ক্রিপ্টোকারেন্সি কী?
সুচিপত্র
অধ্যায় 1 - ক্রিপ্টোকারেন্সি 101
ক্রিপ্টোকারেন্সি কী?
ক্রিপ্টোকারেন্সিকে কোন বিষয়টি ইউনিক করে তোলে?
এটিকে ক্রিপ্টোকারেন্সি কেন বলা হয়?
পাবলিক-কী ক্রিপ্টোগ্রাফি কী?
ক্রিপ্টোকারেন্সি কে আবিষ্কার করেন?
ক্রিপ্টোকারেন্সি ও টোকেনের মধ্যে পার্থক্য কী?
ক্রিপ্টো ওয়ালেট কী?
অধ্যায় 2 - ব্লকচেইন কিভাবে কাজ করে?
ব্লকচেইন কী?
ব্লক কিভাবে কোনো ব্লকচেইন যোগ করা হয়?
ক্রিপ্টো মাইনিং কিভাবে কাজ করে?
ক্রিপ্টোকারেন্সি স্কেল করা যায়?
ক্রিপ্টোকারেন্সি সফ্টওয়্যারের জন্য সিদ্ধান্ত কে গ্রহণ করে?
অধ্যায় 3 - ক্রিপ্টোকারেন্সিতে আমি কিভাবে বিনিয়োগ করতে পারি?
আমার কোনো ক্রিপ্টোকারেন্সি কেনা উচিত?
ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগ করার আগে আমার কী শিখতে হবে?
ক্রিপ্টোকারেন্সি কোথায় কিনতে হবে
ক্রিপ্টোকারেন্সি কিভাবে ক্রয় করতে হয়
অধ্যায় 4 - ক্রিপ্টোকারেন্সি সম্পর্কিত প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী
ক্রিপ্টোকারেন্সি কি বৈধ?
ক্রিপ্টো কি মৃত?
ক্রিপ্টোকারেন্সি কি নিরাপদ?
ক্রিপ্টোকারেন্সি কি বেনামী?
ক্রিপ্টোকারেন্সি কি মূল্যবান?
সকল ডিজিটাল মুদ্রাই কি ক্রিপ্টোকারেন্সি?
একটি ক্রিপ্টোকারেন্সির মার্কেট মূলধন কী?
আমাকে লেনদেনের ফি দিতে হবে কেন?
আমি আমার কী হারিয়ে ফেলেছি। আমি কি আমার ফান্ড ফেরত পাবো?
ক্রিপ্টোকারেন্সির ভবিষ্যৎ কী?
হোম
নিবন্ধ
ক্রিপ্টোকারেন্সি কী?

ক্রিপ্টোকারেন্সি কী?

প্রকাশিত হয়েছে Dec 5, 2018আপডেট হয়েছে Nov 10, 2022
26m

অধ্যায়সমূহ

  1. ক্রিপ্টোকারেন্সি 101

  2. বিটকয়েন কিভাবে কাজ করে?

  3. ক্রিপ্টোকারেন্সিতে আমি কিভাবে বিনিয়োগ করতে পারি?

  4. ক্রিপ্টোকারেন্সি সম্পর্কিত প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী


অধ্যায় 1 - ক্রিপ্টোকারেন্সি 101

বিষয়বস্তু


ক্রিপ্টোকারেন্সি কী?

ক্রিপ্টোকারেন্সি (বা ক্রিপ্টো) হল ডিজিটাল নগদ অর্থের একটি ধরণ, যার মাধ্যমে লোকজন একটি ডিজিটাল পরিবেশে অর্থ প্রেরণে সক্ষম হন।

আপনি হয়তো ভাবছেন এই ধরণের সিস্টেম কিভাবে আপনার ফোনে থাকা পেপ্যাল বা ডিজিটাল ব্যাংকিং অ্যাপ থেকে আলাদা। উপর থেকে দেখলে এগুলোর ব্যবহার ক্ষেত্র নিশ্চিতভাবেই একই বলে মনে হয় – বন্ধুদের পে করা, আপনার প্রিয় ওয়েবসাইট থেকে কেনাকাটা করা – কিন্তু অভ্যন্তরে, এগুলো সম্পূর্ণ আলাদা।


ক্রিপ্টোকারেন্সিকে কোন বিষয়টি ইউনিক করে তোলে?

ক্রিপ্টোকারেন্সি অনেক কারণেই ইউনিক। যদিও এর প্রাথমিক কাজ হল একটি ইলেকট্রনিক ক্যাশ ব্যবস্থা হিসেবে পরিষেবা দেয়া যেটি কোনো এক পক্ষের মালিকানাধীন নয়।

একটি ভালো ক্রিপ্টোকারেন্সি ডিসেন্ট্রালাইজড হবে। এমন কোনো কেন্দ্রীয় ব্যাংক বা ব্যবহারকারীদের উপধারা নেই যারা কনসেনশাসে না পৌঁছেই নিয়ম পরিবর্তন করতে পারে। নেটওয়ার্কে অংশগ্রহণকারী (নোড) সফ্টওয়্যার পরিচালনা করে যা সেগুলোকে অন্যান্য অংশগ্রহণকারীদের সাথে সংযুক্ত করে যাতে তারা নিজেদের মধ্যে তথ্য শেয়ার করে নিতে পারে।


centralized-vs-decentralized-networks

সেন্ট্রালাইজড বনাম ডিসেন্ট্রালাইজড নেটওয়ার্ক।


ব্যাংক কিভাবে কাজ করে বলে আপনি জানেন তা বাম দিকে দেখতে পাবেন। ব্যবহারকারীদের অবশ্যই কেন্দ্রীয় সার্ভারের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে হবে। ডানদিকে, কোনো হায়ারার্কি নেই: নোডগুলো আন্তঃসংযুক্ত ও নিজেদের মধ্যে তথ্য রিলে করে।

ক্রিপ্টোকারেন্সি নেটওয়ার্কের ডিসেন্ট্রালাইজেশন এগুলোকে শাটডাউন বা সেন্সরশিপের বিরুদ্ধে অত্যন্ত প্রতিরোধী করে তোলে। বিপরীতে, কোনো সেন্ট্রালাইজড নেটওয়ার্ককে বিকল করতে, আপনাকে কেবল প্রধান সার্ভারটি কর্মকান্ড ব্যাহত করতে হবে। কোনো ব্যাংকের ডেটাবেজ যদি মুছে ফেলা হয় এবং কোনো ব্যাকআপ না থাকে তাহলে ব্যবহারকারীদের ব্যালেন্স নির্ধারণ করা খুব কঠিন হবে।

ক্রিপ্টোকারেন্সিতে, নোডগুলো ডেটাবেজের একটি অনুলিপি রাখে। প্রত্যেকে কার্যত তাদের নিজস্ব সার্ভার হিসেবে কাজ করে। কোনো নোড আলাদাভাবে অফলাইনে চলে গেলে সেটির পিয়ার তারপরেও অন্যান্য নোডগুলো থেকে তথ্য পেতে সক্ষম হবে।

তাই ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলো দিনে 24 ঘন্টা, বছরে 365 দিন কার্যকর থাকে। মধ্যস্থতাকারীদের হস্তক্ষেপ ছাড়াই এগুলো বিশ্বের যেকোনো জায়গায় ভ্যালু ট্রান্সফার করতে পারে। এই কারণে প্রায়শই আমরা এগুলকে অনুমতিবিহীন হিসেবে উল্লেখ করি: ইন্টারনেট সংযোগ থাকা যেকেউ ফান্ড প্রেরণ করতে পারে।


এটিকে ক্রিপ্টোকারেন্সি কেন বলা হয়?

"ক্রিপ্টোকারেন্সি" শব্দটি ক্রিপ্টোগ্রাফিকারেন্সি শব্দ দুটোকে একত্রিত করে তৈরি করা হয়েছে। এর কারণ হল ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারকারীদের মধ্যে লেনদেন সুরক্ষিত করতে ক্রিপ্টোগ্রাফিক কৌশলের ব্যাপক ব্যবহার করে।


পাবলিক-কী ক্রিপ্টোগ্রাফি কী?

পাবলিক-কী ক্রিপ্টোগ্রাফি ক্রিপ্টোকারেন্সি নেটওয়ার্কের ভিত্তি নির্মাণ করে। ব্যবহারকারীরা ফান্ড পাঠাতে ও গ্রহণ করতে এটির উপর নির্ভর করে। 

কোনো পাবলিক-কী ক্রিপ্টোগ্রাফি স্কিমে, আপনার একটি পাবলিক কী ও একটি প্রাইভেট কী থাকে। প্রাইভেট কী মূলত একটি বিশাল সংখ্যা যা কারো পক্ষে অনুমান করা অসম্ভব। এই সংখ্যাটি কত বড় তা ভাবলে মাথা ঘুরে যায়। 

বিটকয়েনের ক্ষেত্রে, একটি প্রাইভেট কী কত তা অনুমান করা 256টি কয়েন টসের ফলাফলকে সঠিকভাবে অনুমান করার মতোই। পৃথিবীর সকল শক্তি নিঃশেষিত হবার (Heat death of the universe) আগে বর্তমানের কম্পিউটার দিয়ে হিসাব করে এটি বের করা যাবে না।

যাই হোক, নামেই বোঝা যাচ্ছে যে আপনাকে আপনার প্রাইভেট কী গোপন রাখতে হবে। তবে এই কী থেকেই আপনি একটি পাবলিক কী তৈরি করতে পারবেন। পাবলিক কী-টিকে নিরাপদেই যেকারো কাছে দিতে পারবেন। তাদের পক্ষে আপনার প্রাইভেট কী পাওয়ার জন্য পাবলিক কী-টিকে রিভার্স-ইঞ্জিনিয়ার করা অসম্ভব।

আপনি আপনার প্রাইভেট কী দিয়ে ডেটা স্বাক্ষর করে ডিজিটাল স্বাক্ষরও তৈরি করতে পারেন। এটি বাস্তব জগতে কোনো নথিতে স্বাক্ষর করার মতই। প্রধান পার্থক্য হল কোনো স্বাক্ষর বৈধ কিনা তা মিলে যাওয়া পাবলিক কী এর সাথে তুলনা করে যেকেউ নিশ্চিতভাবে বলতে পারবে। এই পদ্ধতিতে, ব্যবহারকারীকে তাদের প্রাইভেট কী প্রকাশ করতে হবে না, কিন্তু তবুও এটির মালিকানা প্রমাণ করতে পারবে।

ক্রিপ্টোকারেন্সিতে, আপনার ফান্ড আপনি শুধুমাত্র তখনই খরচ করতে পারবেন যখন আপনার কাছে সংশ্লিষ্ট প্রাইভেট কী থাকবে। আপনি কোনো লেনদেন করার সময় নেটওয়ার্কে ঘোষণা করছেন যে আপনি আপনার মুদ্রা সরাতে চান। এটি একটি মেসেজে (অর্থাৎ, লেনদেন) ঘোষণা করা হয় যা স্বাক্ষর করে ক্রিপ্টোকারেন্সির ডেটাবেজে ( ব্লকচেইন) যোগ করা হয়। যেটি আগেই উল্লিখ করা হয়েছে যে, ডিজিটাল স্বাক্ষর তৈরি করতে আপনার প্রাইভেট কী লাগবে। আর যেকেউই যেহেতু ডেটাবেজ দেখতে পারে, তারা স্বাক্ষর চেক করে আপনার লেনদেন বৈধ কিনা তা পরীক্ষা করতে পারবে।


ক্রিপ্টোকারেন্সি কে আবিষ্কার করেন?

বিগত সময়ে ডিজিটাল ক্যাশ স্কিমের অল্প কিছু প্রচেষ্টা করা হয়েছে, তবে ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোর মধ্যে প্রথমটি ছিল বিটকয়েন, যা 2009 সালে প্রকাশিত হয়। এটি সাতোশি নাকামোতো ছদ্মনাম ব্যবহার করে একজন ব্যক্তি বা ব্যক্তির গোষ্ঠী দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল। আজ পর্যন্ত, তাদের আসল পরিচয় অজানা রয়ে গেছে।

বিটকয়েন পরবর্তীকালে বিপুল সংখ্যক ক্রিপ্টোকারেন্সি তৈরি করেছে – কিছু হয়েছে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার লক্ষ্যে এবং অন্যরা হয়েছে বিটকয়েনে উপলভ্য নয় এমন বৈশিষ্ট্যগুলোকে একীভূত করতে। আজকাল, অনেক ব্লকচেইন ব্যবহারকারীদের শুধু ফান্ড পাঠাতে ও গ্রহণ করার অনুমতি দেয় না, শুধু স্মার্ট কন্ট্রাক্ট ব্যবহার করে ডিসেন্ট্রালাইজড অ্যাপ্লিকেশন চালানোর অনুমতি দেয়। ইথিরিয়াম সম্ভবত এই ধরনের ব্লকচেইনের সবচেয়ে জনপ্রিয় উদাহরণ।


ক্রিপ্টোকারেন্সি ও টোকেনের মধ্যে পার্থক্য কী?

প্রথম নজরে, ক্রিপ্টোকারেন্সি ও টোকেনকে অভিন্ন বলে মনে হবে। দুটোই এক্সচেঞ্জে ট্রেড করা হয় ও ব্লকচেইন ঠিকানায় পাঠানো যায়।

ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সক্লুসিভভাবে অর্থ হিসেবে পরিষেবা দেয়ার জন্য তৈরি, তা হতে পারে বিনিময়ের মাধ্যম, ভ্যালুর স্টোর বা দুটোই। প্রতিটি ইউনিট কার্যত ফাঞ্জিবল, যার অর্থ একটি মুদ্রার মূল্য অন্যটির মতো।

বিটকয়েন ও প্রাথমিক অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোকে মুদ্রা হিসেবে ডিজাইন করা হয়েছিল, কিন্তু পরবর্তীতে তৈরি ব্লকচেইনগুলো আরো অতিরিক্ত কিছু করার চেষ্টা করে। যেমন ইথিরিয়াম, শুধুমাত্র মুদ্রার কার্যকারিতা প্রদান করে না। এটি ডেভেলপারদের একটি ডিস্ট্রিবিউটেড নেটওয়ার্কে কোড (স্মার্ট কন্ট্রাক্ট) চালাতে ও বিভিন্ন ডিসেন্ট্রালাইজড অ্যাপ্লিকেশনের জন্য টোকেন তৈরি করার সু্যোগ প্রদান করে। 

টোকেন ক্রিপ্টোকারেন্সির মতো ব্যবহার করা যায়, তবে এগুলো আরো অধিক নমনীয়। আপনি এগুলোর লক্ষ লক্ষ অভিন্ন মিন্ট করতে পারেন বা ইউনিক বৈশিষ্ট্য থাকা কয়েকটিকে নির্বাচন করতে পারেন। এগুলো কোনো কোম্পানির স্ট্যাকের প্রতিনিধিত্ব করা ডিজিটাল রসিদ থেকে শুরু করে লয়্যালটি পয়েন্ট পর্যন্ত বিষয়ে পরিষেবা প্রদান করতে পারে।

স্মার্ট-কন্ট্রাক্ট-সক্ষম প্রোটোকলে, বেজ কারেন্সি (লেনদেন বা অ্যাপ্লিকেশনের পেমেন্টের জন্য ব্যবহৃত) এটির টোকেন থেকে আলাদা। যেমন ইথিরিয়ামে, নেটিভ মুদ্রা হল ইথের (ETH) এবং এটিকে অবশ্যই ইথিরিয়াম নেটওয়ার্কের মধ্যে টোকেন তৈরি ও ট্রান্সফার করতে ব্যবহার করতে হবে। এই টোকেনগুলো ERC-20 বা ERC-721 এর মত স্ট্যান্ডার্ড অনুযায়ী প্রয়োগ করা হয়।


ক্রিপ্টো ওয়ালেট কী?

মূলত, কোনো ক্রিপ্টোকারেন্সি ওয়ালেট এমন কিছু যা আপনার প্রাইভেট কী ধারণ করে। এটি একটি উদ্দেশ্যমূলকভাবে-নির্মিত ডিভাইস (একটি হার্ডওয়্যার ওয়ালেট), আপনার পিসি বা স্মার্টফোনের কোনো অ্যাপ্লিকেশন, বা এমনকি কাগজের টুকরো হতে পারে।

কোনো ক্রিপ্টোকারেন্সি নেটওয়ার্কের সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করার জন্য ওয়ালেট হল সেই ইন্টারফেস যেটির উপর অধিকাংশ ব্যবহারকারীরা নির্ভর করবে। বিভিন্ন ধরণ বিভিন্ন ধরনের অফার কার্যকারিতা করবে – স্পষ্টতই, কোনো কাগজের ওয়ালেট লেনদেন স্বাক্ষর করতে পারে না বা ফিয়াট মুদ্রায় বর্তমান মূল্য প্রদর্শন করতে পারে না। 

সুবিধাজনক হবার কারণে, সফ্টওয়্যার ওয়ালেট (যেমন ট্রাস্ট ওয়ালেট)-কে প্রতিদিনের পেমেন্টের জন্য শ্রেষ্ঠ বলে বিবেচনা করা হয়। নিরাপত্তার ক্ষেত্রে, হার্ডওয়্যার ওয়ালেটগুলো প্রাইভেট কী-কে শিকারির চোখ থেকে দূরে রাখার ক্ষমতার বিচারে কার্যত অতুলনীয়। ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারকারীরা উভয় ধরনের ওয়ালেটেই ফান্ড রাখার প্রবণতা প্রদর্শন করেন।



অধ্যায় 2 - ব্লকচেইন কিভাবে কাজ করে?

বিষয়বস্তু


ব্লকচেইন কী?

কোনো ব্লকচেইন হল একটি বিশেষ ধরনের ডেটাবেজ যেখানে ডেটা শুধুমাত্র যোগ করা যায় (আর সরানো বা পরিবর্তন করা যায় না)। লেনদেনগুলো পর্যায়ক্রমে একটি ব্লকচেইনে যুক্ত করা হয় যাকে আমরা ব্লক বলি (যেটি লেনদেনের তথ্য ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ মেটাডেটা দিয়ে তৈরি)।

আমরা এই কাঠামোটিকে চেইন বলি কারণ প্রতিটি ব্লকের মেটাডেটাতে তথ্যের একটি অংশ থাকে যা এটিকে আগেরটির সাথে লিংক করে। নির্দিষ্টভাবে বললে, এটিতে পূর্ববর্তী ব্লকের একটি হ্যাশ রয়েছে, যা আপনি একটি ইউনিক ডিজিটাল ফিঙ্গারপ্রিন্টের মতো করে ভাবতে পারেন। 

কোনো হ্যাশ ফাংশন থেকে দুই টুকরো ডেটার একই আউটপুট দেয়ার সম্ভাবনা অসীমভাবে কম। এই কারণে, কেউ যদি পুরানো কোনো ব্লক পরিবর্তন করার চেষ্টা করে, তার হ্যাশ ভিন্ন হবে, যার অর্থ পরবর্তী ব্লকের হ্যাশও ভিন্ন হবে। প্রক্রিয়াটি এমন। সুতরাং কোনো ব্লক পরিবর্তন করা হয়েছে কিনা তা স্পষ্ট হয়ে যায়, কারণ এটির পরে আসা সকল ব্লকগুলোও পরিবর্তিত হতে হবে।


ব্লকচেইন কিভাবে পূর্ববর্তী ব্লকের হ্যাশ ব্যবহার করে পরবর্তী ব্লক তৈরি করে

প্রতিটি ব্লকের হ্যাশ পরবর্তী ব্লকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এটি ব্লকের চেইন বা ব্লকচেইন গঠন করে।


ব্লকচেইন সম্পূর্ণরূপে নেটওয়ার্ক অংশগ্রহণকারীদের দ্বারা ডাউনলোড করা হয়। আপনার কি মনে আছে আমরা বলেছিলাম যে যেকেউ পাবলিক-কী ক্রিপ্টোগ্রাফি দিয়ে লেনদেন ও স্বাক্ষর যাচাই করতে পারে? কোনো নোড যখন কোনো ব্লক পায়, তখন এটি বেশ কয়েকটি পরীক্ষা করে। কোনো কিছু অবৈধ হলে ব্লকটি প্রত্যাখ্যাত হয়।

কোনো নোড একটি বৈধ ব্লক পেলে সেটির তার নিজস্ব অনুলিপি তৈরি করে এবং তারপর সেই ব্লকটিকে অন্য নোডগুলোতে পাঠিয়ে দেয়। পুরো নেটওয়ার্ক জুড়ে ছড়িয়ে না পড়া পর্যন্ত সেগুলোও একই কাজ করতে থাকে। এই প্রক্রিয়াটি অনিশ্চিত লেনদেনের জন্যও পরিচালিত হয় - অর্থাৎ, যে লেনদেন সম্প্রচার করা হয়েছে, কিন্তু এখনও ব্লকচেইনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

আরো দেখুন: ব্লকচেইন প্রযুক্তি কী? আলটিমেট গাইড


ব্লক কিভাবে কোনো ব্লকচেইন যোগ করা হয়?

কোনো ব্লকচেইনের অখণ্ডতা নষ্ট হয় যদি মিথ্যা আর্থিক তথ্য রেকর্ড করা যায়। পাশাপাশি, বন্টন ব্যবস্থায় কোনো প্রশাসক বা নেতা নেই যে লেজার রক্ষণাবেক্ষণ করে – তাহলে আমরা কিভাবে নিশ্চিত করবো যে অংশগ্রহণকারীরা সৎভাবে কাজ করছে?

সাতোশি একটি প্রুফ অফ ওয়ার্ক সিস্টেমের প্রস্তাব করেছিলেন, যা যে কাউকে ব্লকচেইনে যুক্ত করার জন্য একটি ব্লকের পরামর্শ দিতে পারে। কোনো ব্লক সামনে এগিয়ে দেওয়ার জন্য, ব্যবহারকারীদের অবশ্যই প্রোটোকল দ্বারা নির্ধারিত একটি চ্যালেঞ্জে অনুমান করতে কম্পিউটারের শক্তি ত্যাগ করতে হবে।

প্রুফ অফ ওয়ার্ক ব্যবহারকারীদের মধ্যে কনসেনশাস অর্জনের সবচেয়ে পরীক্ষিত ও প্রমাণিত স্কিম, কিন্তু এটি কোনোভাবেই একমাত্র স্কিম নয়। স্ট্যাকের প্রমাণের মতো বিকল্পগুলো ক্রমবর্ধমানভাবে অন্বেষণ করা হচ্ছে, যদিও তারা এখনও তাদের প্রকৃত রূপে যথাযথ বাস্তবায়ন দেখতে পায়নি (যদিও হাইব্রিড কনসেনশাস প্রক্রিয়া অনেক সময় ধরেই বিদ্যমান আছে)।

আরো দেখুন: ব্লকচেইন কনসেনসাস অ্যালগরিদম কী?


ক্রিপ্টো মাইনিং কিভাবে কাজ করে?

খুচরা বিক্রেতাদের হিটম্যাপ


উপরে উল্লিখিত প্রক্রিয়াটি মাইনিং হিসেবে পরিচিত। কোনো মাইনার একটি সমাধান খুঁজে পেলে সে যে ব্লকটি তৈরি করেছিল তা চেইনটিকে সম্প্রসারিত করবে। ফলস্বরূপ, তারা ব্লকচেইনের নেটিভ কারেন্সিতে একটি পুরস্কার পাবে।

ক্রিপ্টোগ্রাফিক পাজল মাইনারদেরকে যা অবশ্যই সমাধান করতে হবে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে একটি নির্দিষ্ট মানের নীচে পড়ে এমন একটি ডেটা বারবার হ্যাশ করা। ওয়ান-ওয়ে ফাংশন দিয়ে হ্যাশ করা মানে হল আউটপুট থাকলেও, ইনপুট অনুমান করা কার্যত অসম্ভব। কিন্তু ইনপুট দেওয়া হলে আউটপুট যাচাই করা একদম সহজ। এইভাবে, যেকোনো অংশগ্রহণকারী মাইনার একটি 'সঠিক' ব্লক তৈরি করলে সেটি যাচাই করতে পারে এবং যেগুলো অবৈধ তা প্রত্যাখ্যান করতে পারে। এই ক্ষেত্রে, মাইনার কোনো পুরস্কার পায় না আর একটি অবৈধ ব্লক তৈরি করার চেষ্টা করে রিসোর্স নষ্ট করে।

এর ফলে কিছু মজার গেম থিওরি দেখা দেয় যা একজন ব্যক্তির জন্য প্রতারণা করার চেষ্টা করাকে ব্যয়বহুল করে তোলে, কিন্তু সৎভাবে কাজ করা হয়ে ওঠে লাভজনক। কোনো ক্ষতিকর সত্তারই অনির্দিষ্টকালের জন্য একটি শক্তিশালী নেটওয়ার্ক আক্রমণ করার সংস্থান নেই। অতএব, আমরা আশা করি যাদের রিসোর্স আছে তারা সঠিকভাবে অংশগ্রহণ করে তাদের বিনিয়োগের বিপরীতে আয় করবে।

আরো দেখুন: ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং কী?


ক্রিপ্টোকারেন্সি স্কেল করা যায়?

আপনি সম্ভবত বুঝতে পারছেন যে ডিস্ট্রিবিউটেড নেটওয়ার্কগুলো খুব দক্ষ নয়। দুর্ভাগ্যবশত, ক্রিপ্টোকারেন্সি শুধুমাত্র নিরাপদ ও সেন্সরশিপ-প্রতিরোধী হতে পারে যদি সকল নোড ব্লকচেইনের একটি অনুলিপি সিঙ্ক করতে পারে। গতি বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনীয়তা যত কম হবে, মানুষের জন্য যোগদান করা তত সহজ হবে। 

আপনি বুঝতেই পারছেন কেন প্রতি দশ মিনিটে একটি ছোট ব্লক যোগ করা, প্রতি পাঁচ মিনিটে বিশাল একটি ব্লক যোগ করা কোনো ব্লকচেইনের তুলনায় অধিক পছন্দনীয়। দ্বিতীয়টির ক্ষেত্রে, সিঙ্কে থাকার জন্য উচ্চ-শক্তিসম্পন্ন কম্পিউটার চালানো নোডের প্রয়োজন হবে এবং নিম্ন-শক্তিসম্পন্ন কম্পিউটারগুলোকে অফলাইনে পাঠাবে। নেটওয়ার্কে কম পিয়ার থাকায় অধিক সেন্ট্রালাইজেশন হবে।

কিন্তু ছোট ব্লকের ক্ষেত্রে, আমরা প্রতি সেকেন্ডে বহু লেনদেন (TPS) করতে পারি না। এর মানে হল, ব্যস্ত সময়ে লেনদেনগুলো ব্লকচেইনে যুক্ত হতে কিছুটা সময় নিতে পারে। দ্রুত পেমেন্ট করতে চাইলে এটি সুবিধাজনক নয়, তবে ডিসেন্ট্রালাইজেশনের জন্য এই মূল্য দিতেই হবে।

আমরা এই সমস্যাটিকে স্কেলেবিলিটির উভয় সঙ্কট বলি। কোনো একটি সিস্টেম ভালোভাবে স্কেল হয়েছে কিনা তা বোঝা যায় সেটি যদি ন্যূনতম ডাউনসাইড নিয়ে বর্ধিত থ্রুপুটের সাথে সহজেই মানিয়ে নিতে পারে। ব্লকচেইনগুলো ভালভাবে স্কেল করে না – যেমনটি আমরা ব্যাখ্যা করেছি, কেবল বড় ব্লকগুলো দিয়ে থ্রুপুট বৃদ্ধি করা ডিস্ট্রিবিউটেড নেটওয়ার্কের সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যকে খাটো করে।

নেটওয়ার্কের ডিসেন্ট্রালাইজেশনের ক্ষতি না করে এমনভাবে TPS বাড়ানোর জন্য, অফ-চেইন স্কেলিং একটি কার্যকর পদ্ধতি বলে মনে হয়। এটির মধ্যে বিস্তৃত পরিসরের সমাধান অন্তর্ভুক্ত রয়েছে – সেন্ট্রালাইজড ও ডিসেন্ট্রালাইজড – যা ব্লকচেইনে লগ না করেই লেনদেন করার সুযোগ দেয়।

অফ-চেইন স্কেলেবিলিটির কিছু উদাহরণ সম্পর্কে আরো জানুন : ব্লকচেইন স্কেলেবিলিটি: সাইডচেইন ও পেমেন্ট চ্যানেল


ক্রিপ্টোকারেন্সি সফ্টওয়্যারের জন্য সিদ্ধান্ত কে গ্রহণ করে?

ক্রিপ্টোকারেন্সি নেটওয়ার্কগুলো ইচ্ছা ভিত্তিক। আপনি চান না এমন সফটওয়্যার চালাতে কেউ আপনাকে বাধ্য করছে না। কোনো ভাল প্রোটোকলে, কোডটি সম্পূর্ণরূপে ওপেন সোর্স হবে যাতে ব্যবহারকারীরা সিস্টেমের ন্যায্যতা ও নিরাপত্তা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারেন।

সাধারণত, ক্রিপ্টোকারেন্সি যে কাউকে তাদের উন্নয়নে অংশগ্রহণ করতে সক্ষম করে। কোডের নতুন বৈশিষ্ট্য বা সম্পাদনাগুলো সম্মত হওয়ার ও প্রকাশ করার আগে ডেভলপারদের একটি কমিউনিটি দ্বারা যাচাই করা হয়। সেখান থেকে, ব্যবহারকারীরা নিজেরাই কোডটি পর্যালোচনা করতে পারেন ও এটি চালানো বা না চালানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারেন। 

কিছু কিছু আপডেট পূর্ব সংস্করণের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হবে, যার অর্থ আপডেট হওয়া কিছু কিছু নোড পুরানোগুলোর সাথেও যোগাযোগ করবে। অন্যগুলো পূর্ব সংস্করণের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হবে না – পুরানো নোডগুলো আপডেট না হলে নেটওয়ার্ককে থেকে "বের করে" দেয়া হবে। এটির ব্যাখ্যার জন্য হার্ড ফর্কস ও সফট ফর্কস দেখুন।



অধ্যায় 3 - ক্রিপ্টোকারেন্সিতে আমি কিভাবে বিনিয়োগ করতে পারি?

বিষয়বস্তু


আমার কোনো ক্রিপ্টোকারেন্সি কেনা উচিত?

এটি এমন একটি সিদ্ধান্ত যা শুধুমাত্র আপনিই নিতে পারেন – আপনার নিজের গবেষণা করে (DYOR) আপনার নিজের বিশ্লেষণের উপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। এর পাশাপাশি, বহু ট্যুল রয়েছে যা আপনাকে আরো ভাল সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, Binance গবেষণা স্বতন্ত্র প্রজেক্টের উপর পুঙ্খানুপুঙ্খ প্রতিবেদনসহ মার্কেটের চমৎকার অন্তর্দৃষ্টি ও বিশ্লেষণ প্রদান করে।

আপনি কোন ক্রিপ্টোকারেন্সি কিনবেন তা মূল্যায়ন করতে সক্ষম হতে চাইলে, বিটকয়েন কিভাবে কাজ করে তা প্রথমে বোঝা আপনার জন্য একেবারে অপরিহার্য। সুখবর, ঠিক এই কারণেই আমরা আমাদের বিটকয়েন কী? গাইড তৈরি করেছি! 


ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগ করার আগে আমার কী শিখতে হবে?

কোথায় যে শুরু করি? আর্থিক মার্কেট বিশ্লেষণ করার জন্য অগণিত উপায় রয়েছে এবং সাধারণত, অধিকাংশ পেশাদার বিনিয়োগকারীরা ব্যাপকভাবে বিভিন্ন কৌশল ব্যবহার করবে। যদিও উচ্চ স্তরে, বিনিয়োগের মূল্যায়ন করার জন্য দুটি প্রধান চিন্তাধারা রয়েছে: মৌলিক বিশ্লেষণ (FA)প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ (TA)

মৌলিক বিশ্লেষণ হল মূলত অর্থনৈতিক ও আর্থিক কারণের উপর ভিত্তি করে অ্যাসেটের মূল্যায়ন করার একটি পদ্ধতি। যে বিশ্লেষকগণ এই পদ্ধতিটি ব্যবহার করেন তারা সামষ্টিক অর্থনৈতিক ও ব্যাষ্টিক অর্থনৈতিক কারণ, শিল্পের অবস্থা বা অ্যাসেটের অন্তর্নিহিত ব্যবসার (যদি থাকে) দিকে নজর দেন। ক্রিপ্টোকারেন্সির ক্ষেত্রে, তারা পাবলিক ব্লকচেইন ডেটার দিকেও নজর দিতে পারেন, যেগুলোকে কখনও কখনও অন-চেইন মেট্রিক্স হিসেবে উল্লেখ করা হয়। 

এতে লেনদেনের সংখ্যা, ঠিকানা, শীর্ষ হোল্ডার, নেটওয়ার্ক হ্যাশ রেট ও অগণিত অন্যান্য তথ্যের দিকে নজর দেওয়ার বিষয় সংশ্লিষ্ট থাকতে পারে। এই বিশ্লেষণের লক্ষ্য হল অ্যাসেটের একটি ভ্যালুয়েশন করা এবং এটির বর্তমান ভ্যালুয়েশন সাথে তুলনা করা। সব শেষে, এই পদ্ধতির লক্ষ্য হল অ্যাসেটটি বর্তমানে অবমূল্যায়িত না অতিমূল্যায়িত তা নির্ধারণ করা।

পাশাপাশি, এটি মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে ক্রিপ্টোকারেন্সি হল একটি নতুন ও সমৃদ্ধশালী অ্যাসেট শ্রেণী। ভ্যালুয়েশন নির্ধারণের ক্ষেত্রে মৌলিক বিশ্লেষণের কার্যকারিতা সামান্যই। সহজ কথায়, ক্রিপ্টোকারেন্সির ভ্যালুয়েশন নির্ধারণের জন্য কোনো মানসম্মত কাঠামো নেই এবং বিদ্যমান অধিকাংশ মডেলকে খুব বেশি বিশ্বাস করা যায় না। কোনো ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রজেক্টের সাফল্য বা ব্যর্থতা অনেকগুলো ভিন্ন ভিন্ন নিয়ামকের উপর নির্ভর করতে পারে যেগুলোর জন্য বর্তমান কোনো কাঠামোই দায়ী নয়।

প্রযুক্তিগত বিশ্লেষকরা একটি ভিন্ন পদ্ধতি গ্রহণ করেন। মৌলিক বিশ্লেষকদের বিপরীতে, প্রযুক্তিগত বিশ্লেষকরা কোনো অ্যাসেটের অন্তর্নিহিত মান নির্ধারণ করার চেষ্টা করেন না। পরিবর্তে, তারা অতীত ট্রেডিং কার্যকলাপের উপর ভিত্তি করে ট্রেডিং ও বিনিয়োগের সুযোগ মূল্যায়ন করে। তারা মার্কেটের শক্তি বা দুর্বলতা মূল্যায়ন করার জন্য মূল্যের গতিবিধি, চার্ট প্যাটার্ন, সূচক ও অন্যান্য বিভিন্ন চার্টিং ট্যুলের উপর ফোকাস করে তা করে। মোদ্দা কথা হল, প্রযুক্তিগত বিশ্লেষকরা মনে করেন যে কোনো অ্যাসেটের অতীত মূল্যের গতিবিধি তার ভবিষ্যৎ মূল্য ওঠানামার পূর্বাভাস দেওয়ার জন্য কার্যকর হতে পারে।

প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ যেহেতু ঐতিহাসিক ডেটা থাকা যেকোনো মার্কেটে প্রয়োগ করা যেতে পারে, তাই ক্রিপ্টোকারেন্সি ট্রেডারগণ এটি ব্যাপকভাবে ব্যবহার করে।

তাহলে, আপনি কোনটি শিখবেন? সেক্ষেত্রে, দুটোই নয় কেন? অধিকাংশ মার্কেট বিশ্লেষণের ট্যুল অন্যান্য ট্যুলগুলোর সাথে একত্রে ব্যবহার করা হলে সবচেয়ে ভালো কাজ করে। উভয় ক্ষেত্রেই, আর্থিক ঝুঁকিঝুঁকি ব্যবস্থাপনা বোঝা একেবারেই অত্যাবশ্যক এবং সামর্থ্যের চেয়ে বেশি বিনিয়োগ করবেন না।


ক্রিপ্টোকারেন্সি কোথায় কিনতে হবে

ক্রিপ্টোকারেন্সি কেনার বিভিন্ন উপায় রয়েছে। যদিও আপনাকে প্রথমে যা করতে হবে তা হল আপনার ফিয়াট মুদ্রাকে ক্রিপ্টোকারেন্সিতে রূপান্তর করতে হবে। এরপর, আপনি HODL করা বেছে নিতে পারেন, এটিকে অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সির সাথে ট্রেড করতে পারেন অথবা এটিকে ধার দিয়ে সুদ উপার্জন করতে পারেন। চলুন বিভিন্ন ধরনের ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জ দেখে নেওয়া যাক।


সেন্ট্রালাইজড এক্সচেঞ্জ (CEX)

আপনার কাছে সেন্ট্রালাইজড এক্সচেঞ্জের ধারণাটিকে কিছুটা বিভ্রান্তিকর মনে করতে পারেন কারণ ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোকে প্রায়শই ডিসেন্ট্রালাইজড হিসেবে উল্লেখ করা হয়। সংক্ষেপে, সেন্ট্রালাইজড এক্সচেঞ্জ হল অনলাইন প্ল্যাটফর্ম যা ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সাথে সংযোগ স্থাপনের মাধ্যমে লেনদেন সহজতর করে।

ব্যবহারকারীরা তাদের ফিয়াট অর্থ বা ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জে জমা করে এটির অভ্যন্তরীণ সিস্টেমের মধ্যে ট্রেড করার মাধ্যমে এটি কাজ করে। আপনি যদি ক্রিপ্টোকারেন্সি ওয়ালেটগুলো কিভাবে কাজ করে তার সাথে পরিচিত হন, তাহলে আপনি জানবেন যে, এই ক্ষেত্রে, আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেঞ্জের হেফাজতে থাকে। কিন্তু আপনি চাইলে আপনার ফান্ড তুলে নেওয়া ও আপনার নিজের ওয়ালেটে রাখা আপনার পক্ষে মোটামুটি সহজ হওয়া উচিত।

কেউ কেউ তাদের ফান্ড নিয়মিত ট্রেড করে বিধায় বা সুবিধার জন্য এক্সচেঞ্জে রাখতে পছন্দ করতে পারেন। তবে, এক্সচেঞ্জ যদি হ্যাক হয়, তাহলে ব্যবহারকারীর ফান্ড ঝুঁকির মধ্যে পড়তে পারে।


ডিসেন্ট্রালাইজড এক্সচেঞ্জ (DEX)

ডিসেন্ট্রালাইজড এক্সচেঞ্জ আলাদা। কোনো DEX ব্যবহার করার ক্ষেত্রে, সেখানে কোনো কাস্টোডিয়ান জড়িত থাকে না। বস্তুত, এই ধরনের এক্সচেঞ্জকে উল্লেখ করার আরেকটি সঠিক উপায় হবে নন-কাস্টোডিয়াল এক্সচেঞ্জ হিসেবে বলা।

DEX-এ ট্রেড করলে যা হয় তা হল। এক্সচেঞ্জের ওয়ালেটে আপনার ফান্ড জমা করার পরিবর্তে আপনি সরাসরি আপনার নিজের ওয়ালেট থেকে ট্রেড করছেন। কোনো ট্রেড সম্পাদিত হলে, স্মার্ট কন্ট্রাক্টের যাদু ব্যবহার করে সরাসরি ব্লকচেইনে ফান্ড ট্রান্সফার করা হয়।

যেহেতু কাস্টোডিয়ান হিসেবে কাজ করে এমন কোনো সত্তা নেই, তাই কেউ কেউ এটিকে CEXs এর চেয়ে নিরাপদ পছন্দ বলে মনে করেন। আরেকটি ইতিবাচক দিক এমন হতে পারে যে অধিকাংশ DEX এর ক্ষেত্রে, আপনাকে ব্লকচেইন ওয়ালেট ঠিকানা ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তিগত তথ্য প্রদানের প্রয়োজন হয় না। পাশাপাশি, নিজের ফান্ডের হেফাজত করার জন্য কিছু পরিমাণ প্রযুক্তিগত দক্ষতার প্রয়োজন এবং দায়িত্ব সম্পূর্ণরূপে আপনার নিজের। 


P2P এক্সচেঞ্জ

পিয়ার-টু-পিয়ার (P2P) এক্সচেঞ্জও এমন একটি জায়গা যা ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সংযুক্ত করে, কিন্তু এটি CEX ও DEX দুটো থেকেই আলাদা। এই ক্ষেত্রে, এক্সচেঞ্জ নিজে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করা ছাড়া আর কিছুই করে না এবং তারা যেভাবে সম্মত হয় সেভাবেই লেনদেন নিষ্পত্তি করতে পারে। সুতরাং, প্রতিটি আলাদা আলাদা লেনদেনের ক্ষেত্রে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের দ্বারা জমা ও নিষ্পত্তির পদ্ধতি নির্ধারণ করা যাবে। 


ক্রিপ্টোকারেন্সি কিভাবে ক্রয় করতে হয়

Binance-এ কিভাবে ক্রিপ্টোকারেন্সি ক্রয় করতে হয়

  1. Binance-এ লগ ইন করুন অথবা আপনার যদি ইতোমধ্যেই একটি অ্যাকাউন্ট না থাকে তাহলে নিবন্ধন করুন।

  2. ক্রিপ্টোকারেন্সি ক্রয় ও বিক্রয় পোর্টালে যান। 

  3. আপনি যে ক্রিপ্টোকারেন্সি কিনতে চান ও যে মুদ্রা দিয়ে আপনি পে করতে চান তা নির্বাচন করুন।

  4. আপনার পেমেন্ট পদ্ধতি নির্বাচন করুন।

  5. চাওয়া হলে, আপনার কার্ড বা ব্যাংকের বিবরণ দিন এবং পরিচয় যাচাইকরণ সম্পন্ন করুন।

  6. আপনার কাজ শেষ! আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি আপনার Binance অ্যাকাউন্টে জমা হবে।


Binance DEX-এ ক্রিপ্টোকারেন্সি কিভাবে ক্রয় করতে হয়

উপলভ্য অন্যান্য বিকল্পগুলোর তুলনায় কোনো DEX ব্যবহার করা একটু বেশি জটিল।

শুরু করার আগে আপনার যা যা লাগবে তা হল:

  1. Binance DEX এর সাথে সংযোগ করতে পারে এমন একটি ওয়ালেট (আমাদের পরামর্শ ট্রাস্ট ওয়ালেট)। 

  2. লেনদেনের ফি প্রদানের জন্য কিছু BNB


এগুলো জোগাড় হয়ে গেলে, আমাদের বিস্তারিত Binance DEX গাইডের নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন:


Binance P2P-তে কিভাবে ক্রিপ্টোকারেন্সি ক্রয় করতে হয়

  1. Binance-এ লগ ইন করুন অথবা আপনার যদি ইতোমধ্যেই একটি অ্যাকাউন্ট না থাকে তাহলে নিবন্ধন করুন।

  2. Binance P2P পোর্টালে যান।

  3. আপনি ক্রয় বা বিক্রয় করতে চান কিনা তা নির্বাচন করুন। 

  4. মুদ্রা, পেমেন্ট পদ্ধতি বা অন্যান্য ট্রেড প্রয়োজনীয়তা দ্বারা ফিল্টার করুন। 

  5. আপনার প্রয়োজনীয়তা পূরণ করে এমন একটি তালিকা নির্বাচন করুন বা আপনার নিজের তালিকা পোস্ট করুন।



অধ্যায় 4 - ক্রিপ্টোকারেন্সি সম্পর্কিত প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

বিষয়বস্তু


ক্রিপ্টোকারেন্সি কি বৈধ?

খুব অল্প কিছু দেশ ক্রিপ্টোকারেন্সি ক্রয়, বিক্রয় ও সঞ্চয় করার উপর সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। বিশ্বের অধিকাংশ দেশে, বিটকয়েন ও অন্যান্য ভার্চুয়াল মুদ্রা পুরোপুরি বৈধ। তবে শুরু করার আগে, আপনার অধিক্ষেত্রে এটি অনুমোদিত কিনা তা পরীক্ষা করা উচিত।

এটা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে ক্রিপ্টোকারেন্সির ক্রিয়াকলাপ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য প্রতিটি দেশের আলাদা আলাদা পদ্ধতি রয়েছে। নিশ্চিত করুন যে আপনি কর বা পরিপালন সম্পর্কিত কোনো নিয়ম লঙ্ঘন করছেন না।


ক্রিপ্টো কি মৃত?

is crypto dead header image


গত এক দশকে মিডিয়া শত শত বার ক্রিপ্টোকারেন্সিকে মৃত বলে ঘোষণা করেছে। অথচ এখনও, 2009 সালের মতোই এটি কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এর মানে এই নয় যে এটি অস্থির নয় – মূল্য ব্যাপক ওঠানামা করে। যারা শুধুমাত্র মুনাফা করার চেষ্টা করছেন, তাদের কাছে নিম্নমুখী বাজার হতাশাজনক হতে পারে।

তবে, ক্রিপ্টোকারেন্সিকে "মৃত" হিসেবে বর্ণনা করা ভুল হবে। এটি নতুন ব্যবহারকারীদের আকৃষ্ট করে চলেছে এবং প্রযুক্তি ও অবকাঠামো কেবল আরো পরিশীলিতই হচ্ছে।

বিটকয়েন ও ইথিরিয়ামের মূল উদ্ভাবনগুলো নিঃসন্দেহে আমাদের বিদ্যমান মুদ্রা ব্যবস্থাকে বর্তমান যুগের জন্য আরো উপযোগী করে তোলার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। অপরিবর্তনীয়তা, সেন্সরশিপ-প্রতিরোধী, আস্থাহীনতা, বা কোনো পাবলিক মুদ্রা ব্যবস্থা ব্যবহার করে প্রায়-তাত্ক্ষণিক লেনদেন ইন্টারনেটে অর্থনৈতিক কার্যকলাপের মেকানিক্সকে সম্পূর্ণরূপে পুনর্গঠন করতে পারে।


ক্রিপ্টোকারেন্সি কি নিরাপদ?

ক্রিপ্টোকারেন্সির ক্ষেত্রে কিছু মাত্রার ঝুঁকি নেয়া হয়। আপনি যদি আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস করতে পাসওয়ার্ড ভুলে যান, তাহলে আপনি শুধুমাত্র গ্রাহক সহায়তার মাধ্যমে এটি রিসেট করতে পারেন। কিন্তু, আপনার ক্রিপ্টোতে অ্যাক্সেস দেয়া প্রাইভেট কী যদি আপনি ভুলে যান বা হারিয়ে ফেলেন, তাহলে এমন কেউ নেই যে আপনাকে সাহায্য করতে পারবে। কোনো সুখ্যাত এক্সচেঞ্জের ব্যবহার আরো সহজ একটি বিকল্প হতে পারে – এটির জন্য আস্থার প্রয়োজন হয় তবে আপনার প্রাইভেট কী হারানোর ঝুঁকি থাকবে না।

পাবলিক-কী ক্রিপ্টোগ্রাফি এখনও কেউ ভাঙ্গতে পারেনি। উপযুক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা ব্যবহার করে, আপনার ফান্ড চুরি হওয়ার চেয়ে আপনার অন্য কোনো অনলাইন অ্যাকাউন্ট হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা সম্ভবত বেশি। সর্বোত্তম অনুশীলনগুলোর মধ্যে রয়েছে সাধারণ স্ক্যামগুলো সম্পর্কে সচেতন হওয়া (সোশ্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, ফিশিং, ইত্যাদি), আপনার প্রাইভেট কী-গুলো সর্বদা অফলাইনে রাখা ও সেগুলোকে একটি নিরাপদ স্থানে ব্যাক আপ করা।


ক্রিপ্টোকারেন্সি কি বেনামী?

আপনার নাম আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি ঠিকানার সাথে সংযুক্ত নয় – ব্লকচেইনে এগুলো সংখ্যা ও অক্ষরের এলোমেলো স্ট্রিংগুলোর মতো দেখায়। যদিও এটি আপনাকে বেনামী করে তোলে ধরে নেওয়ার সময় সতর্ক থাকুন। আপনি ছদ্মনাম আছেন – তবে আপনার এক ধরণের অন-চেইন পরিচয় থেকেই যায়, পার্থক্য হল আপনি বাস্তব জীবনে এটি ব্যবহার করেন না।

নির্দিষ্ট কিছু পদ্ধতি আছে যা মানুষকে আপনার ক্রিয়াকলাপের সাথে আইপি ঠিকানাগুলোকে সম্পর্কিত করার সুযোগ দিতে পারে। এই পরিস্থিতিতে, ডাস্টিং অ্যাটাক ও অন্যান্য বিশ্লেষণ কৌশলের মতো বিষয়গুলো আপনার পরিচয় প্রকাশ করার (De-anonymization) জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। মনে রাখবেন যে ব্লকচেইনগুলো মূলত বিশাল পাবলিক ডেটাবেজ। আপনি যদি আপনার গোপনীয়তা সম্পর্কে উদ্বিগ্ন হন, তাহলে আপনার লেনদেনকে আপনার নামের সাথে সম্পর্কিত করার বিষয়টি যাতে অন্যদের জন্য সর্বোচ্চ কঠিন হয় তা করার চেষ্টা করুন। বিটকয়েনের মতো ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলো ডিফল্টভাবে প্রাইভেট নয়, তবে মুদ্রার মিশ্রণ ও CoinJoins এর মতো পদ্ধতিগুলো অনুসন্ধানমূলক বিশ্লেষণকে অনির্ভরযোগ্য করতে পারে।

ক্রিপ্টোকারেন্সির কিছু ছোট উপধারা (প্রাইভেসি কয়েন নামে পরিচিত) গোপনীয় লেনদেনের মতো পদ্ধতি ব্যবহার করে লেনদেনের উৎস, গন্তব্য ও ফান্ডের পরিমাণ অস্পষ্ট করতে সক্ষম। ডিফল্টভাবে এগুলোর অধিক শক্তিশালী গোপনীয়তা রয়েছে তবে এগুলো সম্পূর্ণরূপে নাম প্রকাশের (Deanonymization) বিরুদ্ধে প্রতিরোধী নয়।


ক্রিপ্টোকারেন্সি কি মূল্যবান?

আর্থিক ব্যবস্থা, ভ্যালু হল একটি সম্মিলিত বিশ্বাস। মূল্যবান যেকোনো কিছুর মতোই, ভ্যালু ক্রিপ্টোকারেন্সির অন্তর্নিহিত নয় – এটি মানুষের দ্বারা নির্ধারিত। অন্য কথায়, কোনো কিছুর মূল্য রয়েছে যদি সেটি মানুষ বিশ্বাস করে। মূল্যবান বস্তুটি কি মূল্যবান ধাতু, কাগজের টুকরো বা ডেটাবেজের কিছু বিট কিনা, তা নির্বিশেষেই এটি সত্য।

যা হোক, কেউ কেউ ক্রিপ্টোকারেন্সি ও বিটকয়েনকে একটি দুষ্প্রাপ্য ডিজিটাল পণ্যের মতো বিবেচনা করে। এর পূর্বাভাসযোগ্য ইস্যুর হার ও আর্থিক নীতির কারণে, কেউ কেউ যুক্তি দেন যে বিটকয়েন ভবিষ্যতে মূল্যের ভাণ্ডার হিসেবে কাজ করতে পারে, সোনার মতো। বিটকয়েন মাত্র এক দশকের বেশি সময় ধরে বিদ্যমান থাকায়, এই প্রসঙ্গে এটি সময়ের পরীক্ষায় দাঁড়াতে পারবে কিনা তা এখনও দেখার বিষয়।


সকল ডিজিটাল মুদ্রাই কি ক্রিপ্টোকারেন্সি?

না। আপনি হয়তো শুনে থাকবেন যে অনেক রাষ্ট্র ও কেন্দ্রীয় ব্যাংক তাদের নিজস্ব ডিজিটাল মুদ্রার সংস্করণ তৈরি করার জন্য কাজ করছে। তবে, এগুলো কেবল – ডিজিটাল মুদ্রা। প্রকৃতপক্ষে, এগুলোকে প্রায়ই সমষ্টিগতভাবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ডিজিটাল মুদ্রা (CBDCs) হিসেবে উল্লেখ করা হয়। এগুলো মূলত ফিয়াট অর্থের ডিজিটাল সংস্করণ এবং তারা ক্রিপ্টোকারেন্সির অধিকাংশ সুবিধা উপভোগ করে না। এগুলো কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক ইস্যুকৃত ও ঘোষিত আইনী দরপত্র এবং সাধারণত লেনদেনের রেকর্ড রাখার জন্য কোনো ব্লকচেইনের মতো বণ্টিত লেজার ব্যবহার করে না।

আপনি হয়তো Facebook Libra সম্পর্কেও শুনেছেন, আরেক ধরনের ডিজিটাল মুদ্রা। ইতিবাচক দিক হচ্ছে, এটিকে একটি ওপেন-সোর্স ব্লকচেইন সিস্টেমে তৈরির পরিকল্পনা করা হয়েছে। তবে, এটি বিটকয়েন বা ইথিরিয়ামের মতো অনুমতিবিহীন হবে না, যার অর্থ হল এটি ব্যবহার করার জন্য অংশগ্রহণকারীদের একটি সাধারণ ইন্টারনেট সংযোগের চেয়ে আরো বেশি কিছু প্রয়োজন হবে। এছাড়াও, প্রজেক্ট ও এর ক্রিয়াকলাপ চালনা ও পরিচালনা করা হবে কিছু নির্বাচিত সদস্যদের নিয়ে গঠিত একটি সমিতি দ্বারা।

সুতরাং, ব্লকচেইন বা ক্রিপ্টোগ্রাফি ব্যবহার করে CBDC ও ডিজিটাল অর্থ উপার্জনের অন্যান্য রূপ থাকা সত্ত্বেও, সেগুলো বিটকয়েনের মতো ক্রিপ্টোকারেন্সি থেকে বেশ আলাদা।


একটি ক্রিপ্টোকারেন্সির মার্কেট মূলধন কী?

আপনি যখন কোনো ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্য দেখছেন, তখন আপনি শুধুমাত্র আংশিক চিত্র দেখতে পাচ্ছেন। এই তথ্যের সমান গুরুত্বপূর্ণ মেট্রিকটি হল সেই ক্রিপ্টোকারেন্সির কতগুলো পৃথক ইউনিট সেখানে বিদ্যমান, অর্থাৎ সরবরাহ। 

আরো নির্দিষ্টভাবে বললে, কোনো ক্রিপ্টোকারেন্সি নেটওয়ার্কের মূল্যায়ন করার জন্য, আপনাকে এই মুহূর্তে কতগুলো পৃথক ইউনিট বিদ্যমান আছে তা জানতে হবে। একে বলা হয় সঞ্চালন সরবরাহ। ভিন্ন ভিন্ন ক্রিপ্টোকারেন্সি ইস্যু করার জন্য ভিন্ন ভিন্ন সময়সূচী গ্রহণ করতে পারে, তাই প্রতিটি নেটওয়ার্কের সাথে ইস্যু করা কিভাবে কাজ করে তা বোঝা গুরুত্বপূর্ণ।

মার্কেট মূলধন (বা মার্কেট ক্যাপ) হল সঞ্চালিত সরবরাহ দ্বারা একটি পৃথক ইউনিটের গুনফলের মূল্য।


মার্কেট ক্যাপিটালাইজেশন = সঞ্চালিত সরবরাহ*মূল্য


আপনি হয়ত বুঝতে পারছেন যে, একটি পৃথক ইউনিটের মূল্যের চেয়ে কোনো ক্রিপ্টোকারেন্সি নেটওয়ার্কের মার্কেট মূলধন হল নেটওয়ার্কে মূল্যের আরো সঠিক উপস্থাপনা। কোনো কম মূল্যের কয়েন কিন্তু উচ্চতর সঞ্চালিত সরবরাহের কোনো নেটওয়ার্কের মোট ভ্যালুয়েশন (মার্কেট ক্যাপ) কোনো উচ্চ মূল্যের কয়েন কিন্তু সঞ্চালন সরবরাহ কম থাকা কোনো নেটওয়ার্কের থেকে বেশি হতে পারে। এবং কিছু নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে বিপরীতটিও সত্য হতে পারে।

তবে এটি মনে রাখতে কাজে দিবে যে, মার্কেট মূলধন কোনো নির্দিষ্ট মার্কেটে কত টাকা প্রবেশ করেছে সেটির প্রতিনিধিত্ব করে না। উদাহরণস্বরূপ, নতুনদের মধ্যে একটি সাধারণ ভুল ধারণা এই যে বিটকয়েনের মার্কেট ক্যাপ দিয়ে বিটকয়েনে বিনিয়োগ করা মোট অর্থের পরিমাণ বোঝায়। কিন্তু সেটার কোনো মানে হয় না কারণ মার্কেট ক্যাপ নির্ভর করে মূল্য ও সরবরাহের ওপর।


আমাকে লেনদেনের ফি দিতে হবে কেন?

আপনি যদি কোনো বিটকয়েন অন্য ঠিকানায় পাঠান, তাহলে আপনি লক্ষ্য করবেন যে ঠিকানাটি আপনার পাঠানোর চেয়ে সামান্য কম পরিমাণ পায়। এর কারণ হল এই যে ব্লকচেইনে আপনার লেনদেন যোগ করার জন্য আপনি মাইনারদেরকে পুরস্কৃত করার জন্য একটি ছোট ফি প্রদান করেন। 

অনেক ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারকারীদের নেটওয়ার্ক সুরক্ষিত করতে উৎসাহিত করার জন্য একই ধরনের প্রক্রিয়া ব্যবহার করে। প্রুফ অফ ওয়ার্ক সিস্টেমে, লেনদেন ফি সাধারণত ব্লক পুরস্কার গঠনের জন্য সদ্য-মিন্ট করা কয়েনের সাথে (ব্লক ভর্তুকি) একত্রে থাকে।

লেনদেনের কতটা জরুরি তার উপর নির্ভর করে আপনি আপনার ফি সমন্বয় করতে পারেন। বিচক্ষণ মাইনাররা সর্বদা সর্বোচ্চ আয় করার চেষ্টা করবে, তাই তারা উচ্চ ফি এর লেনদেনকে অগ্রাধিকার দেবে। গড় ফি সম্পর্কে ধারণা পেতে আপনি বর্তমানে পেন্ডিং থাকা লেনদেনগুলো দেখতে পারেন ও সেই অনুযায়ী আপনার নিজস্বটি সেট করতে পারেন।


আমি আমার কী হারিয়ে ফেলেছি। আমি কি আমার ফান্ড ফেরত পাবো?

আপনি যদি নিশ্চিত হন যে আপনি আপনার কী হারিয়েছেন, তাহলে সম্ভাবনা আছে যে আপনি সেগুলো আর কখনোই ফিরে পাবেন না। ক্রিপ্টোকারেন্সির বড় সুবিধা হল আর্থিক লেনদেন পরিচালনা থেকে কাস্টোডিয়ান ও মধ্যস্বত্বভোগীদের অপসারণ করা। তবে এর নেতিবাচক দিক হল, দায়িত্ব এখন সম্পূর্ণ আপনার হাতে। তাই আপনার প্রাইভেট কীগুলো যাতে না হারায় সেজন্য আপনাকে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে, কারণ সেগুলোই আপনাকে আপনার ফান্ডের মালিকানা দেয়। 


ক্রিপ্টোকারেন্সির ভবিষ্যৎ কী?

ক্রিপ্টোকারেন্সির ভবিষ্যৎ কেমন হবে তা সম্পূর্ণরূপে নির্ভর করে আপনি কাকে জিজ্ঞাসা করছেন তার উপর। কেউ কেউ বিশ্বাস করেন যে ডিজিটাল যুগে বিটকয়েন সোনাকে প্রতিস্থাপন করবে ও বিদ্যমান আর্থিক ব্যবস্থাকে ভেঙে দিবে। অন্যরা যুক্তি দেয় যে ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলো সর্বদা একটি সেকেন্ডারি ব্যবস্থা হিসেবে থাকবে, নিশ মার্কেট হিসেবে। আমাদের কাছে এমনও বিশ্বাসের মানুষের খবরও আছে যারা মনে করেন যে ইথিরিয়াম একটি ডিস্ট্রিবিউটেড কম্পিউটার হয়ে উঠবে, একটি নতুন ইন্টারনেটের মেরুদণ্ড হিসেবে কাজ করবে।

সংশয়বাদীরা ভবিষ্যদ্বাণী করে যে শিল্পটি শেষ পর্যন্ত ধসে পড়বে, আর উৎসাহীগণ ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলো নিশ আর্থিক ব্যবস্থায় থাকলেই খুশি। সম্ভাব্য অনেক পরিণতি রয়েছে – এখন থেকে এক বছর পরে কী ঘটবে সেটি নিশ্চিত করে বলাও খুব দ্রুত বলা হয়ে যাবে। তবে আমরা অস্বীকার করতে পারি না যে প্রবৃদ্ধির বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে।