমুখী চ্যানেল ব্যবহার করে যার জন্য উভয় অংশগ্রহণকারীকে আগে থেকেই লেনদেনের শর্তাবলীতে সম্মত হতে হবে।

লাইটনিং নোডগুলো তারল্য প্রদান করে এবং পেমেন্ট চ্যানেলে বিটকয়েন লক আপ করে লাইটনিং নেটওয়ার্কের ক্ষমতা বাড়ায়। তারপরে তারা তাদের চ্যানেলের মাধ্যমে চলমান পেমেন্টের ফি সংগ্রহ করে।

একটি লাইটনিং নোড চালানো একজন অল্প-প্রযুক্তিজ্ঞানের বিটকয়েন হোল্ডারের জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠতে পারে, যখন পুরষ্কারগুলো লাইটনিং নেটওয়ার্কের সামগ্রিক প্রয়োগের উপর নির্ভর করে।


অ্যফিলিয়েট প্রোগ্রামসমূহ

কিছু ক্রিপ্টো ব্যবসা তাদের প্ল্যাটফর্মে আরো ব্যবহারকারী পাওয়ার জন্য আপনাকে পুরস্কৃত করবে। এর মধ্যে রয়েছে অ্যাফিলিয়েট লিংক, রেফারেল, অথবা আপনার আমন্ত্রণে প্ল্যাটফর্মে আসা নতুন ব্যবহারকারীদের জন্য প্রদত্ত কিছু ছাড়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যদি আপনার অনেক বেশি অনুসারী থাকে, তাহলে অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামগুলো কিছু অতিরিক্ত আয়ের একটি চমৎকার উপায় হয়ে উঠতে পারে। তবে, নিম্ন-মানের প্রজেক্টগুলো প্রচার করার আগে, তাদের পরিষেবার মান সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নেওয়াটা সবসময়ই উপকারী।

আপনি যদি Binance থেকে পরোক্ষ আয় করতে আগ্রহী হন, তাহলে Binance অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামে-এ যোগ দিন এবং আপনার পরিচিতজনদের মাঝে Binance এর কথা প্রচার করে পুরষ্কার পান!


মাস্টারনোডস

সহজ ভাষায়,  মাস্টারনোড হল একটি সার্ভারের অনুরূপ কিন্তু এটি একটি বিকেন্দ্রীভূত নেটওয়ার্কে চলে এবং এর এমন কার্যকারিতা রয়েছে যা নেটওয়ার্কের অন্যান্য নোডগুলো করতে পারে না।

টোকেন প্রজেক্টগুলো শুধুমাত্র সেই অ্যাক্টরদেরকে বিশেষ সুবিধা প্রদান করে যারা নেটওয়ার্ক স্থিতিশীলতা বজায় রাখার জন্য উচ্চ প্রণোদনা পেয়ে থাকে। মাস্টারনোড সেট আপ করার জন্য সাধারণত একটি বড় আকারের অগ্রিম বিনিয়োগ এবং যথেষ্ট পরিমাণে প্রযুক্তিগত দক্ষতার প্রয়োজন হয়।

কিছু মাস্টারনোডের জন্য, তবে, টোকেন হোল্ডিংয়ের প্রয়োজনীয়তা এত বেশি হতে পারে যে এটি কার্যকরভাবে স্টককে তরল করে তোলে। মাস্টারনোড সহ প্রজেক্টগুলোও প্রজেক্টেড রিটার্ন রেট বাড়িয়ে দেয়, তাই এরকম কোনোটিতে বিনিয়োগ করার আগে নিজ দায়িত্বে খোঁজখবর করা (DYOR) সবসময়ই অপরিহার্য।


ফর্ক এবং এয়ারড্রপ

হার্ড ফর্ক সুবিধা গ্রহণ বিনিয়োগকারীদের জন্য একটি অপেক্ষাকৃত সহজবোধ্য কৌশল। এর জন্য কেবল হার্ড ফর্কের তারিখে (সাধারণত ব্লকের উচ্চতা দ্বারা নির্ধারিত) ফর্কের কয়েন থাকতে হবে। যদি ফর্কের পরে দুই বা ততোধিক প্রতিযোগী চেইন থাকে, তাহলে হোল্ডার প্রত্যেকটিতে একটি করে টোকেন ব্যালেন্স পাবেন।

এয়ারড্রপ জিনিসটি ফর্কের মতোই, তবে এগুলোর জন্য এয়ারড্রপের সময় শুধু একটি ওয়ালেট ঠিকানার মালিকানা থাকলেই চলে। কিছু এক্সচেঞ্জ তাদের ব্যবহারকারীদের জন্য এয়ারড্রপ করবে। মনে রাখবেন যে, একটি এয়ারড্রপ পাওয়ার জন্য কখনই প্রাইভেট কী শেয়ার করার প্রয়োজন হবে না - এটি এমন একটি শর্ত যা স্পষ্টতই স্ক্যাম।


ব্লকচেইন-ভিত্তিক কন্টেন্ট তৈরির প্ল্যাটফর্ম

ডিস্ট্রিবিউটেড লেজার প্রযুক্তির আবির্ভাব অনেক নতুন ধরনের কন্টেন্ট প্ল্যাটফর্মকে সক্ষম করেছে। এগুলো কন্টেন্ট স্রষ্টাদের নানা ধরনের অনন্য উপায়ে এবং হস্তক্ষেপকারী বিজ্ঞাপনের অন্তর্ভুক্তি ছাড়াই তাদের কন্টেন্ট নগদীকরণ করার সুযোগ দেয়।

এই ধরনের সিস্টেমে, কন্টেন্ট নির্মাতারা তাদের সৃষ্টির মালিকানা বজায় রাখে এবং সাধারণত কোনো একটি উপায়ে আগ্রহকে নগদীকরণ করে। এর জন্য প্রাথমিকভাবে প্রচুর পরিশ্রমের প্রয়োজন হতে পারে কিন্তু কন্টেন্টের অনেক বেশি ব্যাকলগ তৈরি হয়ে গেলে এটি আয়ের একটি স্থায়ী উৎস হয়ে উঠতে পারে। 


ক্রিপ্টো দিয়ে পরোক্ষ আয় করার ঝুঁকি কী কী?

  • নিম্ন-মানের অ্যাসেট ক্রয়: কৃত্রিমভাবে স্ফীত বা বিভ্রান্তিকর রিটার্ন রেট বিনিয়োগকারীদের এমন একটি অ্যাসেট কেনার জন্য প্রলুব্ধ করতে পারে যার মূল্য ভিন্নরূপে খুবই কম। কিছু স্ট্যাকিং নেটওয়ার্ক একটি মাল্টি-টোকেন সিস্টেম গ্রহণ করে যেখানে পুরষ্কারগুলো দ্বিতীয় টোকেনে প্রদান করা হয়, যা পুরস্কার টোকেনের জন্য ক্রমাগত বিক্রির চাপ তৈরি করে।

  • ব্যবহারকারীর ত্রুটি: যেহেতু ব্লকচেইন ইন্ডাস্ট্রি এখনও বিকাশের পর্যায়ে রয়েছে, তাই আয়ের এই উৎসগুলো সেট করা এবং বহাল রাখার জন্য প্রযুক্তিগত দক্ষতা এবং একটি অনুসন্ধানী মানসিকতার প্রয়োজন। কিছু হোল্ডারের জন্য, এই পরিষেবাগুলো আরো ব্যবহারকারী-বান্ধব না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করাই বরং ভাল, কিংবা শুধুমাত্র সেগুলো ব্যবহার করা ভালো যেগুলোর জন্য ন্যূনতম প্রযুক্তিগত দক্ষতা প্রয়োজন।

  • লকআপ সময়কাল: কিছু কিছু ঋণ প্রদান বা স্ট্যাকিং পদ্ধতির ক্ষেত্রে আপনাকে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য আপনার তহবিল লক আপ করতে হবে। এটি সেই সময়ের জন্য আপনার হোল্ডিংগুলোতে কার্যকরভাবে তারল্য আনে, যা আপনার অ্যাসেটের মূল্যকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করতে পারে এমন কোনো ইভেন্টের জন্য আপনাকে দুর্বল করে দেয়। 

  • ত্রুটির ঝুঁকি: আপনার টোকেনগুলো একটি স্ট্যকিং ওয়ালেটে বা একটি স্মার্ট কন্ট্রাক্ট-এ লক করা থাকলে তা সবসময় ত্রুটির ঝুঁকি বহন করে। সাধারণত, গুণমানের বিভিন্ন মাত্রাসহ একাধিক পছন্দ উপলব্ধ রয়েছে। কোনো প্রতিশ্রুতি প্রদানের আগে এই পছন্দগুলো নিয়ে খোঁজখবর করা আবশ্যক। ওপেন-সোর্স সফটওয়্যার একটি ভাল সূচনাবিন্দু হতে পারে, কারণ খুব কম সংখ্যক কমিউনিট এই অপশনগুলোর খোঁজ রাখে।


শেষ কথা

ব্লকচেইন ইন্ডাস্ট্রিতে পরোক্ষ আয় জেনারেট করার উপায়গুলো ক্রমাগত বাড়ছে এবং জনপ্রিয়তা অর্জন করছে। ব্লকচেইন ব্যবসাগুলোতেও এই পদ্ধতিগুলোর কয়েকটি গৃহীত হয়েছে, যারা এমনসব পরিষেবা প্রদান করে যা প্রধানত সাধারণ মাইনিং হিসেবে অভিহত।

পণ্যগুলো আরো নির্ভরযোগ্য এবং সুরক্ষিত হয়ে ওঠায় সেগুলো শীঘ্রই আয়ের একটি স্থায়ী উৎসের ক্ষেত্রে একটি বৈধ অপশন হয়ে উঠতে পারে।