5টি সাধারণ ক্রিপ্টোকারেন্সি কেলেঙ্কারি এবং কিভাবে তাদের এড়ানো যায়
সুচিপত্র
ভূমিকা
1. সোশ্যাল মিডিয়া গিভআওয়ে স্ক্যাম
2. পিরামিড ও পঞ্জি স্কিম
3. ভুয়া মোবাইল অ্যাপ
4. ফিশিং
5. কায়েমী স্বার্থ
শেষ কথা
5টি সাধারণ ক্রিপ্টোকারেন্সি কেলেঙ্কারি এবং কিভাবে তাদের এড়ানো যায়
হোম
নিবন্ধ
5টি সাধারণ ক্রিপ্টোকারেন্সি কেলেঙ্কারি এবং কিভাবে তাদের এড়ানো যায়

5টি সাধারণ ক্রিপ্টোকারেন্সি কেলেঙ্কারি এবং কিভাবে তাদের এড়ানো যায়

প্রকাশিত হয়েছে Jun 8, 2020আপডেট হয়েছে Sep 28, 2022
8m

ভূমিকা

আজকের পৃথিবীতে, আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি অপরাধীদের কাছে একটি অত্যন্ত মূল্যবান অ্যাসেট। এটি তরল, অত্যন্ত বহনযোগ্য ও একবার লেনদেন হয়ে গেলে, এটিকে ফিরিয়ে আনা প্রায় অসম্ভব। ফলস্বরূপ, স্ক্যামের একটি ঢেউ (বহু পুরাতন ক্লাসিক ও শুধু ক্রিপ্টোকারেন্সির জন্য তৈরি প্রতারণা দুটোই) ডিজিটাল ক্ষেত্রকে প্লাবিত করেছে। 

এই নিবন্ধে, আমরা সবচেয়ে প্রচলিত কিছু ক্রিপ্টোকারেন্সি স্ক্যাম চিহ্নিত করবো।


1. সোশ্যাল মিডিয়া গিভআওয়ে স্ক্যাম

এটি আশ্চর্যজনক যে আজকাল টুইটার ও ফেসবুকের মত স্থানগুলোতে সবাইকে কিভাবে এত উদার বলে মনে হচ্ছে। অনেক এনগেজমেন্ট থাকা কোনো টুইটের রিপ্লাইগুলো দেখুন। নিঃসন্দেহে আপনি আপনার প্রিয় ক্রিপ্টো কোম্পানি বা ইনফ্লুয়েন্সারদের মধ্যে কাউকে না কাউকে দেখতে পাবেন যে গিভআওয়ে করছে। আপনি যদি তাদেরকে মাত্র 1 BNB/BTC/ETH পাঠান, তাহলে তারা আপনাকে সেই পরিমাণের 10x ফেরত পাঠাবে! শুনতে অবিশ্বাস্য মনে হচ্ছে, তাই না? দুর্ভাগ্যবশত, মনে হচ্ছে কারণ এটি তাই। এই ধরনের অনেক স্ক্যামে প্রয়োগ করার জন্য এটি একটি ভালো নিয়ম।

এটা হবার সম্ভাবনা অত্যন্ত নগণ্য যে কেউ একজন একটি আসল গিভআওয়ে হোস্ট করছে যার জন্য আপনাকে প্রথমে আপনার নিজের টাকা পাঠাতে হবে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে, এই ধরনের বার্তা থেকে আপনার সতর্ক হওয়া উচিত। এগুলো এমন অ্যাকাউন্ট থেকে আসতে পারে যা আপনার পরিচিত ও পছন্দের ব্যক্তিদের অ্যাকাউন্টের মতই দেখতে, তবে এটি কৌশলের অংশ। আর তাদের উদারতার জন্য উল্লিখিত অ্যাকাউন্টকে ধন্যবাদ জানিয়ে কয়েক ডজন উত্তর – সেগুলো শুধুমাত্র জাল অ্যাকাউন্ট বা বট যেগুলোকে স্ক্যামের অংশ হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে।

এটি বলাই যথেষ্ট যে আপনার এগুলো উপেক্ষা করা উচিত। আপনি যদি সত্যিই নিশ্চিত হন যে সেগুলো বৈধ, তাহলে এই প্রোফাইলগুলো ভালোভাবে দেখলেই আপনি পার্থক্যগুলো ধরতে পারবেন। আপনি শীঘ্রই বুঝতে পারবেন যে এই টুইটার হ্যান্ডেল বা ফেসবুক প্রোফাইলগুলো ভুয়া।

আর Binance বা অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান যদি কোনো গিভওয়ে হোস্ট করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেও, বৈধ প্রতিষ্ঠানগুলো আপনাকে প্রথমেই ফান্ড পাঠাতে বলবে না।


2. পিরামিড ও পঞ্জি স্কিম

পিরামিড ও পঞ্জি স্কিমগুলো কিছুটা আলাদা, কিন্তু এগুলোর মধ্যকার সাদৃশ্যের কারণে আমরা একই ক্যাটাগরিতে রেখেছি। উভয় ক্ষেত্রেই, স্ক্যামগুলো অবিশ্বাস্য রিটার্নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে নতুন সদস্য আনা অংশগ্রহণকারীদের উপর নির্ভর করে।


পঞ্জি স্কিম

পঞ্জি স্কিমে, আপনি নিশ্চিত লাভসহ একটি বিনিয়োগের সুযোগ সম্পর্কে শুনতে পারেন (এটি আপনার প্রথম সতর্ক সংকেত!) সাধারণত, আপনি এই স্কিমটিকে কোনো পোর্টফোলিও পরিচালনা পরিষেবার চেহারায় দেখতে পাবেন। বাস্তবে, এখানে কোনো জাদুকরী সূত্র নেই – প্রাপ্ত "আয়" অন্য আরেকজন বিনিয়োগকারীদের অর্থ থেকে আসে।

আয়োজক একজন বিনিয়োগকারীর টাকা নিয়ে পুলে যোগ করবে। পুলের মধ্যে ক্যাশ শুধুমাত্র নতুন প্রবেশকারী থেকেই আসে। পুরানো বিনিয়োগকারীদেরকে নতুন বিনিয়োগকারীদের অর্থ দিয়ে পরিশোধ করা হয়, এটি এমন একটি চক্র যা যতদিন নতুন বিনিয়োগকারীরা আসবে ততদিন চলতে থাকবে। স্ক্যামটি তখনই উন্মোচিত হয়ে যায় যখন আর কোন ক্যাশ আসে না – পুরনো বিনিয়োগকারীদের পেমেন্ট টিকিয়ে রাখতে অক্ষম এই স্কিমটি তখন ভেঙে পড়ে।

উদাহরণস্বরূপ, এমন একটি পরিষেবার কথা ভাবুন যেটি মাসে 10% আয়ের প্রতিশ্রুতি দেয়। আপনি $100 দিতে পারেন। সংগঠক তখন অন্য আরেকজন 'ক্লায়েন্ট'-কে আনলেন যিনি $100 বিনিয়োগ করেন। এই নতুন-অর্জিত অর্থ ব্যবহার করে, তিনি আপনাকে মাসের শেষে $110 দিতে পারেন। দ্বিতীয়জনকে অর্থ দেয়ার জন্য তারপরে তার অন্য আরেকজন ক্লায়েন্টকে যোগদানের জন্য প্রলুব্ধ করতে হবে। স্কিমের অনিবার্য বিস্ফোরণ পর্যন্ত চক্রটি চলতে থাকে।


পিরামিড স্কিম

পিরামিড স্কিমের ক্ষেত্রে, জড়িতদের একটু বেশি কাজ করতে হয়। পিরামিডের শীর্ষে রয়েছে সংগঠক। তারা তাদের নীচের স্তরে কাজ করার জন্য একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক লোক নিয়োগ করবে এবং সেই ব্যক্তিদের প্রত্যেকে তাদের নিজস্ব সংখ্যক লোক নিয়োগ করবে ইত্যাদি। ফলস্বরূপ, আপনি একটি বিশাল কাঠামো পাবেন যেটি দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পায় ও নতুন নতুন স্তর তৈরি হওয়ার সাথে সাথে বিস্তৃত হয় (এ কারণে পিরামিড বলা হয়)।


পিরামিড স্কিমের উদাহরণ


এখন পর্যন্ত, কোনো বিশাল আকারের (বৈধ) ব্যবসার চার্ট কী হতে পারে শুধুমাত্র তা আমরা বর্ণনা করেছি। কিন্তু পিরামিড স্কিমটি এখানে আলাদা যে এটি নতুন সদস্য নিয়োগের জন্য আয়ের প্রতিশ্রুতি দেয়। একটি উদাহরণ দেখি যেখানে অ্যালিস ও ববকে সংগঠক প্রতিটি $100 এর বিনিময়ে নতুন সদস্যদের তালিকাভুক্ত করার অধিকার দেয় ও তাদের পরবর্তী আয়ের উপর 50% কাট নেয়। অ্যালিস ও বব তাদের নিয়োগ করা ব্যক্তিদেরকে একই চুক্তি অফার করতে পারে (তাদের প্রাথমিক বিনিয়োগ পুনরুদ্ধার করতে কমপক্ষে দুটি নিয়োগের প্রয়োজন হবে)।

উদাহরণস্বরূপ, অ্যালিস যদি ক্যারল ও ড্যান উভয়ের কাছে সদস্যপদ বিক্রয় করে (প্রতিটি $100 করে) তাহলে তার কাছে $100 অবশিষ্ট থাকবে কারণ তার আয়ের অর্ধেক অবশ্যই তার উপরের স্তরে চলে যাবে। ক্যারল যদি মেম্বারশিপ বিক্রয় করে তাহলে আমরা দেখতে পাবো যে পুরস্কার ঊর্ধ্বমুখী হচ্ছে – অ্যালিস ক্যারলের আয়ের অর্ধেক পাবে আর সংগঠক অ্যালিসের অর্ধেকের অর্ধেক পাবে।

পিরামিড স্কিম বাড়ার সাথে সাথে বন্টন খরচ নিম্ন থেকে উপরের স্তরে চলে যাওয়ায় পুরাতন সদস্যরা আয়ের একটি ক্রমবর্ধমান ধারা অর্জন করে। কিন্তু এক্সপোনেন্সিয়াল বৃদ্ধির কারণে মডেলটি বেশিদিন টেকসই হয় না।

কখনও কখনও, অংশগ্রহণকারীরা কোনো পণ্য বা পরিষেবা বিক্রি করার অধিকারের জন্য অর্থ প্রদান করে। আপনি হয়তো কিছু মাল্টি-লেভেল মার্কেটিং (MLM) কোম্পানির কথা শুনে থাকবেন যারা এই পদ্ধতিতে পিরামিড স্কিম চালানোয় অভিযুক্ত।

ব্লকচেইন ও ক্রিপ্টোকারেন্সির প্রেক্ষাপটে, ওয়ানকয়েন, বিটকানেক্ট ও প্লাসটোকেনের মতো বিতর্কিত প্রজেক্টগুলো অভিযুক্ত হয়েছে যেখানে ব্যবহারকারীরা পিরামিড স্কিমগুলো পরিচালনা করার অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

আরো দেখুন: পিরামিড ও পঞ্জি স্কিম


3. ভুয়া মোবাইল অ্যাপ

আপনি সতর্ক না হলে ভুয়া অ্যাপের সতর্কতা চিহ্নগুলো সহজেই উপেক্ষা করবেন। সাধারণত, এই স্ক্যামগুলো ব্যবহারকারীদের ক্ষতিকর অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করতে নির্দেশ করবে – যার মধ্যে কিছু কিছু আছে যেগুলো জনপ্রিয় অ্যাপের নকল।

ব্যবহারকারী একবার এই ক্ষতিকর অ্যাপ ইনস্টল করলে, সবকিছুই ঠিকঠাকভাবে কাজ করছে বলে মনে হতে পারে। তবে, এই অ্যাপগুলো বিশেষভাবে আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি চুরি করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। ক্রিপ্টো স্পেসে, এমন অনেক ঘটনা ঘটেছে যেখানে ব্যবহারকারীরা ক্ষতিকর অ্যাপ ডাউনলোড করেছেন যার ডেভলপাররা একটি বড় ক্রিপ্টো কোম্পানির ছদ্মবেশে ছিল। 

এই ধরনের পরিস্থিতিতে, ব্যবহারকারীকে যখন ফান্ড বা পেমেন্ট গ্রহণের জন্য কোনো ঠিকানা দেয়া হয়, তখন তারা আসলে প্রতারকের মালিকানাধীন একটি ঠিকানায় ফান্ড পাঠাচ্ছে। অবশ্যই, ফান্ড একবার ট্রান্সফার করা হয়ে গেলে, বাতিল করার বাটন থাকবে না। 

আরেকটি বিষয় যা এই স্ক্যামগুলোকে বিশেষভাবে কার্যকর করে তোলে তা হল তাদের র‍্যাঙ্কিং পজিশন। ক্ষতিকর অ্যাপ হওয়া সত্ত্বেও, কোনোটি কোনোটি অ্যাপল স্টোর বা গুগল প্লে স্টোরে উপরের দিকে র‍্যাঙ্ক করতে পারে, যা এগুলোকে বৈধ বলে মনে করার সুযোগ তৈরি করে। এই ফাঁদে পড়া এড়াতে, শুধুমাত্র অফিসিয়াল ওয়েবসাইট বা কোনো বিশ্বস্ত উৎস থেকে দেয়া লিংক থেকেই আপনাকে ডাউনলোড করতে হবে। অ্যাপল স্টোর বা গুগল প্লে স্টোর ব্যবহার করার সময় আপনি পাবলিশারের ক্রেডেনশিয়ালও আপনি পরীক্ষা করতে পারেন।

আরো দেখুন: মোবাইল ডিভাইসের প্রচলিত স্ক্যামসমূহ



ক্রিপ্টোকারেন্সিতে শুরু করতে চাইছেন? Binance-এ বিটকয়েন ক্রয় করুন!



4. ফিশিং

ক্রিপ্টো স্পেসে যারা এমনকি নতুন এসেছেন তারাও নিঃসন্দেহে ফিশিং এর সাথে পরিচিত হয়ে থাকবেন। এই পদ্ধতিতে ব্যক্তি বা কোম্পানির ছদ্মবেশ ধারণ করে স্ক্যামার ক্ষতিগ্রস্তদের কাছ থেকে ব্যক্তিগত তথ্য বের করে নিয়ে যায়। এটি – টেলিফোন, ইমেইল, জাল ওয়েবসাইট বা মেসেজিং অ্যাপ, যেকোনো মাধ্যমে ঘটতে পারে। ক্রিপ্টোকারেন্সি পরিবেশে মেসেজিং অ্যাপ স্ক্যামগুলো অধিক প্রচলিত।

ব্যক্তিগত তথ্য চুরির সময় স্ক্যামাররা কোনো একক নিয়ম মেনে চলে না। আপনার এক্সচেঞ্জ অ্যাকাউন্টে কিছু ভুল হওয়ার বিষয়ে আপনাকে অবহিত করে ইমেইল পেতে পারেন যেখানে সমস্যাটি সমাধান করার জন্য আপনাকে একটি লিংক অনুসরণ করতে হবে। সেই লিংকটি একটি জাল ওয়েবসাইটে পুনঃনির্দেশিত করবে – যেটি দেখতে আসলটির মতোই – আর আপনাকে লগ ইন করতে অনুরোধ করবে। এভাবে, আক্রমণকারী আপনার ক্রেডেনশিয়াল এবং সম্ভবত আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি চুরি করবে।

প্রচলিত একটি টেলিগ্রাম স্ক্যামে দেখা যায় স্ক্যামার ক্রিপ্টো ওয়ালেট বা এক্সচেঞ্জের অফিসিয়াল গ্রুপে লুকিয়ে আছে। একজন ব্যবহারকারী এই গ্রুপে কোনো সমস্যা রিপোর্ট করলে স্ক্যামার গ্রাহক সহায়তা বা দলের সদস্যদের ছদ্মবেশ ধারণ করে ব্যক্তিগতভাবে ব্যবহারকারীর সাথে যোগাযোগ করে। সেখান থেকে, তারা ব্যবহারকারীকে তাদের ব্যক্তিগত তথ্য ও সিড ওয়ার্ড শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করবে।

কেউ যদি আপনার সিড ওয়ার্ড জানতে পারে তাহলে তারা আপনার ফান্ডে অ্যাক্সেস পাবে। কোনো অবস্থাতেই এগুলো কারও কাছে প্রকাশ করা যাবেনা, এমনকি বৈধ কোম্পানির কাছেও না। ওয়ালেট সম্পর্কিত সমস্যার সমাধানের জন্য আপনার সিড জানার প্রয়োজন হয় না, তাই এটা ধরে নেওয়া নিরাপদ যে এটির জন্য কেউ জিজ্ঞাসা করে থাকলে সে একজন স্ক্যামার।

এক্সচেঞ্জ অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে, Binance কখনোই আপনার পাসওয়ার্ড চাইবে না। অধিকাংশ অন্যান্য পরিষেবার ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। কোনো অযাচিত বার্তা পেলে সবচেয়ে বিচক্ষণ পদক্ষেপ হল কোনো কিছু না করে কোম্পানির অফিসিয়াল সাইটে তালিকাভুক্ত যোগাযোগের ঠিকানার মাধ্যমে যোগাযোগ করা।

অন্যান্য কিছু নিরাপত্তা টিপসের মধ্যে আছে:

  • আপনি যে ওয়েবসাইট পরিদর্শন করছেন সেগুলোর URL চেক করুন। প্রচলিত একটি কৌশল হল, স্ক্যামার এমন একটি ডোমেইন নিবন্ধন করবে যেটি দেখতে বাস্তব কোনো কোম্পানির (যেমন, binnance.com) মত।

  • ঘন ঘন ভিজিট করেন এমন ডোমেইন বুকমার্ক করে রাখুন। সার্চ ইঞ্জিন ভুলভাবে ক্ষতিকরগুলোকে প্রদর্শন করতে পারে।

  • প্রাপ্ত কোনো বার্তা সম্পর্কে সন্দেহ হলে উপেক্ষা করে অফিসিয়াল চ্যানেলের মাধ্যমে ব্যবসা বা ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ করুন।

  • আপনার প্রাইভেট কী বা সিড ফ্রেজ কারও জানার প্রয়োজন নেই।


5. কায়েমী স্বার্থ

সংক্ষিপ্ত রূপ DYOR – নিজের গবেষণা নিজে করুন – প্রায়শই ক্রিপ্টোকারেন্সি স্পেসে বারবার ব্যবহৃত হয় এবং উপযুক্ত কারণেই হয়।

বিনিয়োগের প্রশ্নে, কোন ক্রিপ্টোকারেন্সি বা টোকেন কিনতে হবে সে বিষয়ে আপনার কখনই কারও কথাকে সত্য বলে ধরে নেয়া উচিত নয়। তাদের আসল উদ্দেশ্য আপনি কখনই জানবেন না। তাদের কোনো নির্দিষ্ট ICO এর পক্ষে প্রচারণা করার জন্য অর্থ প্রদান করা হয়ে থাকতে পারে বা তাদের নিজস্ব কোনো বড় বিনিয়োগ থাকতে পারে। এটি জনপ্রিয় ইনফ্লুয়েন্সার ও র‍্যান্ডম ব্যক্তি সকলের জন্যই সত্য। কোনো প্রজেক্টের সফলতাই নিশ্চিত নয়। বস্তুত, অনেক প্রজেক্টই ব্যর্থ হবে।

নিরপেক্ষভাবে কোনো প্রজেক্ট মূল্যায়ন করতে হলে, আপনি বিভিন্ন নিয়ামকের এটিকে দেখতে হব। সম্ভাব্য বিনিয়োগ গবেষণা করার জন্য প্রত্যেকের নিজস্ব পদ্ধতি রয়েছে। শুরু করার জন্য এখানে প্রচলিত কিছু প্রশ্ন রয়েছে:

  • কয়েন/টোকেন কিভাবে বিতরণ করা হয়েছে? 

  • সরবরাহের সিংহভাগ কি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের হাতে কেন্দ্রীভূত?

  • এই বিশেষ প্রজেক্টের ইউনিক সেলিং পয়েন্ট কী? 

  • অন্যান্য কোন প্রজেক্ট এই একই জিনিস করছে এবং এটি সেক্ষেত্রে অধিক ভালো কেন?

  • প্রজেক্টে কে কাজ করছে? এই টিমের কি শক্তিশালী ট্র্যাক রেকর্ড আছে?

  • কমিউনিটি কেমন? কী নির্মিত হচ্ছে?

  • এই মুদ্রা/টোকেনের কি আদৌ কোনো প্রয়োজন রয়েছে?


শেষ কথা

সরল ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে ফান্ড চুরি করার জন্য ক্ষতিকারক ব্যক্তিদের কৌশলের কোনো অভাব নেই। সবচেয়ে প্রচলিত স্ক্যামগুলো থেকে দূরে থাকতে, আপনাকে এই দলগুলোর দ্বারা ব্যবহৃত স্কিমগুলো সম্পর্কে ক্রমাগত সতর্ক ও সচেতন থাকতে হবে। আপনি অফিসিয়াল ওয়েবসাইট/অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করছেন কিনা তা সর্বদা পরীক্ষা করুন আর মনে রাখবেন: যদি কোনো বিনিয়োগকে অবিশ্বাস্য বলে মনে হয়, তাহলে সম্ভবত সেটি তাই।