ডেলিগেটেড প্রুফ অফ স্ট্যাকের ব্যাখ্যা
হোম
নিবন্ধ
ডেলিগেটেড প্রুফ অফ স্ট্যাকের ব্যাখ্যা

ডেলিগেটেড প্রুফ অফ স্ট্যাকের ব্যাখ্যা

প্রকাশিত হয়েছে Nov 27, 2018আপডেট হয়েছে Oct 3, 2022
5m

ডেলিগেটেড প্রুফ অফ স্ট্যাক (DPoS) কনসেনশাস অ্যালগরিদমকে অনেকেই পূর্ববর্তী PoS মেকানিজমের একটি দক্ষ ও গণতান্ত্রিক সংস্করণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

ডিজাইন অনুসারে একটি PoW সিস্টেমের জন্য যেহেতু প্রচুর বাহ্যিক রিসোর্স প্রয়োজন হয় তাই PoS ও DPOS উভয়ই প্রুফ অফ ওয়ার্ক কনসেনশাস অ্যালগরিদমের বিকল্প হিসেবে ব্যবহৃত হয়। প্রুফ অফ ওয়ার্ক অ্যালগরিদম একটি অপরিবর্তনীয়, বিকেন্দ্রীভূত ও স্বচ্ছ বণ্টিত লেজার সুরক্ষিত করার জন্য বিপুল পরিমাণে গণনামূলক কাজ ব্যবহার করে। বিপরীতভাবে, PoS ও DPOS-এর জন্য কম রিসোর্সের প্রয়োজন হয় এবং ডিজাইন অনুযায়ী এটি আরও টেকসই ও পরিবেশ বান্ধব। ডেলিগেটেড প্রুফ অফ স্ট্যাক কিভাবে কাজ করে তা বোঝার জন্য প্রথমে পূর্ববর্তী প্রুফ অফ ওয়ার্ক ও প্রুফ অফ স্ট্যাক অ্যালগরিদমগুলোর মূল বিষয়গুলো বুঝতে হবে।


প্রুফ অফ ওয়ার্ক (PoW)

অধিকাংশ ক্রিপ্টোকারেন্সি সিস্টেম ব্লকচেইন নামক একটি বণ্টিত লেজারের উপরে চলে ও প্রুফ অফ ওয়ার্ক ছিল ব্যবহার করা প্রথম কনসেনশাস অ্যালগরিদম। এটি বিটকয়েন প্রোটোকলের একটি মূল উপাদান হিসেবে প্রয়োগ করা হয়েছিল যেটির দায়িত্ব ছিল নতুন ব্লক তৈরি করা ও নেটওয়ার্ক সুরক্ষিত রাখা (মাইনিং প্রক্রিয়ার মাধ্যমে)। বিটকয়েন প্রথাগত বৈশ্বিক মুদ্রা ব্যবস্থার বিকল্প হিসেবে প্রস্তাব করা হয়েছিল, যা কেন্দ্রীভূত ও অদক্ষ। PoW একটি কার্যকর কনসেনশাস প্রোটোকল প্রবর্তন করে যা কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষের নেতৃত্বে অর্থ প্রেরণকে অপ্রয়োজনীয় করে তোলে। এটি পিয়ার-টু-পিয়ার অর্থনৈতিক নেটওয়ার্কে রিয়েল-টাইম বিকেন্দ্রীভূত পেমেন্ট নিষ্পত্তিকরণ প্রদান করে, যা মধ্যস্থতাকারীদের প্রয়োজনীয়তা দূর করে ও সামগ্রিক লেনদেনের খরচ কমিয়ে দেয়।

অন্যান্য ধরণের নোড এর পাশাপাশি, প্রুফ অফ ওয়ার্ক সিস্টেম মাইনিং নোডের নেটওয়ার্ক দ্বারা রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়, যা জটিল ক্রিপ্টোগ্রাফিক সমস্যাগুলো সমাধান করার জন্য বিশেষ হার্ডওয়্যার (ASICs) ব্যবহার করে। গড়ে প্রতি 10 মিনিটে একটি নতুন ব্লক মাইন করা হয়। মাইনার যদি কোনো ব্লকের সমাধান খুঁজে বের করতে পারে তাহলেই শুধুমাত্র ব্লকচেইনে একটি নতুন ব্লক যোগ করতে সক্ষম হয়। অন্য কথায়, কোনো মাইনার প্রুফ অফ ওয়ার্ক শেষ করার পরেই তা করতে সক্ষম হয়, যার ফলস্বরূপ তাকে নতুন তৈরি কয়েন ও সেই নির্দিষ্ট ব্লকের সকল লেনদেনের ফি দিয়ে পুরস্কৃত করা হয়। তা সত্ত্বেও, এটি করা কঠিন কারণ এটির জন্য প্রচুর শক্তি ব্যয় হয় ও অনেক ব্যর্থ প্রচেষ্টা এতে জড়িত থাকে। তাছাড়া, ASIC হার্ডওয়্যার বেশ ব্যয়বহুল। 

সিস্টেম রক্ষণাবেক্ষণের প্রচেষ্টার বাইরেও, কোনো PoW সিস্টেম কতটা প্রয়োগ করা যেতে পারে তার উত্তর খুব পরিষ্কার নয় - বিশেষ করে স্কেলেবিলিটির ক্ষেত্রে (প্রতি সেকেন্ডে খুব সীমিত পরিমাণ লেনদেন)। তবে, PoW ব্লকচেইনগুলোকে সবচেয়ে নিরাপদ ও নির্ভরযোগ্য হিসেবে বিবেচনা করা হয় এবং এটি ত্রুটি-সহনশীল সমাধানের মানদণ্ড হিসেবে রয়ে গেছে।


প্রুফ অফ স্ট্যাক (PoS)

প্রুফ অফ স্ট্যাক কনসেনশাস অ্যালগরিদম হল কাজের প্রমাণের সবচেয়ে প্রচলিত বিকল্প। PoS সিস্টেমগুলো সাধারণত PoW-ভিত্তিক ব্লকচেইনে উদ্ভূত কিছু অদক্ষতা ও উদীয়মান সমস্যাগুলো সমাধান করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছিল। বিশেষভাবে এটি PoW মাইনিং (বিদ্যুৎ খরচ ও হার্ডওয়্যার)-এর সাথে সম্পর্কিত খরচগুলোর সমাধান করে। মূলত, কোনো প্রুফ অফ স্ট্যাক ব্লকচেইন একটি পরিণামবাদি পদ্ধতিতে (Deterministic Way) সুরক্ষিত। এই সিস্টেমে কোনো মাইনিং নেই এবং নতুন ব্লকের বৈধতা কতগুলো কয়েন স্ট্যাককৃত রয়েছে তার উপর নির্ভর করে। কোনো ব্যক্তি যত বেশি কয়েন স্ট্যাক করেন, ব্লক ভ্যালিডেটর (মিন্টার বা ফোর্জার নামেও পরিচিত) হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনা তত বেশি।

PoW সিস্টেমগুলো বাহ্যিক বিনিয়োগের উপর নির্ভর করলেও (বিদ্যুৎ খরচ ও হার্ডওয়্যার), প্রুফ অফ স্ট্যাক ব্লকচেইন অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগের (ক্রিপ্টোকারেন্সি নিজেই) মাধ্যমে নিশ্চিত হয়।

অধিকন্তু, কোনো সফল আক্রমণের জন্য মোট বিদ্যমান কয়েনের কমপক্ষে 51% মালিকানার প্রয়োজন হওয়ায় PoS সিস্টেম ব্লকচেইন আক্রমণ করাকে অধিক ব্যয়বহুল করে তোলে। আক্রমণ ব্যর্থ হলে বিশাল আর্থিক ক্ষতি হয়। PoS-এর সুবিধা ও পক্ষে বিশ্বাসযোগ্য যুক্তি থাকা সত্ত্বেও, এই ধরনের সিস্টেমগুলো এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে ও এখনও বৃহত্তর স্কেলে পরীক্ষা করা বাকি আছে।


ডেলিগেটেড প্রুফ অফ স্ট্যাক (DpoS)

ডেলিগেটেড প্রুফ অফ স্ট্যাক (DPoS) কনসেনশাস অ্যালগরিদম 2014 সালে ড্যানিয়েল ল্যারিমার তৈরি করেন। Bitshares, Steem, Ark, ও Lisk হল কিছু ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রজেক্ট যা DPoS কনসেনশাস অ্যালগরিদম ব্যবহার করে।

কোনো DPOS-ভিত্তিক ব্লকচেইন একটি ভোটিং সিস্টেমের মাধ্যমে গণনা করে যেখানে স্টেকহোল্ডাররা তাদের কাজ তৃতীয় পক্ষের কাছে আউটসোর্স করে। অন্য কথায়, তারা কিছু প্রতিনিধিদের জন্য ভোট দিতে পারে যারা তাদের পক্ষে নেটওয়ার্ককে সুরক্ষিত করবে। প্রতিনিধিদেরকে সাক্ষী হিসেবেও উল্লেখ করা যেতে পারে ও নতুন ব্লক তৈরি ও ভ্যালিডেশনের সময় কনসেনশাস অর্জন করা তাদের দায়িত্ব। ভোট দেওয়ার ক্ষমতা প্রতিটি ব্যবহারকারীর হাতে থাকা কয়েনের সংখ্যার সমানুপাতিক। ভোটিং সিস্টেম প্রজেক্ট থেকে প্রজেক্টে ভিন্ন হয়, তবে সাধারণভাবে, ভোট চাওয়ার সময় প্রত্যেক প্রতিনিধি আলাদা আলাদা প্রস্তাব উপস্থাপন করে। সাধারণত, প্রতিনিধিদের দ্বারা সংগৃহীত পুরস্কারগুলো তাদের নিজ নিজ নির্বাচকদের সাথে আনুপাতিকভাবে ভাগ করা হয়।

তাই, DPoS অ্যালগরিদম একটি ভোটিং ব্যবস্থা তৈরি করে যা সরাসরি প্রতিনিধিদের সুনামের উপর নির্ভরশীল। কোনো নির্বাচিত নোড অনাকাঙ্ক্ষিত আচরণ করলে বা দক্ষতার সাথে কাজ না করলে এটিকে দ্রুত অপসারণ করা হবে ও অন্য আরেকটি দ্বারা প্রতিস্থাপিত হবে।

পারফরম্যান্সের ক্ষেত্রে, PoW ও PoS-এর সাথে তুলনায় DPoS ব্লকচেইনগুলো অধিক স্কেলেবল, প্রতি সেকেন্ডে অধিক লেনদেন প্রক্রিয়া করতে সক্ষম (TPS)।


DPoS বনাম PoS

স্টেকহোল্ডিংয়ের বিচারে PoS ও DPOS একই রকম হলেও DPoS একটি অভিনব গণতান্ত্রিক ভোটিং ব্যবস্থা উপস্থাপন করে, যার মাধ্যমে ব্লক প্রযোজকরা নির্বাচিত হয়। DPoS সিস্টেমকে ভোটাররা রক্ষণাবেক্ষণ করায়, প্রতিনিধিরা সৎ ও দক্ষ হতে অনুপ্রাণিত হয় নতুবা ভোটের মাধ্যমে তাদের বাদ দেয়া হয়। এছাড়াও, DPoS ব্লকচেইনগুলো PoS-এর তুলনায় প্রতি সেকেন্ডে লেনদেনের ক্ষেত্রে দ্রুততর হয়।


DPoS বনাম PoW

PoS, PoW-এর ত্রুটিগুলো সমাধান করার চেষ্টা করে আর DPOS ব্লক উৎপাদন প্রক্রিয়াটিকে দক্ষ করে তোলে। সেই কারণে, DPoS সিস্টেমগুলো দ্রুত অধিক পরিমাণের ব্লকচেইন লেনদেন প্রক্রিয়া করতে পারে। এখন, DPoS PoW বা PoS-এর মতো একইভাবে ব্যবহার করা হয় না। PoW এখনও সবচেয়ে নিরাপদ কনসেনশাস অ্যালগরিদম হিসেবে বিবেচিত হয়, আর সে কারণে অধিকাংশ অর্থ প্রেরণ এখানে ঘটে। PoS, PoW-এর চেয়ে দ্রুত ও সম্ভাব্য অনেক ব্যবহার ক্ষেত্র রয়েছে। ব্লক প্রযোজকদের নির্বাচনে স্ট্যাকিংয়ের ব্যবহারকে DPoS সীমিত করে। PoW-এর প্রতিযোগিতা-ভিত্তিক সিস্টেমের বিপরীতে এটির প্রকৃত ব্লক উৎপাদন পূর্বনির্ধারিত। ব্লক উৎপাদনে প্রতিটি সাক্ষী পালাক্রমে সুযোগ পায়। কেউ কেউ দাবি করেন যে DPoS-কে অথোরিটির প্রমাণ হিসেবে বিবেচনা করা উচিত। 

PoW ও এমনকি PoS থেকে DPoS যথেষ্ট আলাদা। স্টেকহোল্ডারদের ভোটিংয়ের অন্তর্ভুক্তি সৎ ও দক্ষ প্রতিনিধিদের (বা সাক্ষীদের) সিদ্ধান্ত নেওয়ার ও অনুপ্রাণিত করার একটি উপায় হিসেবে কাজ করে। তবে, প্রকৃত ব্লক উৎপাদন PoS সিস্টেম থেকে বেশ আলাদা ও অধিকাংশ ক্ষেত্রেই প্রতি সেকেন্ডে লেনদেনের ক্ষেত্রে উচ্চতর পাফরম্যান্স উপস্থাপন করে।