সাধারণ সুরক্ষা নীতিমালা
সাধারণ সুরক্ষা নীতিমালা
হোম
নিবন্ধ
সাধারণ সুরক্ষা নীতিমালা

সাধারণ সুরক্ষা নীতিমালা

প্রকাশিত হয়েছে Nov 28, 2018আপডেট হয়েছে Oct 4, 2022
4m

এই নিবন্ধটি প্রদান করেছে Trezor.io


ক্রিপ্টোকারেন্সির উত্তেজনাপূর্ণ প্রচুর সম্ভাবনা থাকলেও অনভিজ্ঞদের জন্য এগুলো ঝুঁকিপূর্ণ ও বিপজ্জনকও বটে। ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহার, হোল্ড করা ও ট্রেডিংয়ের সাথে সম্পর্কিত কিছু কিছু ঝুঁকি কমানোর জন্য নিম্নে বর্ণিত নিরাপত্তা বিষয়ক তিনটি গুরুত্বপূর্ণ নীতি অনুসরণ করুন।


আপনার গোপনীয়তা বজায় রাখুন

ইন্টারনেটের বৈশিষ্ট্যের কারণে, তথ্য খুব দ্রুত প্রচার হতে পারে। আর কখনও কখনও সেগুলো চলে যায় অনাকাঙ্ক্ষিত দিকে।

আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি চুরি করার জন্য ক্ষতিকর উদ্দেশ্যে অনেক ব্যক্তি অসাধু কৌশল ব্যবহার করে। অধিকাংশ হুমকি ও আক্রমণগুলো সাধারণত বিস্তৃতভাবে করা হয় এবং এগুলো জালের মতো কাজ করে — যা সহজ সরল ও বেখায়াল থাকা ব্যক্তিদের ধরতে চেষ্টা করে। নির্দিষ্ট কোনো ব্যক্তিকে লক্ষ্য করবেই তা নয়। তবে, আপনি যদি সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশ করে অনিচ্ছাকৃতভাবে নিজেকে লক্ষ্য বানিয়ে ফেলেন, তাহলে আরো পরিশীলিত ও নির্দিষ্ট আক্রমণও হতে পারে।

আপনার জন্য আমাদের পরামর্শসমূহ:

  • আপনার ট্রেডিংয়ের সফলতা নিয়ে গর্ব করার ঝুঁকি নেয়ার আগে ভাবুন

  •  আপনার পূর্বে ব্যবহৃত ঠিকানা শেয়ার করবেন না

  • আপনার ব্যালেন্স উল্লেখ করার বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করুন

  • আপনার অফলাইন পরিচয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট যেকোনো তথ্য শেয়ার করা থেকে বিরত থাকুন

  • যোগাযোগের জন্য এনক্রিপ্ট করা চ্যানেল ব্যবহার করুন

দীর্ঘমেয়াদী চিন্তা করুন। আপনার ঠিকানায় থাকা সামান্য কয়েকটি সাতোশি আগামী বছরগুলোতে উল্লেখযোগ্যভাবে আরো বেশি মূল্যবান হতে পারে। বা নাও হতে পারে। এই সময়ের মধ্যে আপনার এমনকি ক্রিপ্টোকারেন্সি আর নাও থাকতে পারে। কিন্তু এটি কি গুরুত্বপূর্ণ কিছু? কোনো সম্ভাব্য আক্রমণকারী, দূরের আত্মীয় বা নিদেন ঈর্ষাকাতর অপরিচিত ব্যক্তি ও পরিচিতরা সময়মতো হয়ত এই খবর নাও জানতে পারে।


নিজেকে রক্ষা করুন

প্রথাগত ব্যাংকিং সিস্টেম ও ক্রিপ্টোকারেন্সি উভয়ের ব্যবহারকারীরা প্রায়শই একই ধরনের স্ক্যাম ও জালিয়াতির শিকার হন। তবে, ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোর ক্ষেত্রে, বিভিন্ন নিয়ামক—প্রধানত বিশ্বাসের অন্তর্নিহিত অভাব ও প্রক্রিয়া করা লেনদেনের অপরিবর্তনীয়তা, সর্বশেষ ব্যবহারকারীর (End-user) কাঁধে দায়িত্বের বোঝা চাপিয়ে দিচ্ছে।

বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিবেচিত ব্যাংকের কাছে আপনার অর্থের সম্পূর্ণ কাস্টোডিয়াল নিয়ন্ত্রণ থাকে। ব্যাংকগুলো নীতিমালা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত, এবং তারা একে অপরের সাথে যোগাযোগ করে যা জালিয়াতির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ও লড়াইকে সহজতর করে। আপনি যদি কোনো ঘটনার ভুক্তভোগী হন বা আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে অর্থ ট্রান্সফার করার সময় আসলে অনিচ্ছাকৃত কোনো ভুল করেন, তাহলে সাধারণত আপনি চার্জব্যাক চাইতে পারেন। ক্রিপ্টোকারেন্সির ক্ষেত্রে, লেনদেনগুলো একবার নেটওয়ার্কে প্রোপাগেট ও নিশ্চিত করা হয়ে গেলে, সেগুলো আর পরিবর্তনীয় থাকে না।
সতর্ক থাকুন। প্রচলিত ফিশিং কৌশল, কীলগার কী এবং প্রচলিত ঝুঁকিগুলো সম্পর্কে Binance অ্যাকাডেমির বর্ণনা থেকে জানুন। এই বিপদগুলোর সম্পর্কে ধারণা থাকলে আপনি আপনার কয়েন সুরক্ষিত রাখতে পারবেন।

শক্তিশালী ও অনন্য পাসওয়ার্ডের ব্যবহার এবং আপনার অনলাইন অ্যাকাউন্টগুলোর জন্য 2FA নিরাপত্তা সক্রিয় করা আপনার সাধারণ নিরাপত্তা উন্নত করার প্রথম পদক্ষেপ হতে হবে।
নিজের বিরুদ্ধেও নিজেকে সুরক্ষিত করার কথাও ভুলে যাওয়া যাবে না, কারণ আপনি (সম্ভবত) একজন মানুষ এবং মানুষ ভুল করে। আপনার ব্যাকআপ তৈরি করার সময় কোনো টাইপো করা, কোনো ভুল ঠিকানায় আপনার টোকেন পাঠানো বা কেবলমাত্র একটি ভুল সিদ্ধান্তই আপনার নিরাপত্তাকে বিঘ্নিত করতে পারে এবং অনেক অসুবিধার কারণ হতে পারে।

'সাবধানের মার নাই' প্রবাদটি আমরা অনেকেই আমাদের পিতামাতার কাছ থেকে শুনেছি। ক্রিপ্টোকারেন্সির ব্যবহার ও সুরক্ষার প্রশ্নে, এটি আরো বেশি প্রাসঙ্গিক হয়ে ওঠে।


নিজেই নিজের ব্যাংক হয়ে যান

আপনার কয়েনের প্রাপ্যতা নিশ্চিত করতে ও আপনার নিরাপত্তা সর্বোচ্চ করতে, আপনার প্রাইভেট কী-গুলো অফলাইনে রাখুন। এক্সচেঞ্জগুলো আগের তুলনায় অনেক বেশি নিরাপদ হলেও, আপনি যদি কোনো সক্রিয় ট্রেডার হন তাহলেই কেবল এক্সচেঞ্জ অ্যাকাউন্টে যথেষ্ট পরিমাণ অর্থ রাখবেন। এছাড়াও, কোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্টে থাকা অর্থের মতোই, আপনার প্রাইভেট কীতে যদি আপনার এক্সক্লুসিভ অ্যাক্সেস না থাকে এবং মালিক না হন, তাহলে আপনি আপনার কয়েনের মালিকানা দাবি করতে পারবেন না এবং আপনার কাছে থাকবে কেবল প্রতিশ্রুতি।

ইতিহাসে প্রথমবারের মতো, আপনি এমনভাবে ডিজিটাল অ্যাসেটের মালিক হওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন যেভাবে আপনি নগদ অর্থ বা মূল্যবান ধাতুর মালিক হতে পারেন। কাগজের টুকরোতে আপনি আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যাক আপ করতে পারেন এবং বিশ্বের যেকোনো জায়গায় বসে নিরাপদে আপনার সম্পদে অ্যাক্সেস পেতে পারেন, যা অন্যান্য ধরণের অ্যাসেটে করা যায় না।

অবশ্যই, আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সির এই কী-গুলো রাখা ও সুরক্ষিত করায় অনেক বিপদ রয়েছে, যেমনটি পূর্ববর্তী সেকশনে বলা হয়েছে। সৌভাগ্যবশত, এই চ্যালেঞ্জগুলোর ক্ষেত্রে আপনাকে সাহায্য করতে এবং আপনাকে এই নতুন প্রযুক্তিগুলোর সম্পূর্ণ সুবিধা নিতে হাতিয়ার প্রস্তুত আছে।

আপনার প্রাইভেট কী রাখার জন্য ডিজাইন করা ক্রিপ্টোকারেন্সি ওয়ালেটের ধরনগুলো তাদের নিরাপত্তা, ব্যবহারে কতটা সহজ, ব্যবহার ক্ষেত্রের সংখ্যা এবং এমনকি প্রাপ্যতার ক্ষেত্রেও ভিন্ন ভিন্ন হয়। আপনার বিকল্পগুলো বিবেচনা করুন এবং আপনার প্রয়োজনের সাথে মানানসই একটি ধরণ বাছাই করুন।

বিভিন্ন ধরণের বৈশিষ্ট্যসহ সফ্টওয়্যার ও মোবাইল ফোন ওয়ালেট রয়েছে এবং এগুলো ব্যবহার করা সাধারণত খুবই সহজ। নিরাপত্তা দৃষ্টিকোণ থেকে বড় অসুবিধা হল যে এগুলো খুব জটিল এবং প্রায়শই আপনার মোবাইল ফোন বা কম্পিউটারের মত অনলাইন পরিবেশ সাথে সংযুক্ত থাকে। আপনার কয়েনে অ্যাক্সেস করার জন্য এই নিয়ামকগুলো ভাইরাস ও হ্যাকারদের অনেক সুযোগ উন্মুক্ত করে দেয়; তাই, অনভিজ্ঞ ব্যবহারকারীদের উচিত শুধুমাত্র স্বল্প পরিমাণ ক্রিপ্টোকারেন্সির জন্য এগুলো ব্যবহার করা।

কাগজের ওয়ালেট, যেগুলো কাগজের টুকরোতে (বা ধাতুর কোনো প্লেটে খোদাই করে) আপনার প্রাইভেট কী-গুলো রাখে, সেগুলো প্রায়শই প্রাইভেট কী-গুলো সংরক্ষণের অন্যতম নিরাপদ উপায় হিসেবে বিবেচিত হয়। এগুলো ম্যানেজ করা বেশ কঠিন এবং সাধারণত শুধুমাত্র একবার ব্যবহারের জন্য কার্যকর।
ব্যবহারে কতটা সহজ ও উচ্চ স্তরের সুরক্ষার মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য হার্ডওয়্যার ওয়ালেটগুলো সাধারণত সেরা। পকেট-রাখা যায় এমন আকারের এই ডিভাইসগুলো অফলাইনে রেখে ম্যালওয়্যার ও হ্যাকারদের বিরুদ্ধে প্রাইভেট কী-গুলোকে রক্ষা করে। তবে এগুলোর খরচ $70 থেকে $200, এবং নিশ্চিতকরণের জন্য অধিকাংশ কাজের ক্ষেত্রে এগুলোকে ফিজিক্যালি ব্যবহার করতে হয়।

মনে রাখবেন, নিরাপত্তা কখনই নিরঙ্কুশ এবং প্রয়োজন শেষ হয় না। মাঝে মাঝেই আপনার জানাশোনাকে আপডেট করার জন্য সময় দিন এবং নিয়মিতভাবে আপনার সম্ভাব্য দুর্বল পয়েন্টগুলো পরীক্ষা করুন।