মুভিং অ্যাভারেজের ব্যাখ্যা
সুচিপত্র
বিভিন্ন ধরণের মুভিং অ্যাভারেজ
সিম্পল মুভিং অ্যাভারেজ
এক্সপোনেন্সিয়াল মুভিং অ্যাভারেজ
মুভিং অ্যাভারেজ কিভাবে ব্যবহার করতে হয়
ক্রসওভার সিগন্যাল
অন্যান্য বিবেচ্য কারণসমূহ
শেষ কথা
হোম
নিবন্ধ
মুভিং অ্যাভারেজের ব্যাখ্যা

মুভিং অ্যাভারেজের ব্যাখ্যা

প্রকাশিত হয়েছে Nov 29, 2018আপডেট হয়েছে Oct 4, 2022
5m

ট্রেডিং ও বিনিয়োগের জগতে প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ (TA) নতুন কিছু নয়। প্রচলিত পোর্টফোলিও থেকে শুরু করে বিটকয়েন ও ইথিরিয়ামের মতো ক্রিপ্টোকারেন্সি পর্যন্ত, TA সূচকগুলোর ব্যবহারের একটি সহজ লক্ষ্য রয়েছে: বিদ্যমান ডেটা ব্যবহার করে আরো অবহিত সিদ্ধান্ত নেওয়া যা হয়ত কাঙ্ক্ষিত ফলাফলের দিকে নিয়ে যাবে। মার্কেটগুলো ক্রমবর্ধমানভাবে আরো জটিল হয়ে ওঠার পরিক্রমায়, বিগত দশকগুলো বিভিন্ন ধরণের শত শত TA সূচক তৈরি করেছে, কিন্তু খুব কমই মুভিং অ্যাভারেজ (MA) এর জনপ্রিয়তা ও ধারাবাহিক ব্যবহার দেখেছে।

মুভিং অ্যাভারেজগুলোর বিভিন্ন বৈচিত্র থাকলেও তাদের অন্তর্নিহিত উদ্দেশ্য হল ট্রেডিং চার্টে স্বচ্ছতা আনা। সহজে ব্যাখ্যাযোগ্য একটি প্রবণতার সূচক তৈরি করতে গ্রাফকে মসৃণ করার মাধ্যমে এটি করা হয়। এই মুভিং অ্যাভারেজগুলো অতীত ডেটার উপর নির্ভর করায়, এগুলোকে পিছিয়ে থাকা বা প্রবণতা অনুসরণকারী সূচক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তা সত্ত্বেও, তাদের এখনও কোনো মার্কেট জটিলতা কাটিয়ে কোথায় যাচ্ছে তা নির্ধারণে সহায়তা করার দুর্দান্ত শক্তি রয়েছে।


বিভিন্ন ধরণের মুভিং অ্যাভারেজ

বিভিন্ন ধরণের মুভিং অ্যাভারেজ রয়েছে যা ট্রেডাররা শুধুমাত্র ডে ট্রেডিং ও সুইং ট্রেডিংই নয় বরং দীর্ঘমেয়াদী সেটআপেও ব্যবহার করতে পারেন। ধরণের ভিন্নতা থাকা সত্ত্বেও, MA-গুলোকে মূলত দুটি বিভাগে বিভক্ত করা হয়: সিম্পল মুভিং অ্যাভারেজ (SMA) ও এক্সপোনেন্সিয়াল মুভিং অ্যাভারেজ (EMA)। মার্কেট ও পছন্দসই ফলাফলের উপর নির্ভর করে, কোন সূচকটির তাদের সেটআপকে সাহায্য করার সম্ভাবনা রয়েছে ট্রেডাররা তা বেছে নিতে পারেন।


সিম্পল মুভিং অ্যাভারেজ

SMA একটি নির্দিষ্ট সময়ের সীমা থেকে ডেটা নেয় ও ডেটাসেটের জন্য সেই সিকিউরিটির গড় মূল্য তৈরি করে। SMA ও অতীত মূল্যের মৌলিক গড়ের মধ্যে পার্থক্য হল যে SMA-এর ক্ষেত্রে, নতুন কোনো ডেটা সেট প্রবেশ করা মাত্রই আগের ডেটা সেটটিকে উপেক্ষা করা হয়। তাই সিম্পল মুভিং অ্যাভারেজ যদি 10 দিনের মূল্যের ডেটার উপর ভিত্তি করে গড় গণনা করে, তাহলে সম্পূর্ণ ডেটা সেটটি শুধুমাত্র শেষ 10 দিনকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ক্রমাগত আপডেট হতে থাকে।

এটি লক্ষ্য করা গুরুত্বপূর্ণ যে SMA-তে সকল ডেটা ইনপুট সমানভাবে মূল্যায়ন (Weight) করা হয়, সেগুলো কত সম্প্রতি ইনপুট করা হয়েছে তা নির্বিশেষেই। যে সকল ট্রেডাররা বিশ্বাস করেন যে নতুন উপলভ্য ডেটার সাথে প্রাসঙ্গিকতা বেশি তারা প্রায়শই বলে থাকেন যে SMA-এর সমান মূল্যায়ন প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণের জন্য ক্ষতিকর। এই সমস্যার সমাধানের জন্য এক্সপোনেন্সিয়াল মুভিং অ্যাভারেজ (EMA) তৈরি করা হয়।


এক্সপোনেন্সিয়াল মুভিং অ্যাভারেজ

EMA ও SMA-এর সাদৃশ্য এখানে যে এই দুটোই অতীতের দামের ওঠানামার উপর ভিত্তি করে প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ প্রদান করে। তবে, সমীকরণটি একটু বেশি জটিল কারণ EMA সাম্প্রতিক মূল্যের ইনপুটগুলোর জন্য অধিক মূল্যায়ন ও ভ্যালু নির্ধারণ করে। এই দুটো গড়েরই মূল্য রয়েছে ও ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হলেও, EMA আকস্মিক মূল্যের ওঠানামা ও রিভার্সালে অধিক সক্রিয়।

দ্রুত মূল্যের রিভার্সালের অনুমান করার সম্ভাবনা যেহেতু SMA-এর চেয়ে EMA-এর বেশি, তাই বিশেষত স্বল্পমেয়াদী ট্রেডিংয়ে জড়িত ট্রেডারদের কাছে এটি প্রায়শই অধিক পছন্দের হয়। কোনো ট্রেডার বা বিনিয়োগকারীর জন্য তার ব্যক্তিগত কৌশল ও লক্ষ্য অনুযায়ী মুভিং অ্যাভারেজের ধরণ বেছে নেওয়া, সেই অনুযায়ী সেটিংস সমন্বয় করা গুরুত্বপূর্ণ।


মুভিং অ্যাভারেজ কিভাবে ব্যবহার করতে হয়

MA বর্তমান মূল্যের পরিবর্তে অতীতের মূল্য ব্যবহার করার কারণে একটি নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধান থাকে। ডেটা সেট যত বেশি বিস্তৃত হবে, ল্যাগ তত বেশি হবে। উদাহরণস্বরূপ, যে মুভিং অ্যাভারেজটি বিগত 100 দিনের বিশ্লেষণ করে সেটি নতুন তথ্যের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র বিগত 10 দিন বিবেচনা করা কোনো MA-এর তুলনায় অনেক বেশি ধীরে সাড়া দেবে। এটি হয় কারণ কোনো বড় ডেটাসেটে নতুন কোনো এন্ট্রি সামগ্রিক সংখ্যার উপর ছোট প্রভাব ফেলবে।

ট্রেডিং সেটআপের উপর নির্ভর করে দুটোই সুবিধাজনক হতে পারে। বড় ডেটা সেট দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগকারীদের উপকৃত করে কারণ মূল্যের একটি বা দুটি বড় ওঠানামার কারণে তাদের ব্যাপক পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা কম। স্বল্পমেয়াদী ট্রেডাররা প্রায়শই ছোট ডেটা সেটের পক্ষে থাকে যা অধিক প্রতিক্রিয়াশীল ট্রেডিংয়ের সুযোগ প্রদান করে।

প্রথাগত মার্কেটের মধ্যে, 50, 100 ও 200 দিনের MA সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়। 50-দিন ও 200-দিনের মুভিং অ্যাভারেজগুলো স্টক ট্রেডাররা ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করেন এবং এই লাইনের উপরের বা নীচের যেকোনো ব্রেক সাধারণত গুরুত্বপূর্ণ ট্রেডিং সিগন্যাল হিসেবে বিবেচিত হয়, বিশেষ করে যখন সেগুলোর পরে ক্রসওভার থাকে। ক্রিপ্টোকারেন্সি ট্রেডিংয়ের ক্ষেত্রেও একই বিষয় কিন্তু এটির 24/7 অস্থির মার্কেটের কারণে, MA সেটিংস ও ট্রেডিং কৌশল ট্রেডারের প্রোফাইল অনুযায়ী পরিবর্তিত হতে পারে।


ক্রসওভার সিগন্যাল

স্বাভাবিকভাবেই, উপরে দিকে যাওয়া কোনো MA ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা নির্দেশ করে ও নীচের দিকে যাওয়া MA নিম্নমুখী প্রবণতা নির্দেশ করে। তবে, শুধুমাত্র মুভিং অ্যাভারেজই নির্ভরযোগ্য ও শক্তিশালী সূচক নয়। অতএব, ঊর্ধ্বমুখী ও নিম্নমুখী ক্রসওভার সিগন্যালগুলো চিহ্নিত করার জন্য MA সবসময়েই ব্যবহার করা হয়।

কোনো চার্টে দুটি ভিন্ন MA একটি আরেকটিকে ছেদ করলে ক্রসওভার সিগন্যাল তৈরি হয়। ঊর্ধ্বমুখী ক্রসওভার (একটি গোল্ডেন ক্রস নামেও পরিচিত) ঘটে যখন স্বল্প-মেয়াদী MA দীর্ঘমেয়াদী MA-এর উপরে অতিক্রম করে, যা একটি ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা শুরুর ইঙ্গিত দেয়। আর বিপরীতে, নিম্নমুখী ক্রসওভার (বা ডেথ ক্রস) ঘটে যখন একটি স্বল্প-মেয়াদী MA দীর্ঘমেয়াদী মুভিং অ্যাভারেজের নীচে ক্রস করে, যা নিম্নমুখী প্রবণতার সূচনা নির্দেশ করে। 


অন্যান্য বিবেচ্য কারণসমূহ

এখন পর্যন্ত উদাহরণগুলো সবই দিনের পরিপ্রেক্ষিতে, কিন্তু MA বিশ্লেষণ করার সময় এটি কোনো অত্যাবশ্যকীয় শর্ত নয়। যারা ডে ট্রেডিং করেন তারা দুই বা তিন মাস নয়, কোনো অ্যাসেট গত দুই বা তিন ঘণ্টায় কিভাবে পারফর্ম করেছে তা নিয়ে অনেক বেশি আগ্রহী হতে পারেন। মুভিং অ্যাভারেজ গণনা করার জন্য ব্যবহৃত সমীকরণগুলোতে বিভিন্ন টাইম ফ্রেমগুলো প্লাগ করা যেতে পারে এবং যতক্ষণ পর্যন্ত সেই টাইম ফ্রেমগুলো ট্রেডিং কৌশলের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকে, ডেটা ততক্ষণ পর্যন্ত উপকারী হতে পারে।

MA-এর একটি প্রধান নেতিবাচক দিক হল ল্যাগ টাইম। MA পূর্ববর্তী প্রাইস অ্যাকশনকে বিবেচনা করা ল্যাগিং সূচক হওয়ায় সিগন্যালগুলো প্রায়শই দেরি করে। উদাহরণস্বরূপ, কোনো ঊর্ধ্বমুখী ক্রসওভার ক্রয়ের ইঙ্গিত দিতে পারে, কিন্তু এটি শুধুমাত্র মূল্যের উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধির পরেই ঘটতে পারে। 

এর মানে হল যে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা অব্যাহত থাকলেও, মূল্য বৃদ্ধি ও ক্রসওভার সিগন্যালের সময়ের মধ্যে সম্ভাব্য মুনাফা হারিয়ে যেতে পারে। আরো খারাপ যা হতে পারে তো হল, কোনো ভুল গোল্ডেন ক্রস সিগন্যাল কোনো ট্রেডারকে মূল্য কমার ঠিক আগে লোকাল টপ ক্রয়ের ইঙ্গিত দিতে পারে। এই ভুয়া ক্রয় সিগন্যালকে সাধারণত ঊর্ধ্বমুখীর ফাঁদ বলা হয়।


শেষ কথা

মুভিং অ্যাভারেজ শক্তিশালী TA সূচক এবং সর্বাধিক ব্যবহৃতগুলোর মধ্যে একটি। ডেটা-চালিত পদ্ধতিতে মার্কেটের প্রবণতা বিশ্লেষণ করার ক্ষমতা কোনো মার্কেট কিভাবে পারফর্ম করছে সে সম্পর্কে অসাধারণ অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করে। তবে মনে রাখবেন, MA ও ক্রসওভার সিগন্যাল এককভাবে ব্যবহার করা উচিত নয় এবং ভুয়া সিগন্যাল এড়াতে বিভিন্ন TA সূচককে একত্রিত করে ব্যবহার করা সর্বদাই নিরাপদ।